দুবলহাটি রাজবাড়ি বাঁচান

  তুফান মাজহার খান ১০ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দুবলহাটি রাজবাড়ি
দুবলহাটি রাজবাড়ি

প্রায় ২০০ বছর আগে রাজা রঘুনাথ মতান্তরে জগৎরাম কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত দুবলহাটি রাজবাড়িটির এখন বেহাল অবস্থা। নওগাঁ জেলা থেকে মাত্র ৬ কিলোমিটার দূরে দুবলহাটিতে এর অবস্থান। ৫ একর এলাকাজুড়ে রয়েছে বিশাল রাজপ্রাসাদ।

এছাড়া দীঘি, মন্দির, স্কুল, দাতব্য চিকিৎসালয়সহ রয়েছে অনেক ভবনের ধ্বংসাবশেষ। রাজপ্রাসাদের সামনে রোমান স্টাইলের বড় বড় পিলারগুলো রাজাদের রুচির পরিচয় বহন করে।

দুবলহাটি রাজপ্রাসাদে সাড়ে তিনশ’ ঘর ছিল, যা কালের বিবর্তনে আজ লুপ্ত হওয়ার দ্বারপ্রান্তে। এ রাজবাড়ি থেকেই তৎকালীন সিলেট, দিনাজপুর, পাবনা, বগুড়া, রংপুর ও ভারতের কিছু অংশের জমিদারি পরিচালিত হতো।

অথচ বর্তমানে এ ঐতিহাসিক স্থানের এমনই করুণ অবস্থা- চারদিকে নলখাগড়া, জঙ্গল, লতাপাতা রাজবাড়িটিকে ঘিরে ধরেছে। খসে যাচ্ছে পলেস্তারা, দেয়াল ও পিলার। পুরনো ইতিহাস ও ঐতিহ্যের ধারক এ স্থাপনাটিকে টিকিয়ে রাখা উচিত। এটি দেখতে প্রতিনিয়ত দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে লোকজন আসে। কিন্তু রাজবাড়ির করুণ অবস্থা দেখে দীর্ঘশ্বাস ফেলে বাড়ি ফিরতে হয় দর্শনার্থীদের।

১৮৯২ সালের দিকে জমিদারি প্রথা বিলুপ্তির পর রাজা হরনাথ রায় সপরিবারে ভারতে চলে যান। পরবর্তীকালে এটি সরকারি সম্পদ হিসেবে প্রত্নতত্ত্ব অধিদফতরের অধীনে চলে আসে।

কিন্তু এর সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ না থাকায় এটি প্রায় বিলুপ্তির পথে। তাই সরকারের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের প্রতি অনুরোধ, পুনঃসংস্কার করে এ স্থাপনাটিকে একটি ঐতিহাসিক স্থান হিসেবে ধরে রাখার পাশাপাশি একে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলুন।

ঢাকা

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×