একজন মুক্তিযোদ্ধার চোখে কোটা সংস্কার

  সিরাজুল ইসলাম খন্দকার ২৩ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

১৯৭১ যখন এলো, তখন আমি কিশোর। সেই কিশোর বয়সে স্বাধীনতার জন্য অস্ত্র হাতে হায়েনাদের বিরুদ্ধে লড়েছিলাম। সে সময় ভারতে আশ্রয় নিয়েছিল প্রায় এক কোটি মানুষ। আর মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়েছিল প্রায় এক লাখ লোক। শতকরা হার ১%। প্রত্যক্ষভাবে লড়াইয়ে অংশগ্রহণ না করলেও সহায়ক শক্তি হিসেবে পুরো জাতি মুক্তিযুদ্ধকে সমর্থন ও সহযোগিতা করেছে। তারই ফলে স্বল্পসময়ে দেশ স্বাধীন হয়েছে।

বিলম্ব হলেও বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য কতিপয় জনকল্যাণমূলক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। এর মধ্যে কোটা প্রথা অন্যতম। আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জন্য ৫% কোটা সমর্থন করি। হয়তো দেখা যাবে, ২/৪ বছরের মধ্যে কোটার জন্য আর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান পাওয়া যাবে না। তখন সেই কোটা নাতি-নাতিনদের জন্য রাখা যেতে পারে। আমলাতান্ত্রিক প্রশাসন মুক্তিযোদ্ধাদের হেয় করার জন্যই ৩০% কোটা প্রবর্তন করেছিল, যা তরুণ প্রজন্মকে মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের মুখোমুখি দাঁড় করিয়েছে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা, কুমিল্লা

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter