চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা
jugantor
চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা

  সাইফুল ইসলাম ইহান  

২১ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

এ বছর জানুয়ারিতে টিউশন না থাকায় অভাব যখন ছুঁইছুঁই, তখন রাস্তার পাশে বিভিন্ন দেয়ালে দেখতে পেলাম ‘পার্টটাইম জব’-এর অনেকগুলো বিজ্ঞাপন।

সেখানে ফোন দিয়ে তাদের কথামতো মোবাইল থেকে মেসেজ পাঠিয়ে দিলাম শিক্ষাগত বিভিন্ন যোগ্যতা ও বর্তমান পেশা উল্লেখ করে। কিছুক্ষণ পর তারা ফোন দিয়ে বলল, আগামীকাল কাকরাইল মোড়ে এসে এ নম্বরে ফোন দিতে। সপ্তাহে তিন দিন তিন ঘণ্টা করে কাজ, বেতন ১৪ হাজার ৫০০ টাকা। কাজের ধরন জানতে চাওয়ায় বলা হল: অফিসের বিভিন্ন কাগজপত্র দেখা।

পরদিন সিভি নিয়ে চলে গেলাম কাকরাইল মোড়ে। নির্ধারিত নম্বরে ফোন দেয়ার পর কেউ একজন বলল, আপনি কে, কোথা থেকে ফোন করছেন ইত্যাদি। এরপর তাদের দেয়া ‘পার্টটাইম জবের’ বিজ্ঞাপনের কথা উল্লেখ করলে বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করল সে। এক পর্যায়ে ওই ব্যক্তি অকথ্য ভাষায় গালিগালাজও শুরু করে।

আমার মতো এ রকম হাজারো ছাত্র আছে, যারা ঢাকায় এসে পড়াশোনার পাশাপাশি নিজের খরচ চালানোর জন্য টিউশন বা বিভিন্ন পার্টটাইম জব খুঁজে থাকে। দুঃখজনক হল, তাদের এ অসহায়ত্বকে পুঁজি করে এক শ্রেণির টাউট-বাটপার প্রতিনিয়ত প্রতারণা করছে। এভাবে প্রতারক-ধোঁকাবাজরা অনেককে প্রতারিত করে অর্থ আত্মসাৎসহ নানাভাবে হয়রানি করছে। প্রশাসনের কাছে অনুরোধ-প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিন।

শিক্ষার্থী, ঢাকা

চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা

 সাইফুল ইসলাম ইহান 
২১ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

এ বছর জানুয়ারিতে টিউশন না থাকায় অভাব যখন ছুঁইছুঁই, তখন রাস্তার পাশে বিভিন্ন দেয়ালে দেখতে পেলাম ‘পার্টটাইম জব’-এর অনেকগুলো বিজ্ঞাপন।

সেখানে ফোন দিয়ে তাদের কথামতো মোবাইল থেকে মেসেজ পাঠিয়ে দিলাম শিক্ষাগত বিভিন্ন যোগ্যতা ও বর্তমান পেশা উল্লেখ করে। কিছুক্ষণ পর তারা ফোন দিয়ে বলল, আগামীকাল কাকরাইল মোড়ে এসে এ নম্বরে ফোন দিতে। সপ্তাহে তিন দিন তিন ঘণ্টা করে কাজ, বেতন ১৪ হাজার ৫০০ টাকা। কাজের ধরন জানতে চাওয়ায় বলা হল: অফিসের বিভিন্ন কাগজপত্র দেখা।

পরদিন সিভি নিয়ে চলে গেলাম কাকরাইল মোড়ে। নির্ধারিত নম্বরে ফোন দেয়ার পর কেউ একজন বলল, আপনি কে, কোথা থেকে ফোন করছেন ইত্যাদি। এরপর তাদের দেয়া ‘পার্টটাইম জবের’ বিজ্ঞাপনের কথা উল্লেখ করলে বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করল সে। এক পর্যায়ে ওই ব্যক্তি অকথ্য ভাষায় গালিগালাজও শুরু করে।

আমার মতো এ রকম হাজারো ছাত্র আছে, যারা ঢাকায় এসে পড়াশোনার পাশাপাশি নিজের খরচ চালানোর জন্য টিউশন বা বিভিন্ন পার্টটাইম জব খুঁজে থাকে। দুঃখজনক হল, তাদের এ অসহায়ত্বকে পুঁজি করে এক শ্রেণির টাউট-বাটপার প্রতিনিয়ত প্রতারণা করছে। এভাবে প্রতারক-ধোঁকাবাজরা অনেককে প্রতারিত করে অর্থ আত্মসাৎসহ নানাভাবে হয়রানি করছে। প্রশাসনের কাছে অনুরোধ-প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিন।

শিক্ষার্থী, ঢাকা