ভোট খেলায়ও ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’

প্রকাশ : ২৭ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  সালমান রিয়াজ

ছবি: সংগৃহীত

ক্রিকেটের বাইশ গজে ছিলেন দাপুটে হিরো। ছক্কা হাঁকিয়ে, স্ট্যাম্প ভেঙে প্রতিপক্ষের জয়ের স্বপ্ন গুঁড়িয়ে দিয়েছেন। অধিনায়ক ও বোলার হিসেবে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করে ১৯৯২ সালে পাকিস্তানকে শিরোপা এনে দিয়েছেন তিনি।

দেশের জন্য প্রথম ও একমাত্র বিশ্বকাপ ক্রিকেটের শিরোপা জিতিয়ে হয়েছিলেন মহানায়ক। এক সময়ের প্লেবয় ইমরান খান এখন রাজনীতির মাঠেও সফল খেলোয়াড়। এবার রাজনীতিক হিসেবে জয়ের শিরোপা ঘরে তুলেছেন তিনি। ভেঙে দিয়েছেন বিরোধী রাজনীতিকদের মেরুদণ্ড। রাজনীতির মাঠের ভোট খেলায়ও ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ ইমরান খান।

বুধবার পাকিস্তানের ১১তম জাতীয় নির্বাচনের বেসরকারি ফলাফলে এগিয়ে রয়েছেন ইমরান খানের তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই)। দলের জয়ে তিনিই হচ্ছেন পাকিস্তানের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী। কারণ বিশ্ববাসীর কাছে পিটিআই মানেই ইমরান খান।

সেনাবাহিনীর অশুভ শক্তিতে হোক আর পুরোদস্তুর রাজনীতির খেলোয়াড় হিসেবেই হোক- ক্ষমতার মসনদ এখন ইমরানের দখলে। দীর্ঘ ২২ বছরের সংগ্রামী জীবনের পর স্বপ্ন পূরণ হল তার। তবে ইমরান খানের ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ হওয়ার পেছনে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অভিযোগ এখন তুঙ্গে। জল্পনা-কল্পনা চলছে, ‘খাকি আম্পায়ার’ ও ইমরান খান ম্যাচ জালিয়াতি করেছে। ইমরানের রাজনৈতিক ও ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে সমালোচনা থাকলেও তার খেলোয়াড়ি ও শিক্ষা নিয়ে কোনো বিতর্ক নেই।

ওই দুটিতে তিনি একশ’তে একশ’। পাকিস্তান ক্রিকেটের জীবন্ত কিংবদন্তি ইমরান খানের হাত ধরেই একমাত্র বিশ্বকাপ ট্রফি ঘরে ওঠে। যতদিন খেলেছেন দাপটের সঙ্গে খেলেছেন। নিজে খেলেছেন, সতীর্থদেরও খেলিয়েছেন। ওয়াসিম আকরাম ও ওয়াকার ইউনুসের মতো বিখ্যাত ‘টু ডব্লিউ’ তার হাত ধরেই তৈরি। ওয়াসিম-ওয়াকার বরাবরই ইমরানকে গুরু মানেন।

শিক্ষাজীবনও ঝলঝলে ইমরানের। পড়েছেন বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয় অক্সফোর্ডে। মূলত অক্সফোর্ডে লেখাপড়াই তার মধ্যে রাজনীতির বীজ বপন করেছে।

১৯৭৪ সালে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্লু ক্রিকেট টিমেরও অধিনায়ক ছিলেন ইমরান। এজন্য তাকে ‘অক্সফোর্ড ব্লু’ বলা হয়। শিক্ষাজীবন থেকেই প্লেবয় হিসেবে পরিচিত ইমরান। যৌবনের প্রেমময় জীবনেও বাউন্ডারি হাঁকিয়েছেন। ব্রিটিশ সুন্দরী থেকে আধ্যাত্মিক গুরু তার প্রেমের টোপে কুপোকাত।

১৯৯৫ সালে বিয়ে করেন ফরাসি ধনকুবের জেমস গোল্ডস্মিথের কন্যা সাংবাদিক জেমাইমা গোল্ডস্মিথকে। ২০১৪ সালে সংসার ভাঙে এ জুটির। ২০১৪ সালে আরেক সাংবাদিক রেহাম খানকে বিয়ে করলেও সেটি ১০ মাসের বেশি টেকেনি। ২০১৮ সালের প্রথমদিকে বিয়ের হ্যাটট্রিক মারেন ইমরান। বুশরা বিবি নামের এক ধর্মগুরুকে বিয়ে করেন বলে খবর ছড়ায়।

১৯৯৬ সালে ইমরান খান রাজনৈতিক দল পিটিআই প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯৭ সালে তিনি নির্বাচনে দুটি কেন্দ্র থেকে দাঁড়ালেও দুটিতেই হেরেছিলেন। ২০০২ সালে নির্বাচনে জয়ী হন তিনি। ২০১৩ সালের নির্বাচনে তার দল দ্বিতীয় বৃহত্তম দল হিসেবে আসন জেতে। আর এবার একেবারে শীর্ষস্থানে। রাজনীতির সিঁড়ি বেয়ে ওপরে উঠতে দীর্ঘ ২২ বছর সময় নিয়েছেন। প্রথমে হোঁচট খেয়েছেন, কিন্তু দমে যাননি।