নিয়ামতপুরে ১২ কেজি ওজনের শকুন উদ্ধার
jugantor
নিয়ামতপুরে ১২ কেজি ওজনের শকুন উদ্ধার

  নিয়ামতপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধি  

৩০ ডিসেম্বর ২০১৭, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নিয়ামতপুরে প্রায় শতাধিক কাকের আক্রমণে আহত হওয়া ১২ কেজি ওজনের উদ্ধারকৃত একটি শকুনের চিকিৎসা চলছে রজশাহী বিভাগীয় বন বিভাগের তত্ত্বাবধানে। মোহনপুর উপজেলার একজন ভেটেরিনারি সার্জনের চিকিৎসা করছেন। প্রায় তিন দিন ধরে চলছে পাখিটির চিকিৎসা। সুস্থতা ফিরে পেলেই শকুনটিকে আবার অবমুক্ত করা হবে বলে জানা গেছে।

শুক্রবার পাখিটির খোঁজখবর নিতে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে রাজশাহী বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন জানান, আহত শকুন পাখিটিকে নিবিড় পর্যবেক্ষণের মাধম্যে একজন ভেটেরিনারি সার্জনের চিকিৎসা করছেন। চিকিৎসা শুরু হওয়ার পর থেকেই ধীরে ধীরে পাখিটি সুস্থ হয়ে উঠছে জানান তিনি। খাবারও খাচ্ছে স্বাভাবিক। পাখিটি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে গেলেই তাকে রাজশাহী বিভাগের গোদাগাড়ী উপজেলার প্রেমতলী বাগানে থেকে অবমুক্ত করা হবে। জানা যায়, মঙ্গলবার বাংলাদেশ থেকে প্রায় হারিয়ে যাওয়া এ শকুন পাখিটি সম্ভবত দল ছুট হয়ে নিয়ামতপুরের আকাশে প্রায় শতাধিক কাকের আক্রমণের শিকার হয়। এমন দৃশ্য চোখে পড়ে উপজেলার বালাহৈর গ্রামের বাসিন্দা ক্ষিতিষ চন্দ্র দেবনাথের। এক পর্যায়ে শকুন পাখিটি মাটিতে পড়ে যায়। পরে ক্ষিতিষ চন্ত্র দেবনাথ শকুন পাখিটিকে উদ্ধার করে উপজেলা প্রশাসনকে জানায়।

নিয়ামতপুরে ১২ কেজি ওজনের শকুন উদ্ধার

 নিয়ামতপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধি 
৩০ ডিসেম্বর ২০১৭, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নিয়ামতপুরে প্রায় শতাধিক কাকের আক্রমণে আহত হওয়া ১২ কেজি ওজনের উদ্ধারকৃত একটি শকুনের চিকিৎসা চলছে রজশাহী বিভাগীয় বন বিভাগের তত্ত্বাবধানে। মোহনপুর উপজেলার একজন ভেটেরিনারি সার্জনের চিকিৎসা করছেন। প্রায় তিন দিন ধরে চলছে পাখিটির চিকিৎসা। সুস্থতা ফিরে পেলেই শকুনটিকে আবার অবমুক্ত করা হবে বলে জানা গেছে।

শুক্রবার পাখিটির খোঁজখবর নিতে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে রাজশাহী বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন জানান, আহত শকুন পাখিটিকে নিবিড় পর্যবেক্ষণের মাধম্যে একজন ভেটেরিনারি সার্জনের চিকিৎসা করছেন। চিকিৎসা শুরু হওয়ার পর থেকেই ধীরে ধীরে পাখিটি সুস্থ হয়ে উঠছে জানান তিনি। খাবারও খাচ্ছে স্বাভাবিক। পাখিটি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে গেলেই তাকে রাজশাহী বিভাগের গোদাগাড়ী উপজেলার প্রেমতলী বাগানে থেকে অবমুক্ত করা হবে। জানা যায়, মঙ্গলবার বাংলাদেশ থেকে প্রায় হারিয়ে যাওয়া এ শকুন পাখিটি সম্ভবত দল ছুট হয়ে নিয়ামতপুরের আকাশে প্রায় শতাধিক কাকের আক্রমণের শিকার হয়। এমন দৃশ্য চোখে পড়ে উপজেলার বালাহৈর গ্রামের বাসিন্দা ক্ষিতিষ চন্দ্র দেবনাথের। এক পর্যায়ে শকুন পাখিটি মাটিতে পড়ে যায়। পরে ক্ষিতিষ চন্ত্র দেবনাথ শকুন পাখিটিকে উদ্ধার করে উপজেলা প্রশাসনকে জানায়।