অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি

  জেসমিন আক্তার ১৬ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সহকারী শিক্ষক, ভিক্টোরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ঢাকা

সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর

[পূর্বে প্রকাশিত অংশের পর]

প্রশ্ন : টেলিমেডিসিন কী? চিকিৎসাক্ষেত্রে আইসিটি কিভাবে ভূমিকা রাখছে লিখ।

উত্তর : টেলিমেডিসিন হল টেলিফোনের সাহায্যে চিকিৎসাসেবা গ্রহণ পদ্ধতি। এ ব্যবস্থায় পৃথিবীর যে কোনো প্রান্ত থেকে যে কেউ যে কোনো সমস্যায় টেলিফোনের মাধ্যমে ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে এবং চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করতে পারে।

বিজ্ঞানের যে কয়টি শাখা দ্রুত উন্নতি করেছে চিকিৎসাবিজ্ঞান তার মধ্যে অন্যতম। তথ্যপ্রযুক্তির কল্যাণে বিশ্বের যে কোনো স্থানে বসেই এখন চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করা সম্ভব। তথ্যপ্রযুক্তির কল্যাণে ডাক্তাররা আর অনুমানের ওপর নির্ভর করে না। একজন রোগী সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেয়ার পূর্বে শরীরকে সূক্ষ্মভাবে পরীক্ষা করা এবং রোগ নির্ণয় জরুরি। আর এ কাজটি করা যায় প্রযুক্তির সাহায্যে। শুধু তাই নয়, প্রাপ্ত তথ্যগুলো ভবিষ্যতে প্রয়োজনে ব্যবহারের জন্য ডেটাবেসে সংরক্ষণ করা যেতে পারে। যখন কোনো ওষুধের প্রেসক্রিপশন করতে হয় সেটাও তথ্যপ্রযুক্তির কারণে সঠিক হয়। চিকিৎসার প্রয়োজনে নতুন নতুন যন্ত্রপাতিও তৈরি হচ্ছে। দেশের কোটি কোটি শিশুকে টিকা দেয়ার কর্মসূচি সম্ভব হয় তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারে পরিকল্পনা আর তা কার্যকরের মাধ্যমে। তথ্যপ্রযুক্তির কারণে অন্য মাত্রায় গবেষণা সম্ভব হয়েছে। পূর্বে শুধু রোগের উপসর্গ কমানো হতো এখন সত্যিকারের রোগের কারণটিই খুঁজে বের করে সেটিকে অপসারণ করা হবে। শুধু তাই নয়, এখন যে রকম সব মানুষ একই ওষুধ খায় ভবিষ্যতে প্রত্যেকটি মানুষের জন্য আলাদা করে তার শরীরের উপযোগী ওষুধ তৈরি হবে। এমনকি ভবিষ্যতে হাজার মাইল দূরে থেকে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে সার্জনরা রোগীকে অপারেশন করতে পারবেন। তাই বলা যায়, চিকিৎসাক্ষেত্রে আইসিটির ভূমিকা অপরিসীম।

প্রশ্ন : হাব, সুইচ ও রাউটারের বর্ণনা দাও।

উত্তর : হাব : দুই-এর অধিক কম্পিউটারের মধ্যে নেটওয়ার্ক তৈরি করতে হলে এমন একটি কেন্দ্রীয় ডিভাইসের দরকার হয়, যা প্রতিটি কম্পিউটারকে সংযুক্ত করতে পারে। এ ডিভাইসকে হাব বলে। হাবের মাধ্যমে কম্পিউটারগুলো পরস্পরের সঙ্গে যুক্ত থাকে। নেটওয়ার্কে হাব ব্যবহার করলে তুলনামূলকভাবে খরচ কম পড়ে।

সুইচ : সুইচ হল বহু পোর্টবিশিষ্ট কম্পিউটার নেটওয়ার্ক ডিভাইস, যা তথ্য আদান-প্রদান করতে সাহায্য করে। বাইরে থেকে সুইচ দেখতে হাবের মতো মনে হলেও এটি ভিন্ন পদ্ধতিতে নেটওয়ার্কের ক্লায়েন্টের মধ্যে ডেটা আদান-প্রদান করে।

রাউটার : রাউটার একটি বুদ্ধিমান যন্ত্র, যা হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যারের সমন্বয়ে তৈরি, যা দুই বা অধিক একই প্রটোকলযুক্ত নেটওয়ার্কের মধ্যে ডেটা আদান-প্রদান করে। একটি নেটওয়ার্ক হাব ও সুইচের সমন্বয়ে তৈরি হয়। রাউটার দুটি ভিন্ন নেটওয়ার্কের মধ্যে অবস্থান করে। দুইয়ের বেশি ভিন্ন নেটওয়ার্কের মাঝেও অবস্থান করতে পারে।

প্রশ্ন : হাব ও সুইচের মধ্যে পার্থক্য লিখ।

উত্তর : হাব ও সুইচের মধ্যে পার্থক্য-

হাব সুইচ

১. ডেটা আদান-প্রদানে বাঁধার আশঙ্কা থাকে।

১. ডেটা আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে বাঁধার আশঙ্কা থাকে না।

২. ডেটা সিগন্যাল প্রাপক কম্পিউটারের সব পোর্ট পাঠায় অর্থাৎ নেটওয়ার্কের সব কম্পিউটারের কাছে পাঠায়।

২. প্রেরক কম্পিউটার থেকে সুনির্দিষ্ট ঠিকানায় প্রাপক কম্পিউটারের কাছে ডেটা পাঠায়।

৩. পোর্ট কম। অনেক বড় নেটওয়ার্ক তৈরিতে ব্যবহার করা যায় না।

৩. পোর্ট বেশি। তাই অনেক বড় নেটওয়ার্ক তৈরি করা যায়।

৪. সময় বেশি লাগে।

৪. সময় কম লাগে।

৫. নিরাপত্তা কম।

৫. নিরাপত্তাব্যবস্থা ভালো।

৬. মূল্য কম।

৬. মূল্য বেশি।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×