দখলদারদের কবল থেকে ডুপিখালীকে উদ্ধার করুন

  রাসেল হাসান ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ। নদ-নদীগুলো আমাদের প্রিয় এ দেশকে ঘিরে রেখেছে পরম মমতায়। আগলে রেখেছে মায়ের মতো। নদ-নদীগুলো দেশের অমূল্য সম্পদ। অর্থনীতিতেও ব্যাপক অবদান রাখছে নদ-নদীগুলো। নদ-নদীগুলো না থাকলে বর্ষাকালে আরও বেশি বন্যার আশঙ্কা থাকত। এর ফলে মানুষের জীবন ও সম্পদের আরও ব্যাপক ক্ষতি হতো, পশুপাখির জীবন হুমকির মুখে পড়ত; বাস্তুতন্ত্র ভারসাম্য হারাত। অতএব, নদী ছাড়া প্রাণী জগতের অস্তিত্ব কল্পনাও করা যায় না।

বর্তমানে দেশের অনেক নদ-নদী দখলে চলে যাচ্ছে এবং দখলদারের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এসব দখলদার কেড়ে নিচ্ছে নদ-নদীর প্রাণ। এর ফলে নদ-নদীগুলো হারাচ্ছে তাদের রূপ-বৈচিত্র্য, হারাচ্ছে স্বাভাবিক গতি; হারাচ্ছে নাব্যতা। এরকমই একটি নদী হচ্ছে ডুপিখালী। নেত্রকোনা শহরের রেলক্রসিং থেকে ৭ কিলোমিটার উত্তরে ফচিকা-নগুয়া-কুশলগাঁও-নওয়াপাড়া গ্রামের মাঝখান দিয়ে বয়ে গেছে নদীটি। এলাকার প্রভাবশালীরা এ নদীর মাঝখানে স্থায়ীভাবে বাঁশের তৈরি বাঁধ এবং বাঁধের পাশে গর্ত করে বড় বড় জলাধার নির্মাণ করে মাছচাষ করছে। এক সময় ডুপিখালী নদীতে ছিল প্রবল স্রোত। কিন্তু আজ আর তার কিছুই অবশিষ্ট নেই। এই শরতে যে নদীটির দুই কূলে সাদা সাদা কাশফুল ফুটে থাকার কথা; আজ সেখানে দখলদারদের ব্যক্তিগত পুকুর, দীঘি কিংবা হ্যাচারি। দখলদারদের কবল থেকে ডুপিখালীকে দ্রুত উদ্ধার করা দরকার। তা না হলে আমাদের প্রিয় এই নদীটি অচিরেই নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে।

শিক্ষার্থী, কেএনএফ উচ্চবিদ্যালয়, হাটখোলা বাজার, নেত্রকোনা

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×