পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা

বাংলা * ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা

বাংলা

  সবুজ চৌধুরী ১৭ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সহকারী শিক্ষক, সেন্ট যোসেফ উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় মোহাম্মদপুর, ঢাকা

ঘাসফুল

জ্যোতিরিন্দ্র মৈত্র

প্রশ্ন : নিচের কবিতাংশ পড় এবং প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও।

আমরা ঘাসের ছোট ছোট ফুল

হাওয়াতে দোলাই মাথা,

তুলো না মোদের দলো না পায়ে

ছিঁড় না নরম পাতা।

শুধু দেখ আর খুশি হও মনে

সূর্যের সাথে হাসির কিরণে

কেমন আমরা হেসে উঠি আর

দুলে দুলে নাড়ি মাথা।

ক) ঘাসফুল আমাদের কাছে কী মিনতি করছে?

খ) উল্লিখিত কবিতাংশের মূলভাব লেখ।

গ) ঘাসফুল আমাদের কীভাবে আনন্দ দেয়?

ক) উত্তর : ঘাসফুল আমাদের কাছে মিনতি করছে আমরা যেন তাদেরকে ধ্বংস না করি।

প্রকৃতিতে ঘাসের মধ্যে ফুটে থাকা ছোট ছোট বুনোফুলকে ঘাসফুল বলে। এরা আপন ভুবনে সৌন্দর্য বিস্তার করে মানুষকে আনন্দ দেয়। আর মানুষ অবিবেচকের মতো তাদের তুলে নিয়ে, নরম পাতা ছিঁড়ে, পায়ে পিষ্ট করে ধ্বংস করে। ঘাসফুল তাই আমাদের কাছে মিনতি জানিয়েছে আমরা যেন তাদের প্রকৃতিতে বাঁচতে দেই।

খ) উত্তর : প্রকৃতিতে ঘাসের মধ্যে ফুটে থাকা ছোট ছোট বুনোফুলকে ঘাসফুল বলে। এরা আপন ভুবনে সৌন্দর্য বিস্তার করে মানুষকে আনন্দ দেয়। আর মানুষ অবিবেচকের মতো তাদের তুলে নিয়ে, নরম পাতা ছিঁড়ে, পায়ে পিষ্ট করে ধ্বংস করে। ঘাসফুল তাই আমাদের কাছে মিনতি জানিয়েছে আমরা যেন তাদের প্রকৃতিতে বাঁচতে দেই। যখন সূর্য জেগে ওঠে তখন তার কিরণের সঙ্গে ঘাসফুলও হেসে ওঠে আর বাতাসে দুলে দুলে মাথা নাড়ে। তাদের এই হাসি-খেলা দেখে আমরা যেন মুগ্ধ হই।

গ) উত্তর : ঘাসফুল প্রকৃতিতে তার চোখ জুড়ানো নয়নাভিরাম সৌন্দর্য মেলে ধরে আমাদের আনন্দ দেয়।

ঘাসের মধ্যে ফুটে থাকা ছোট ছোট বুনোফুল যেন আপন জগতে মোহনীয় রূপ নিয়ে খেলা করে। যখন সূর্য জেগে ওঠে তখন তার কিরণের সঙ্গে ঘাসফুলও হেসে ওঠে আর বাতাসে দুলে দুলে মাথা নাড়ে। তাদের এই হাসি-খেলা দেখে আমরা মুগ্ধ হই। আমাদের প্রাণে আনন্দের সঞ্চার হয়। ঘাসফুলের এই সৌন্দর্য আমাদের নষ্ট করা উচিত নয়। নষ্ট করলে আমরা আমাদের প্রাণের আনন্দ হারাব।

ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা

মো. ফোরকান আহমেদ

সহকারী শিক্ষক,

মুনলাইট মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ

মহানবী (সা.)-এর জীবনাদর্শ ও

অন্য নবীগণের পরিচয়

প্রশ্ন : হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জন্ম ও বংশ পরিচয় দাও।

উত্তর : হজরত মুহাম্মদ (সা.) হলেন সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ নবী ও রাসূল। তিনি ৫৭০ খ্রিস্টাব্দের ২০ এপ্রিল এবং রবিউল আউয়াল মাসের ১২ তারিখ সোমবার মক্কার বিখ্যাত কোরাইশ বংশে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম আব্দুল্লাহ, মাতার নাম আমিনা। তাঁর দাদার নাম ছিল আব্দুল মুত্তালিব। জন্মের পর তাঁর নাম রাখা হয় মুহাম্মদ ও আহমাদ। তাঁর জন্মের আগেই পিতা আব্দুল্লাহ মারা যান।

প্রশ্ন : শান্তি সংঘের উদ্দেশ্যগুলো কী কী?

উত্তর : বালক মুহাম্মদের গঠিত সংঘের নাম হিলফুল ফুযুল। মুহাম্মদ (সা.) ফিজার যুদ্ধের বিভীষিকাময় করুণ দৃশ্য দেখে আহতদের করুণ আর্তনাদে অস্থির হয়ে পড়েন। কায়াস গোত্র অন্যায়ভাবে এ যুদ্ধ কোরাইশদের ওপর চাপিয়ে দিয়েছিল। তখন তিনি শান্তিকামী উৎসাহী যুবক বন্ধুদের নিয়ে হিলফুল ফুযুল নামে এ শান্তি সংঘ গঠন করেন। এ শান্তি সংঘের উদ্দেশ্যগুলো ছিল-

* আর্তের সেবা করা * অত্যাচারীকে প্রতিরোধ করা

* অত্যাচারিতকে সাহায্য করা * শান্তি-শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করা এবং * গোত্রে গোত্রে সম্প্রীতি বজায় রাখা।

প্রশ্ন : হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর নবুয়ত লাভের ঘটনা সংক্ষেপে লিখ।

উত্তর : হজরত মুহাম্মদ (সা.) শিশু বয়স থেকেই মানুষের মুক্তির জন্য, শান্তির জন্য ভাবতেন। বয়স বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে তাঁর এ ভাবনা আরও গভীর হয়। মূর্তিপূজা ও কুসংস্কারে লিপ্ত এবং নানা দুঃখ-কষ্টে জর্জরিত মানুষের মুক্তির জন্য তাঁর সব ভাবনা। কী করা যায়, কীভাবে মানুষের হৃদয়ে এক আল্লাহর ভাবনা জাগানো যায়, কী করে কুফর-শিরক থেকে তাদের মুক্ত করা যায়- এসব বিষয়ের চিন্তা-ভাবনায় তিনি মগ্ন থাকতেন। বাড়ি থেকে তিন মাইল দূরে হেরা পর্বতের গুহায় নির্জনে ধ্যান করতেন। কখনও কখনও একাধারে দুই-তিন দিনও সেখানে ধ্যানে মগ্ন থাকতেন। এভাবে দীর্ঘদিন ধ্যানমগ্ন থাকার পর অবশেষে চল্লিশ বছর বয়সে রমজান মাসের কদরের রাতে আঁধার গুহা আলোকিত হয়ে উঠল। আল্লাহর ফেরেশতা জিবরাঈল (আ.) আল্লাহর মহান বাণী ওহি নিয়ে এলেন। মহানবী (সা.)কে লক্ষ্য করে বললেন, ইকরা পড়ুন। তিনি মহানবী (সা.)কে সূরা আলাকের প্রথম পাঁচ আয়াত পাঠ করে শোনালেন। এই ছিল মুহাম্মদ (সা.)-এর নবুয়ত লাভের ঘটনা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×