যেখানে আছেন সেখানেই থাকুন ভালো থাকুন...

  মো. সাঈদী আলম ০১ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নিত্যদিনের কোলাহল, হৈ-হুল্লোড়, হইচই নজরে পড়ে না। মনে হচ্ছে, এ জনপদে বহু মানুষের বসবাস ছিল; হঠাৎ কোনো ঝড়ে তারা হারিয়ে গেছে। কেবল রয়ে গেছে তাদের গড়া অট্টালিকা, দোকান, শপিংমলগুলো। মাঝে মধ্যে মনে হয়, এ যেন এক ভুতুড়ে নগরী।

নিমিষে হারিয়ে গেছে সব মানুষ অজানা এক পথে। সবাই আপন প্রাণ বাঁচাতে ব্যস্ত। জানা নেই- কে কখন, কোন সময় আক্রান্ত হবে। আতঙ্ক বিরাজ করছে জনপদে, লোকালয়গুলোয়। এক সময় মানুষ আপনজনদের জড়িয়ে ধরত, করত করমর্দন।

এখন বলে, দূরত্ব বজায় রেখে চলো। আতিথেয়তা নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে- কোথাও যাবেনও না; কোথাও আসবেনও না। যেখানে আছেন, সেখানেই থাকুন, ভালো থাকুন; যা আছে তা নিয়ে থাকুন, প্রয়োজনে আলুসিদ্ধ খেয়ে দিনাতিপাত করুন।

এভাবে চলবে কতদিন, কী হবে রোজকার খেটে খাওয়া মানুষের! অর্থের জোগান কে দেবে- এসব প্রশ্নের সমাধান এখনও মেলেনি। এতদিন এতটুকু নিঃশ্বাস ফেলার সময় পায়নি যারা; তারা আজ বেকার-অলস সময় পার করছে। বাচ্চারা স্কুল, মাদ্রাসা থেকে ছুটি পেয়ে বাড়িতে একেকটা জ্বালাতন শুরু করেছে। মসজিদে দেখা হলে মুসল্লিরা পরস্পর পরস্পরকে বলছে খোদার দুয়ারে দোয়া চাইতে; যেন মহাবিপদ থেকে সবাই রক্ষা পায়।

রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যস্ত তাদের কর্মযজ্ঞ নিয়ে, সামরিক বাহিনী টহল দিচ্ছে। দেখে মনে হতে পারে- অজানা-অচেনা এক শত্রুর বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে স্বাধীনতার এ মাসে।

পৃথিবীর পরাশক্তিগুলো একে অন্যকে নিমিষেই উড়িয়ে দেবে বলে হুমকি দেয়। কিন্তু অতি ক্ষুদ্র এই জীবাণুকে ধ্বংস করার শক্তি বা সাহস তাদের আদৌ হয়নি। আজকের বিজ্ঞান বিশ্ব ধ্বংস করার প্রযুক্তি আবিষ্কার করে ফেলেছে; অথচ অণুবীক্ষণ যন্ত্র দিয়েও ভালো করে দেখা যায় না, এ রকম একটা জীবাণু ধ্বংস করতে অক্ষম- ভাবা যায়!

শিক্ষক ও প্রাবন্ধিক

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত