গণমানুষের হৃদয়ে বেতার

  মো. আজিনুর রহমান লিমন ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশ বেতার
বাংলাদেশ বেতার

বেতার বিশ্বের ঐতিহ্যবাহী একটি গণমাধ্যম। এক সময় বেতার ছিল গণমানুষের অন্যতম বিনোদন সঙ্গী। শহর নগর ছড়িয়ে গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোয়ও বেতার পৌঁছে গিয়েছিল।

বেতার মুক্তিযুদ্ধের সময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। দুর্যোগকালে বেতার মানুষের প্রধান হাতিয়ার। রেডিও পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশ বেতার নামে স্বীকৃতি পাওয়া অবধি বাংলাদেশ বেতার জনগণের প্রায় সারাক্ষণের সঙ্গী হয়ে থেকেছে।

যে উদ্দেশ্য নিয়ে বেতার যাত্রা শুরু করেছিল, বলা চলে সেই উদ্দেশ্য পূরণ হয়েছে। বেতার দেশ, মাটি ও মানুষের কথা বলে। বেতার জনস্বাস্থ্য সম্পর্কে কথা বলে। বেতার কৃষি উন্নয়নের কথা বলে। জঙ্গি, সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে বেতারের প্রচারণা অনেক এগিয়ে। বাল্যবিয়ে, যৌতুক, নারী ও শিশু অধিকারের প্রচারণায় বেতারের ভূমিকা অপরিসীম। তথ্য অধিকার বিষয়ে জানারও অন্যতম মাধ্যম এই বেতার।

কী নেই বেতারে? বিনোদন, ম্যাগাজিন, আড্ডা, কৌতুক সবই আছে। সংসদের অধিবেশন, খেলাধুলার সরাসরি সম্প্রচার, প্রতি ঘণ্টার আপডেট সংবাদ- সবই আছে এই বেতারে। প্রযুক্তির উন্নয়নে বিশ্ব যখন লাফিয়ে লাফিয়ে উপরে উঠছে, বেতার কেন্দ্রগুলো তখন প্রযুক্তির হাত ধরে উন্নয়নের শীর্ষস্থানে জায়গা নিয়েছে; যার বাস্তব প্রমাণ বাংলাদেশের এফএম চ্যানেলগুলো।

১৩ ফেব্রুয়ারি ছিল বিশ্ব বেতার দিবস। এর প্রতিপাদ্য ছিল- সংলাপ, সহনশীলতা ও শান্তি। বেতারের জন্ম মানুষের কল্যাণের জন্য। শান্তি প্রতিষ্ঠা যখন বিশ্বের মূল উদ্দেশ্য, বেতারও তখন শান্তির জন্যই এগিয়ে যাচ্ছে। শান্তির জন্য বেতারের এই এগিয়ে যাওয়াকে অভিনন্দন জানাই। জনকল্যাণে বেতার আপন মহিমায় জ্বলে উঠুক, এ প্রত্যাশা করছি।

ডিমলা, নীলফামারী

[email protected]

আরও পড়ুন
--
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×