বিদায় রাজনীতির বরপুত্র

  আলী ফজল মোহাম্মদ কাওছার ০৯ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিদায় রাজনীতির বরপুত্র
প্রয়াত জনপ্রশাসন ও এলজিআরডিমন্ত্রী সাবেক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম

বাংলাদেশের রাজনীতির আকাশে জ্বলজ্বল করা ধ্রুবতারাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, জনপ্রশাসন ও এলজিআরডিমন্ত্রী ছিলেন তিনি।

বাংলাদেশে যে ক’জন রাজনীতিক নিজেকে সব দুর্নীতির উর্ধ্বে রেখে দেশ ও দলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন, তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

জাতীয় চার নেতার অন্যতম বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছেলে সৈয়দ আশরাফ ১৯৫২ সালের ১ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন এবং ২০১৯ সালের ৩ জানুয়ারি ইন্তেকাল করেন থাইল্যান্ডের একটি হাসপাতালে।

তিনি দীর্ঘদিন ফুসফুসের ক্যান্সারে ভুগছিলেন। স্রোতের বিপরীতে হাঁটা নির্লোভ, নিরহংকার, সততার মূর্তপ্রতীক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম রাজনীতির প্রবাদপুরুষ ছিলেন; ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে থেকে যিনি টাকার পাহাড় গড়ে তুলেননি। সবসময় নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে গেছেন। আমাদের দেশে যেখানে অনেক রাজনীতিক হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক হয়ে যান, সেখানে সৈয়দ আশরাফ ছিলেন ব্যতিক্রম।

ওয়ান-ইলেভেনের সময় বাংলাদেশের অনেক রাজনীতিক দুর্নীতির দায়ে জেল খেটেছিলেন, সেসময় তিনি জেলে যাননি বা পালিয়েও যাননি। কারণ তিনি অনেক রাজনীতিকের মতো দুর্নীতি করে কলুষিত হননি।

সৈয়দ আশরাফের স্ত্রীর অসুস্থতার সময় প্রধানমন্ত্রী তাকে বলেছিলেন, স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য সাহায্য নিতে, যা একজন মন্ত্রী হিসেবে তার প্রাপ্য ছিল। কিন্তু তিনি তা নেননি।

ঢাকা শহরে থাকা তার ২ শতাংশ জমি বিক্রি করে চিকিৎসা চালিয়েছেন। একটি জিনিস চিন্তা করলে ভালো লাগে, আমাদের দেশে যেখানে অনেক সাধারণ মানের রাজনীতিক কোটি কোটি টাকার মালিক, সেখানে তিনি স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য নিজের জমি বিক্রি করেছিলেন। একজন মন্ত্রী কিংবা দলের শীর্ষস্থানীয় নেতা হয়েও তিনি লোভী হননি।

১৯৯৬-২০১৮ মেয়াদে তিনি সবক’টি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছিলেন, যা তার জনপ্রিয়তার জন্যই সম্ভব হয়েছিল। বলার অপেক্ষা রাখে না, সৈয়দ আশরাফ বাংলার রাজনীতির আকাশে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র ছিলেন। তিনি ছিলেন রাজনীতির বরপুত্র।

চিরদিনের জন্য চলে গেলেন সেই বরপুত্র। আমরা তার বিদেহি আত্মার মাগফিরাত কামনা করি।

কর্মকর্তা, মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি, সিলেট

ঘটনাপ্রবাহ : সৈয়দ আশরাফ আর নেই

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×