ঈদযাত্রায় সড়ক যেন মৃত্যুফাঁদ না হয়

  মো. আল-আমিন নাহিদ ১৩ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঈদে ঘরমুখো মানুষের ঢল
ঈদে ঘরমুখো মানুষের ঢল। ছবি: যুগান্তর

প্রতিবছর ঈদে ঘরমুখো মানুষের ঢল নামে সড়কে। একসঙ্গে বিপুলসংখ্যক মানুষ বাড়ি ফেরায় যানবাহন সংকটে পড়তে হয় তাদের। তাই নাড়ির টানে ঘরমুখো মানুষগুলো বাড়ি ফিরতে চায় যে কোনোভাবে। কখনও ট্রেনের ছাদে, কখনও বা বাসের ছাদে কিংবা ট্রাকে করে তারা পথ পাড়ি দেয়ার চেষ্টা চালায়।

পরিবহন মালিকরা অতিরিক্ত মুনাফার লোভে ফিটনেসবিহীন গাড়ি দিয়ে যাত্রী পরিবহন করে থাকে। এর ফলে দুর্ঘটনা ঘটে এবং প্রাণ হারায় বিপুলসংখ্যক মানুষ। একজন মানুষের জীবনের সঙ্গে একটি পরিবার জড়িত। তাই একজন মানুষের মৃত্যুর ফলে অনিশ্চিত হয়ে পড়ে একটি পরিবারের ভবিষ্যৎ। তাই সড়ক দুর্ঘটনায় কারও মৃত্যু কোনোভাবেই কাম্য নয়। দুর্ঘটনা এড়াতে মালিক, শ্রমিক, যাত্রী ও সরকার সবার সজাগ থাকা উচিত ও নিচের বিষয়গুলো মেনে চলা দরকার-

১. ফিটনেসবিহীন ও ত্রুটিযুক্ত গাড়ি রাস্তায় চালানো বন্ধ করতে হবে। কারণ ত্রুটিযুক্ত গাড়ি রাস্তায় ব্রেক ফেল করে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। তাই এ বিষয়ে যাত্রীসহ সবার সতর্ক থাকা উচিত।

২. ওভারটেকিং বন্ধ করা উচিত। বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ ওভারটেকিং। রাস্তায় চলাচলের সময় অনেকসময় ধীরগতির গাড়িগুলোকে ওভারটেকিং করার প্রয়োজন হতে পারে। তাই কোনো গাড়ি ওভারটেক করার প্রয়োজন হলে অবশ্যই সিগন্যাল দিতে হবে এবং সামনের দিক হতে কোনো যানবাহন আসছে কিনা তা নিশ্চিত করতে হবে এবং এরপর নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে ওভারটেকিং করতে হবে।

৩. অসুস্থ অবস্থায় গাড়ি চালানো ঠিক নয়। ঈদের সময় যাত্রী বেশি থাকার কারণে বাস চালকদের অধিক ট্রিপ দিতে হয়। ফলে তারা ক্রমাগত গাড়ি চালায় এবং বিশ্রাম নেয়ার সুযোগ পায় না। তারা ক্লান্ত অবস্থায় গাড়ি চালিয়ে থাকে এবং একসময় নিজেদের উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়।

৪. অদক্ষ ড্রাইভার দিয়ে গাড়ি চালানো উচিত নয়। ঈদের সময় অধিক যাত্রী পরিবহনে অধিক ড্রাইভারের প্রয়োজন পড়ে, তাই গাড়ির মালিকরা হেলপার ও অদক্ষ ড্রাইভার দিয়ে গাড়ি চালিয়ে থাকেন। এসব ড্রাইভারের মহাসড়কে গাড়ি চালানোর অভিজ্ঞতা না থাকায় এবং নিয়মনীতি জানা না থাকার কারণে দুর্ঘটনা ঘটে।

৫. ত্রুটিপূর্ণ সড়কও বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ। সড়কের ত্রুটিপূর্ণ বাঁকের কারণে ড্রাইভার সামনের দিক হতে আসা কোনো গাড়ি দেখতে না পাওয়ায় দুর্ঘটনা ঘটে। তাই এসব বাঁকে সতর্কতার সঙ্গে গাড়ি চালানো উচিত। এছাড়াও রাস্তার পাশে হাটবাজার, অনুমোদনহীন স্প্রিডব্রেকার সড়ক দুর্ঘটনার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এগুলো অপসারণ জরুরি।

৬. ড্রাইভারদের মাদক সেবন বন্ধ করতে হবে। মাদক সেবন করে গাড়ি চালানোর ফলে প্রায়ই তারা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুর্ঘটনা ঘটায়।

৭. গাড়ি চালানোর সময় চালকদের অবশ্যই মোবাইল ফোনে কথা বলা থেকে বিরত থাকতে হবে। ফোনে কথা বলার কারণে ড্রাইভারদের মনোযোগ বিঘ্নিত হয় এবং দুর্ঘটনা ঘটে।

নির্বাহী (কাস্টমার কেয়ার), রানার অটোমোবাইলস লিমিটেড

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.