চাকরির নামে প্রতারণা বন্ধ হোক

  রাফি রেদোয়ান ০৯ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চাকরির নামে প্রতারণা বন্ধ হোক

দেশে শিক্ষিত ও অর্ধশিক্ষিত মিলিয়ে বেকারের সংখ্যা প্রায় ৪ কোটি। চাকরির খোঁজে এরা প্রতিনিয়ত দ্বারস্থ হচ্ছে বিভিন্নজনের। তবে সোনার হরিণরূপী চাকরি পেতে গিয়ে অনেক সময় তাদের হতে হয় প্রতারণার শিকার।

সরকারি চাকরি পেতে বিভিন্ন সময় বেকারদের মোটা অঙ্কের টাকা গুনতে হয় বলে প্রায়ই শোনা যায়।

তবে ইদানীং বেসরকারি চাকরি পেতে গিয়েও কিছু কিছু ক্ষেত্রে হয়রানির শিকার হচ্ছে কর্মহীন এ জনগোষ্ঠী। বেকারদের কেন্দ্র করে নগরীতে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন প্রতারক চক্র। এরা বিভিন্নভাবে বেকার জনগোষ্ঠীকে ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করে।

প্রতারকদের ফাঁদে পড়ে অনেক সময় সহজসরল বেকারদের হারাতে হয় গচ্ছিত অর্থ। তবে এক্ষেত্রে শিক্ষিত বেকারদের তুলনায় অর্ধশিক্ষিত বেকারদের প্রতারণার শিকার হতে হয় বেশি।

দেখা যায়, বিভিন্ন জব সাইট থেকে বেকারদের ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে প্রতারক চক্র বেকারদের বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা করে থাকে। অনেক সময় বিভিন্ন জব সাইটে সার্কুলার দিয়েও প্রতারণা করতে দেখা যায় কিছু প্রতারক চক্রকে।

বিদেশে চাকরি কিংবা আর্কষণীয় চাকরির অফার দিয়ে এরা প্রতারণার সূচনা করে। কোনো ধরনের পরীক্ষা কিংবা সাক্ষাৎকার না নিয়েই খুদেবার্তা আর ই-মেইলের মাধ্যমে নির্দিষ্ট বেকারদের জানানো হয় চাকরি পাওয়ার মতো উদ্ভট ঘটনা!

পাশাপাশি চাকরি নিশ্চিত করার জন্য বলা হয়, কয়েক ঘণ্টার মধ্যে মেডিকেল চেকআপ করতে। চেকআপের জন্য কয়েক হাজার টাকা নিয়ে নির্দিষ্ট মেডিকেল ক্লিনিক কিংবা হাসপাতালে গিয়ে হাজিরা দেয়ার নির্দেশনাও দেয় প্রতারক গোষ্ঠী। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই মেডিকেল চেকআপের নাম করে ওই টাকা নিয়েই উধাও হয়ে যায় প্রতারক চক্র।

এছাড়া কিছু চাকরির ক্ষেত্রে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার নাম করে বিভিন্ন প্রার্থীর কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগও শোনা যায়। এসব প্রতারণা ছাড়াও ভুয়া জব কনসালটেন্সি খুলে চাকরি দেয়ার নাম করে টাকা নেয়া কিংবা চাকরির সাক্ষাৎকারের ব্যবস্থা করে দেয়ার নাম করে টাকা হাতিয়ে নেয়ার ঘটনাও এখন হরহামেশাই ঘটছে।

ফলে সহজসরল তরুণ বেকাররা চাকরি না পেয়ে উল্টো বিপদে পড়ছে। দুঃখজনক হল, প্রকাশ্যে এসব অপকর্ম করেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই প্রতারক চক্র ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে আরও জোরাল ও কঠোর ভূমিকা পালন করা দরকার।

প্রকৌশলী, ঢাকা

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×