সড়ক যখন মৃত্যুফাঁদ
jugantor
সড়ক যখন মৃত্যুফাঁদ

  রাসেল হাসান  

২১ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নেত্রকোনার সাতপাই পৌরসভা এলাকার চাঁনখার মোড় থেকে হাটখলা বাজার অবধি ৬ কিলোমিটার সড়ক। এ পাকা সড়কটি ভেঙে বর্তমানে মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে। সড়কজুড়ে অসংখ্য বিশালাকার গর্ত। কাদাপানিতে একাকার হওয়ায় পাকা সড়কের কোনো চিহ্নই অবশিষ্ট নেই। ফলে দুর্ঘটনা এখানে নিত্যদিনের ঘটনা। তবে বেশি দুর্ভোগে পড়েন অসুস্থ ও গর্ভবতী নারীরা। ১৮-২০ মিনিটের সড়কটি পাড়ি দিতে এখন কমপক্ষে এক ঘণ্টা লাগে। এর ফলে পরিবহনের ভাড়াও বেড়েছে।

প্রতিদিন সড়কটি দিয়ে অর্ধলাখ মানুষের যাতায়াত। সড়কটি মূলত শহরের সঙ্গে ইউনিয়নের সংযোগ স্থাপন করলেও পূর্বধলা, দুর্গাপুর ও কলমাকান্দা থানার বাইপাস হিসেবে ব্যবহৃত হয়। সড়কের ছবি তোলার সময় কয়েকজন এগিয়ে আসেন। তারা জানতে চান, কেন ছবি তুলছি। কারণ বলার পর নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা অনেক কথাই বলেন। নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী বলল, সড়কটি দিয়ে চলাচল করতে খুব কষ্ট হয়। প্রতিদিনই একাধিক দুর্ঘটনা ঘটে। গতকালও একটি হেন্ট্রোলির চাকা ভাওয়াল পাড় এলাকায় আটকে যায়। ৮-১০ জন মিলে খুব কষ্ট করে গাড়িটি তোলেন। একজন কৃষক হাসতে হাসতে বললেন: ‘এই দেহেন গর্তের মইদ্যে কত পানি। এইহানে মাছ চাষ করবাম। বালা ওইত না?’

কলেজপড়ুয়া এক যুবক জানালেন, এ সড়ক দিয়ে সংসদ সদস্য, মন্ত্রী ও সরকারি চাকরিজীবী থেকে শুরু করে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ চলাচল করেন। কিন্তু তারা (মন্ত্রীর প্রতি ইঙ্গিত করে) কিছু করছেন না। রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নে গ্রামের প্রতিটি সড়ক পাকা ও শতভাগ বিদ্যুতায়নের লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার। জনস্বার্থে নেত্রকোনার সাতপাই পৌরসভা এলাকার চাঁনখার মোড় থেকে হাটখলা বাজার অবধি ৬ কিলোমিটার সড়ক দ্রুত সংস্কার করা প্রয়োজন।

নগুয়া কুশলগাঁও, হাটখলা বাজার, নেত্রকোনা

সড়ক যখন মৃত্যুফাঁদ

 রাসেল হাসান 
২১ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নেত্রকোনার সাতপাই পৌরসভা এলাকার চাঁনখার মোড় থেকে হাটখলা বাজার অবধি ৬ কিলোমিটার সড়ক। এ পাকা সড়কটি ভেঙে বর্তমানে মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে। সড়কজুড়ে অসংখ্য বিশালাকার গর্ত। কাদাপানিতে একাকার হওয়ায় পাকা সড়কের কোনো চিহ্নই অবশিষ্ট নেই। ফলে দুর্ঘটনা এখানে নিত্যদিনের ঘটনা। তবে বেশি দুর্ভোগে পড়েন অসুস্থ ও গর্ভবতী নারীরা। ১৮-২০ মিনিটের সড়কটি পাড়ি দিতে এখন কমপক্ষে এক ঘণ্টা লাগে। এর ফলে পরিবহনের ভাড়াও বেড়েছে।

প্রতিদিন সড়কটি দিয়ে অর্ধলাখ মানুষের যাতায়াত। সড়কটি মূলত শহরের সঙ্গে ইউনিয়নের সংযোগ স্থাপন করলেও পূর্বধলা, দুর্গাপুর ও কলমাকান্দা থানার বাইপাস হিসেবে ব্যবহৃত হয়। সড়কের ছবি তোলার সময় কয়েকজন এগিয়ে আসেন। তারা জানতে চান, কেন ছবি তুলছি। কারণ বলার পর নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা অনেক কথাই বলেন। নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী বলল, সড়কটি দিয়ে চলাচল করতে খুব কষ্ট হয়। প্রতিদিনই একাধিক দুর্ঘটনা ঘটে। গতকালও একটি হেন্ট্রোলির চাকা ভাওয়াল পাড় এলাকায় আটকে যায়। ৮-১০ জন মিলে খুব কষ্ট করে গাড়িটি তোলেন। একজন কৃষক হাসতে হাসতে বললেন: ‘এই দেহেন গর্তের মইদ্যে কত পানি। এইহানে মাছ চাষ করবাম। বালা ওইত না?’

কলেজপড়ুয়া এক যুবক জানালেন, এ সড়ক দিয়ে সংসদ সদস্য, মন্ত্রী ও সরকারি চাকরিজীবী থেকে শুরু করে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ চলাচল করেন। কিন্তু তারা (মন্ত্রীর প্রতি ইঙ্গিত করে) কিছু করছেন না। রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নে গ্রামের প্রতিটি সড়ক পাকা ও শতভাগ বিদ্যুতায়নের লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার। জনস্বার্থে নেত্রকোনার সাতপাই পৌরসভা এলাকার চাঁনখার মোড় থেকে হাটখলা বাজার অবধি ৬ কিলোমিটার সড়ক দ্রুত সংস্কার করা প্রয়োজন।

নগুয়া কুশলগাঁও, হাটখলা বাজার, নেত্রকোনা