বন্ধ হোক শিশুশ্রম

  আইশা আক্তার নিশু ১৫ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বন্ধ হোক শিশুশ্রম

উৎপাদনের একমাত্র জীবন্ত উপকরণ হচ্ছে শ্রমিকের শ্রম। শ্রমকে পুঁজি করে ব্যবসা শুরু হয়েছে সভ্যতার শুরু থেকেই। বর্তমান শ্রমকে কেন্দ্র করে এ ব্যবসাকে আরও ঘৃণিত এবং কলঙ্কিত করেছে শিশুশ্রম।

শিশুশ্রম বলতে বোঝায় কোনো শিশুকে জোরপূর্বক কাজে নিযুক্ত হতে বাধ্য করা, যা তাদের মৌলিক চাহিদা শিক্ষা থেকে বঞ্চিত করছে। এ ছাড়াও শারীরিক, মানসিক ও সামাজিকভাবে নির্যাতন করে যাচ্ছে।

শিশুশ্রম এক ধরনের শোষণের নাম। শিশুদের ব্যবহার করা হচ্ছে বিভিন্ন অনৈতিক এবং বিপজ্জনক কাজে; যেমন- মাদক পাচার, যুদ্ধক্ষেত্রে সমরাস্ত্র বহন ও বিভিন্ন সমাজবহির্ভূত কাজে। বাংলাদেশে শিশুশ্রমের ভয়াবহতা বিরাজ করছে।

বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬ অনুযায়ী ১৮ বছরের নিচে ব্যক্তিকে শিশু হিসেবে গণ্য করা হয়েছে এবং সরকার এর বিরুদ্ধে আইন প্রণয়ন করলেও তার বাস্তবায়ন নেই বললেই চলে। শিশুরা সাধারণত শ্রম দিতে আসছে দারিদ্র্যের কশাঘাতে, খাদ্যের অভাবে বা জোর-জবরদস্তির মুখে বাধ্য হয়ে।

পুঁজিপতিরা শিশুদের দিয়ে অমানবিক কাজ করাচ্ছে মূলত কম পুঁজিতে অধিক শ্রম এবং মুনাফা লাভ ও ঝুঁকিপূর্ণ কাজে ব্যবহার করতে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা যায়, কোনো মজুরি ছাড়াই পেটেভাতে অথবা নামমাত্র মজুরি নিয়ে তাদের সন্তুষ্ট থাকতে হচ্ছে।

অনেক ক্ষেত্রে শারীরিক, মানসিক নির্যাতন ছাড়াও তাদের মেরে ফেলা হচ্ছে। আমাদের সমাজে এমন কোনো ক্ষেত্র নেই, যেখানে শিশুদের দিয়ে কাজ করান হচ্ছে না।

দুঃখজনক হলেও সত্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতেও অগণিত শিশু কাজ করছে। দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠে শিশুরা বঞ্চিত হচ্ছে তাদের মৌলিক অধিকার ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা থেকে।

অথচ রাষ্ট্র, সমাজসহ আমাদের সবার দায়িত্ব হল, শিশু অধিকারের সুরক্ষা। বাংলাদেশের সংবিধানে শিশুর মৌলিক অধিকারের স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে এবং প্রাথমিক শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। কিন্তু এ আইন যেন সবার জন্য নয়।

শিশুশ্রম বন্ধ করতে হলে সরকারকে আইন প্রয়োগে আরও কঠোর হতে হবে; প্রয়োজনে নতুন আইন প্রণয়ন করতে হবে- যেখানে প্রতিটি শিশুর অধিকার সুরক্ষার ব্যবস্থা থাকবে। পাশপাশি গুরুত্বপূর্ণ হল, জনগণের সচেতনতা। আমরা সচেতন হলে তবেই এ বিশ্ব পরিণত হবে শিশুদের উপযোগী বাসস্থানে।

শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×