মূল্যবোধের দৈন্য বনাম উন্নয়নের সূচক

  ফারহানা বাশার স্বর্ণা ১৫ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মূল্যবোধের দৈন্য বনাম উন্নয়নের সূচক

চলছে রমজান মাস। মুসলিমদের জন্য রমজান সংযম ও আত্মশুদ্ধির মাস। অথচ ৮৮ ভাগ মুসলমানের দেশে রমজানেও ঘটছে ধর্ষণ ও খুনের মতো ঘটনা।

সারা বছর খবরের কাগজ খুলে শ্লীলতাহানি, ধর্ষণ, খুন, দুর্নীতি, অনিয়মের খবর দেখা প্রাত্যহিক ঘটনা হয়ে উঠেছে। বাদ গেল না সংযমের মাসও। যেন জাহিলিয়াত যুগকে হার মানানোর মতো বর্বর হয়ে উঠছে আমাদের সমাজ।

সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয়, নৈতিক শিক্ষা, ধর্মীয় সুশিক্ষার অভাব ও সুস্থ সংস্কৃতির চর্চা কম হওয়ার ফলে সমাজকে গ্রাস করে খুন, ধর্ষণ, রাহাজানি, মাদকাসক্তি, সীমাহীন দুর্নীতি, পর্নোগ্রাফি আসক্তি, অপসংস্কৃতির আগ্রাসনের মতো ভয়াবহ সব ব্যাধি।

এমন অস্থির সময়ে ধর্মীয় সুশিক্ষা, সুস্থ সাংস্কৃতিক চর্চা, সামাজিক মূল্যবোধের চর্চাই পারে স্বস্তির পরশ বোলাতে। এগুলো মানুষের মনকে সুন্দর করে, হিংসাবিদ্বেষ দূর করে।

কর্তব্যপরায়ণতা, নিষ্ঠা, ধৈর্য, উদারতা, শিষ্টাচার, সৌজন্যবোধ, নিয়মানুবর্তিতা, দেশপ্রেম তৈরি করে। আর এ গুণগুলোই মানবিক ও নৈতিক মানস গঠনে ভূমিকা রাখে। প্রজন্ম পরম্পরায় সমাজকে অবক্ষয়ের হাত থেকে বাঁচায়।

পরিতাপের বিষয়, যে সরকার যখন ক্ষমতায় থেকেছে, তারাই উন্নয়নের সূচক হিসেবে রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, বড় বড় ব্রিজ-কালভার্ট, চকচকে দালানকোঠা ইত্যাদি দেখিয়েছে। কিন্তু সাংস্কৃতিক দৈন্যদশা, নৈতিক অবক্ষয়, ধর্মীয় সুশিক্ষার অভাবের ওপর ইমারত নির্মাণ করে সমাজকে বাঁচানো সম্ভব নয়।

তাই সুস্থ সাংস্কৃতিক চর্চা ও সঠিক ধর্মীয় শিক্ষার মাধ্যমে নৈতিকতার জাগরণ ও সত্য সুন্দর আদর্শ ধারণ করে সমাজকে মানবতাবাদী হয়ে উঠতে সহায়তা করার জন্য নীতিনির্ধারকদের এ বিষয়ে আরও মনোযোগী হওয়া দরকার।

রাষ্ট্রীয় ও সামাজিকভাবে তৈরি করা প্রয়োজন সুস্থ সাংস্কৃতিক চর্চার আবহ, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান এবং স্কুল-কলেজে মানবিক ও নৈতিক শিক্ষাসহ মূল্যবোধ অর্জনে উদ্বুদ্ধ করা।

পারিবারিক শিক্ষা এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি কার্যকর। সুস্থ ও মানবিক সমাজ গড়ে তুলতে ধর্মগুরু, শিক্ষক, শিল্পী, সচেতন নাগরিক, সরকার সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তাহলেই আমরা গড়তে পারব স্বপ্নের সোনার বাংলা।

শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

[email protected]

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×