এসএসসি পরীক্ষার্থীদের প্রস্তুতি

বাংলা প্রথমপত্র * ভূগোল ও পরিবেশ

বাংলা প্রথমপত্র

  মুহম্মদ আল মাসুদ ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সিনিয়র শিক্ষক, মনিপুর উচ্চবিদ্যালয় ও কলেজ, মিরপুর, ঢাকা

কপোতাক্ষ নদ

- মাইকেল মধুসূদন দত্ত

সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

উদ্দীপকটি পড় এবং সংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :

প্রিয় তাহের,

শুভেচ্ছা নিস। প্রবাস জীবনে বারবার শুধু তোদের কথা আর শৈশবের স্মৃতিবিজড়িত তিতাস নদীর কথা খুব মনে পড়ে। তুই ইচ্ছে করে সব ছেড়ে, দেশ ছেড়ে, মায়ার বন্ধন ছেড়ে বিদেশে আসতে চাস। কিন্তু আমি বলি, আমার মতো এত বড় ভুল করিসনে বন্ধু।

-ইতি

প্রীতিধন্য, জাবেদ

প্রশ্ন :

ক) মাইকেল মধুসূদন দত্তের গ্রামের নাম কী?

খ) কবি কপোতাক্ষ নদের কাছে কী মিনতি করেছেন?

গ) উদ্দীপকের জাবেদের মধ্যে কবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের মনোভাবের কোনটির প্রকাশ ঘটেছে- ব্যাখ্যা কর।

ঘ) উদ্দীপকের তাহেরের মানসিকতা কবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের বিপরীত- উক্তিটির যথার্থতা বিচার কর।

উত্তর ক : মাইকেল মধুসূদন দত্তের গ্রামের নাম সাগরদাঁড়ি।

উত্তর খ : কবি কপোতাক্ষ নদের কাছে মিনতি করেছেন যে, নদ যেন তার হৃদয়ের কাতরতা বঙ্গবাসীর নিকট প্রকাশ করে। মাইকেল মধুসূদন দত্ত যশোরের সাগরদাঁড়ি গ্রামের কপোতাক্ষ নদের সঙ্গে কবির শৈশব-কৈশোরের কত যে স্মৃতি জড়িয়ে আছে তার শেষ নেই। কিন্তু যৌবনে উচ্চাভিলাসী আশায় কবি মাতৃভূমি এ নদ ত্যাগ করে প্রবাসে পাড়ি জমান। এ কারণে প্রবাসে বসে কপোতাক্ষ নদের কাছে মিনতি করেছেন, নদ যেন তার হৃদয়ের কথা কাতরতা বঙ্গবাসীর কাছে ব্যক্ত করে।

উত্তর গ : উদ্দীপকের জাবেদের মধ্যে কবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের স্বদেশপ্রেমের দিকটি প্রকাশ ঘটেছে। মাইকেল মধুসূদন দত্ত যশোরের সাগরদাঁড়ি গ্রামের কপোতাক্ষ নদের প্রাকৃতিক পরিবেশে বড় হয়েছেন। জন্মভূমি এ প্রকৃতি ও নদের সঙ্গে কবির শৈশব-কৈশোরের নানা স্মৃতিজড়িয়ে আছে। সুদূর প্রবাসে যখন তিনি বসবাস করেন, জন্মভূমির শৈশব-কৈশোরের স্মৃতি কবির মনে জাগায় কাতরতা।

পৃথিবীর বহু দেশে বহু নদ দেখলেও কবি মাতৃস্নেহের ডোরে বাঁধা শৈশবের এ নদকে ভুলতে পারেন না। তাই এ নদের কাছে কবির মিনতি, নদ যেন তার হৃদয়ের কাতরতা দেশ ও দেশবাসীর কাছে ব্যক্ত করে।

উদ্দীপকের জাবেদ দীর্ঘদিন প্রবাসে বসবাস করেছেন। কিন্তু মাতৃভূমির স্মৃতি ও আত্মীয়স্বজনদের তিনি কিছুতেই ভুলতে পারে না। এ কারণে বারবার তার হৃদয় দেশে ফিরতে চায়। দেশের প্রতি জাভেদের মধ্যে মধুসূদন দত্তের স্বদেশপ্রেম প্রকাশিত হয়েছে।

উত্তর ঘ : উদ্দীপকের তাহের বিদেশে যেতে চায় আর মাইকেল মধুসূদন দত্ত দেশে ফিরতে চান বলে একে তো অন্যের বিপরীত মানসিকতা। মধুসূদন দত্ত বিদেশি ভাষায় সাহিত্য রচনা করে খ্যাতি লাভের মোহে মাতৃভূমি, মাতৃভাষা, এমনকি ধর্ম ত্যাগ করে প্রবাসে পাড়ি জমান। সুদূর প্রবাসে তিনি বসবাস করেন, তখন শৈশব-কৈশোরের স্মৃতি তার মনে কাতরতা জাগায়।

দূরে বসেও তিনি কপোতাক্ষ নদের কলকল ধ্বনি শুনতে পান। জন্মভূমি মায়ের কোলে ফেরার জন্য কবি ব্যাকুল হয়ে ওঠেন। কিন্তু বাস্তবে সম্ভব নয় বলে কবি কপোতাক্ষ নদের কাছে মিনতি জানান, এ নদ যেন স্বদেশের জন্য তার হৃদয়ের কাতরতা বাংলার গান ও কবিতা বঙ্গবাসীর নিকট ব্যক্ত করে। উদ্দীপকের তাহেরকে তার প্রবাসী বন্ধু জাবেদ তার অবস্থা জানিয়ে চিঠি লিখেছেন। জাবেদের কথায় জানা যায়, তাহের তার মতোই প্রবাসে পাড়ি জমাতে ইচ্ছুক।

প্রবাসে সুখী জীবন বেছে নিতে সবকিছুতে ছাড়তে এমনকি মায়ার বন্ধন ছিঁড়তে তাহেরের দ্বিধা নেই। তাহের ইচ্ছা করেই দেশ ছেড়ে প্রবাসে পাড়ি জমাতে চান। মধুসূদন দত্ত খ্যাতির অন্ধ মোহে মাতৃভূমি ত্যাগ করেন। প্রবাস জীবনের বাস্তবতায় কবি তার ভুল বুঝতে পেরে স্বদেশে ফেরার জন্য আকুল হয়ে ওঠেন। স্বদেশের স্মৃতি তার হৃদয়ের বেদনা আর উদ্দীপকের জাবেদের চিঠিতে জানা যায়, তার বন্ধু দেশের মায়া ছিন্ন করে বিদেশে পাড়ি জমাতে চায়। উদ্দীপকে তাহেরের মধ্যে জেগে উঠেছে বিদেশে যাওয়ার বাসনা। আর ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতার কবি মধুসূদন দত্তের মনে স্বদেশে ফেরার আকুলতা। তাই উভয়ের মানসিকতা সম্পূর্ণ বিপরীত।

ভূগোল ও পরিবেশ

দেওয়ান সামছুর রহমান

সিনিয়র শিক্ষক, গোয়ালপাড়া হাইস্কুল, সোনারগাঁ

বাংলাদেশের সম্পদ ও শিল্প

১। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে কোনটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে?

ক) কৃষি খ) পর্যটন গ) খনিজ তেল ঘ) মৎস্য

২। ২০১২-১৩ অর্থবছরের জিডিপিতে সার্বিক কৃষিখাতের অবদান কত শতাংশ?

ক) ১০ খ) ১৩ গ) ১৫ ঘ) ১৭

৩। বাংলাদেশের শ্রমশক্তির মোট কত শতাংশ কৃষিখাতে নিয়োজিত?

ক) ৪২.২৫ খ) ৪৫.৫০ গ) ৪৭.৫০ ঘ) ৪৯.৭৫

৪। বাংলাদেশের খাদ্য-শস্যের মধ্যে কোনটি প্রধান

ক) আলু খ) গম গ) ডাল ঘ) ধান

৫। বাংলাদেশের প্রায় সব জেলায় কোন ফসলটি উৎপাদিত হয়?

ক) ধান খ) ডাল গ) ভুট্টা ঘ) যব

৬। আমন ধান কোন জেলায় সবচেয়ে বেশি উৎপাদিত হয়?

ক) বরিশাল খ) রংপুর গ) ঢাকা ঘ) সিলেট

৭। সিলেট জেলায় কোন ধান ভালো হয়?

ক) আমন খ) আউশ গ) বোরো ঘ) ইরি

৮। বাংলাদেশের কৃষিজ ফসলকে কয় ভাগে ভাগ করা যায়?

ক) ৫ খ) ৪ গ) ৩ ঘ) ২

৯। ধান চাষের জন্য-

i. ১৬-৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা প্রয়োজন ii. ১০০-২০০ সেন্টিমিটার বৃষ্টিপাত প্রয়োজন iii. বেলে মাটি বিশেষ উপযোগী

নিচের কোনটি সঠিক

ক) i, ii খ) i, iii গ) ii, iii ঘ) i, ii, iii

১০। বাংলাদেশের কোন অঞ্চলের জেলাগুলো গম চাষের বিশেষ উপযোগী?

ক) উত্তর খ) দক্ষিণ গ) পূর্ব ঘ) পশ্চিম

১১। বাংলাদেশের প্রধান অর্থকরী ফসল-

i. পাট ii. চা iii. ইক্ষু

নিচের কোনটি সঠিক

ক) i, ii খ) i, iii গ) ii, iii ঘ) i, ii, iii

১২। বাংলাদেশে সাধারণত কয় প্রকারের পাট চাষ হয়?

ক) পাঁচ খ) চার গ) তিন ঘ) দুই

১৩। বাংলাদেশের যেসব জেলায় পাট ভালো জন্মে-

i. রংপুর ii. ফরিদপুর iii. জামালপুর

নিচের কোনটি সঠিক

ক) i, ii খ) i, iii গ) ii, iii ঘ) i, ii, iii

১৪। পাট কোন অঞ্চলের ফসল?

ক) উষ্ম অঞ্চল খ) মরু অঞ্চল গ) আর্দ্র অঞ্চল ঘ) পার্বত্যভূমি অঞ্চল

১৫। বাংলাদেশের বনভূমিকে কয় শ্রেণিতে ভাগ করা হয়েছে?

ক) দুই খ) তিন গ) চার ঘ) পাঁচ

১৬। ২০১২-১৩ সালের হিসাব অনুযায়ী বাংলাদেশে বনভূমির পরিমাণ শতকরা কত?

ক) প্রায় ৯ ভাগ খ) প্রায় ১৬ ভাগ

গ) প্রায় ১৭ ভাগ ঘ) প্রায় ২৫ ভাগ

১৭। কোনো দেশের পারস্পরিক ভারসাম্য ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য মোট ভূমির কতভাগ বন থাকা প্রয়োজন?

ক) ২৮ ভাগ খ) ২৫ ভাগ গ) ২৩ ভাগ ঘ) ২২ ভাগ

১৮। রবিশস্য চাষের উপযোগী সময় কোনটি?

ক) শীতকাল খ) বর্ষাকাল গ) শরৎকাল ঘ) হেমন্তকাল

১৯। পাট চাষের জন্য কত ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা প্রয়োজন?

ক) ১৫-২৫ খ) ২০-৩০

গ) ২০-৩৫ ঘ) ২৫-৩৫

২০। পাট চাষের জন্য বৃষ্টিপাত প্রয়োজন হয় কত সেন্টিমিটার?

ক) ১০০-১২০ খ) ১২৫-২০০ গ) ১৪০-২৪০ ঘ) ১৫০-২৫০

২১। বাংলাদেশের কোন ফসলটির প্রায় বেশিরভাগ বিদেশে রফতানি হয়?

ক) চা খ) পাট গ) ধান ঘ) গম

২২। স্রোতজ বনভূমি কোনটি?

ক) বরেন্দ্র ভূমি খ) সুন্দরবন গ) লালমাই পাহাড়িয়া বন ঘ) পার্বত্য বনভূমি

উত্তর : ১। ক ২। খ ৩। গ ৪। ঘ ৫। ক ৬। খ ৭। গ ৮। ঘ ৯। ক ১০। ক ১১। ঘ ১২। ঘ ১৩। ঘ ১৪। ক ১৫। খ ১৬। গ ১৭। খ ১৮। ক ১৯। গ ২০। ঘ ২১। ক ২২। খ

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×