একই পরিবারে মা মেয়ে বৈধ, বাবা স্বামী অবৈধ

প্রকাশ : ০১ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

আসামে সদ্য প্রকাশিত জাতীয় নাগরিক তালিকায় (এনআরসি) একই পরিবারের কারও নাম উঠেছে, কারও ওঠেনি। দেখা গেছে একই পরিবারের সদস্য হলেও স্ত্রী-কন্যাকে বৈধ নাগরিক করা হয়েছে কিন্তু স্বামী বা বাবাকে অবৈধদের তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। ‘চূড়ান্ত নাগরিক তালিকা’ খসড়ার এই অনিয়মে বিস্ময় প্রকাশ করেছে খোদ আসাম রাজ্যের বহু পরিবার।

৪০ লক্ষাধিক বাংলাভাষী নাগরিককে ‘অবৈধ’ করে দ্বিতীয় ধাপে সোমবার প্রকাশ করা হয় ওই নাগরিক তালিকা। এর একদিন পর মঙ্গলবার এ খবর প্রকাশ করে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

নাগরিক তালিকার ক্ষেত্রে আসামের প্রায় সব জেলাতেই ঘটেছে এমন আজব কাণ্ড। কাছাড় জেলার শিলকুড়ি এলাকার বাসিন্দা নিরঞ্জন সূত্রধর বলেন, ‘এটা কিভাবে সম্ভব যে, বাবা বা স্বামী হিসেবে আমি বৈধ নাগরিক হলাম না। অথচ স্ত্রী, কন্যা আর এক পুত্রের নাম নাগরিক পঞ্জিতে উঠল! আবার এক ছেলের নাম আছে, অন্যজন বাদ!’ ছয়জনের পরিবার নিরঞ্জনের। চারজনের নাম তিনি খুঁজে পেয়েছেন জাতীয় নাগরিক পঞ্জির চূড়ান্ত খসড়ায়। এক ছেলে আর তার নিজের নামও নেই।

একই কাহিনী পাশের জেলা হাইলাকান্দির বন্দুকমারা এলাকার বাসিন্দা মীনারা বেগমের। মীনারা বলেন, ‘আমার শ্বশুর আর বাবার দুজনেরই নামই ছিল ১৯৫১ সালের নাগরিক পঞ্জিতে। বাকি যা কাগজ দরকার, সব দিয়েছিলাম। কিন্তু সাতজনের পরিবারের তিনজনের নাম এসেছে, বাকি চারজনের নাম নেই।

এক মেয়ে আর এক ছেলের নাম নেই, আমার নিজের নামও নেই। কিন্তু অন্য ছেলে-মেয়েদের নাম রয়েছে।’ একইভাবে পাশের জেলা হাইলাকান্দির বাঁশধারের বাসিন্দা উজ্জ্বল রায়ও পরিবারের সবার নাম খুঁজে পাননি।