মাফ চাইতে হবে ট্রাম্পকে

  যুগান্তর ডেস্ক ১৪ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আফ্রিকার দেশগুলো এক হচ্ছে জাতিসংঘে

আফ্রিকা মহাদেশের দেশগুলোকে ‘শিটহোলস’ (অত্যন্ত নোংরা জায়গা) বলে মন্তব্য করার জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ক্ষমা চাইতে বলেছে আফ্রিকান ইউনিয়ন। আফ্রিকার দেশগুলোর প্রতিনিধিত্বকারী ওই গোষ্ঠীটির ওয়াশিংটন ডিসি মিশন ট্রাম্পের এ মন্তব্যে ‘মর্মাহত, অপমানিত ও উদ্বিগ্ন’ হওয়ার কথা জানিয়েছে। খবর বিবিসির। বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউসের ওভাল দফতরে অভিবাসন নিয়ে এক বৈঠক চলাকালে ট্রাম্প ওই মন্তব্যটি করেন। কিন্তু কথিত ওই ভাষা ব্যবহার করেননি বলে দাবি করেছেন ট্রাম্প। ওই বৈঠকে উপস্থিত দুই রিপাবলিকান সিনেটরও ট্রাম্পের দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন। কিন্তু ওই বৈঠকে উপস্থিত ডেমোক্র্যাটিক সিনেটর ডিক ডারবিন জানান, বৈঠকে বেশ কয়েকবার আফ্রিকার দেশগুলোকে ‘নোংরা জায়গা’ বলে মন্তব্য করে ‘বর্ণবাদী’ ভাষা ব্যবহার করেছেন ট্রাম্প। শুক্রবার এক টুইটে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জানান, অভিবাসন আইন ‘কঠোর’ করা নিয়ে আইনপ্রণেতাদের সঙ্গে ওই গোপন বৈঠকটি করছিলেন তিনি। কিন্তু যেসব শব্দের কথা বলা হচ্ছে, সেগুলো ব্যবহার করা হয়নি।

শুক্রবার জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে একজোট হয়েছে আফ্রিকান ইউনিয়ন। সংস্থাটি বলেছে, এ মন্তব্য সুপ্রসিদ্ধ মার্কিন ভাবমূর্তি এবং বৈচিত্র্য ও মর্যাদার প্রতি শ্রদ্ধাকে অসম্মান করেছে। এতে আমরা আহত, অপমানিত ও উদ্বিগ্ন হয়েছি।

‘শিটহোল’ অনুবাদে ঘাম ছুটে গেছে সাংবাদিকদের

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ব্যবহৃত বর্ণবাদী শব্দ ‘শিটহোলের’ অনুবাদ করতে গিয়ে রীতিমতো বিশ্ব গণমাধ্যমের সাংবাদিকদের ঘাম ছুটে গেছে। বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউসে অভিবাসন নিয়ে এক বৈঠকে ট্রাম্প আফ্রিকার দেশগুলোকে উদ্দেশ করে বলেন, এসব ‘শিটহোল’ দেশের লোকজন কেন আমাদের দেশে আসছে? ট্রাম্প অবশ্য এ শব্দটি ব্যবহারের কথা অস্বীকার করেছেন। কিন্তু তারপরও ঘটনাটি সাংবাদিকদের রিপোর্ট করতে হয়েছে। আর এ ‘শিটহোলের’ অনুবাদ করতে গিয়ে বিশ্বজুড়েই সাংবাদিকরা বেশ বিপাকে পড়েছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যমে ‘শিটহোল’ শব্দটি সরাসরি ব্যবহার করেনি অনেকে। সিএনএন এবং এমএসএনবিসি তাদের স্ক্রিনে শব্দটি ব্যবহার করেছে, কিন্তু সংবাদ উপস্থাপক ওলফ ব্লিটজার পুরো শব্দটি না বলে এর চেয়ে কম আপত্তিকর ‘এস হোল’ বলেই ক্ষ্যান্ত দেন।

বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিস কয়েক ডজন ভাষায় প্রচারিত হওয়ায় একে বিভিন্নভাবে অনুবাদ করা হয়েছে। বিবিসি মুন্ডু, যারা মূলত স্প্যানিশ ভাষায় দক্ষিণ আমেরিকার মানুষের জন্য রেডিও অনুষ্ঠান করে, তারা এটিকে অনুবাদ করেছে ‘পেইসেস ডে মিয়েরডা’ বা ‘মল বা বিষ্ঠার দেশ’ বলে। বিবিসি তুর্কি ভাষা বিভাগ ‘শিটহোলের’ অনুবাদ করেছে ‘বোক কাকারু’ বা ‘মলভর্তি গর্ত’ বলে। বিবিসি ইন্দোনেশিয়া ‘লোবাং কোটেরান’, অর্থাৎ ‘মলত্যাগের গর্ত’ হিসেবে প্রকাশ করেছে।

বর্ণবাদী বক্তব্যে বিশ্ব হতবাক

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আফ্রিকার দেশ নিয়ে ‘অশ্লীল’ ভাষায় মন্তব্য করায় বিশ্বজুড়ে তীব্র নিন্দার ঝড় উঠেছে। জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক মুখপাত্র রুপার্ট কোলভিল বলেন, যদি প্রেসিডেন্ট এসব কথা সত্যিই বলে থাকেন সেটা স্তম্ভিত হওয়ার মতো এবং লজ্জাজনক। তিনি বলেন, এটাকে ‘বর্ণবাদী’ বলা ছাড়া আর কিছু বলার সুযোগ নেই। বোতসোয়ানা সেদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে ডেকে নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, এসব কথাবার্তা চরম দায়িত্বহীন, নিন্দনীয় এবং বর্ণবাদী। আফ্রিকান ইউনিয়ন বলেছে, তারা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মন্তব্য শুনে শংকিত। এজন্য ট্রাম্পকে ক্ষমা চাইতে হবে বলেও জানিয়েছে আফ্রিকার জোটটি। সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন এক টুইটে বলেন, ‘হাইতিতে ভয়াবহ ভূমিকম্পের ৮ বছর পূর্তিতে প্রতিবেশী দেশটির প্রতি সহানুভূতি ও সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দেয়ার কথা। আমরা ট্রাম্পের বর্ণবাদী মন্তব্যের নিন্দা জানাচ্ছি।’

 
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

 

gpstar

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

E-mail: [email protected], [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter