ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক যেন এক আতঙ্কের নাম
jugantor
ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক যেন এক আতঙ্কের নাম

  শেখ আব্দুল্লাহ  

০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পদ্মা সেতু হওয়ায় সরাসরি ঢাকা থেকে দক্ষিণবঙ্গে গাড়ি যাতায়াতের সুব্যবস্থা হয়েছে এবং একইসঙ্গে মহাসড়কগুলোতে বেড়েছে গাড়ির চাপ। দক্ষিণবঙ্গের অন্যতম ব্যস্ত মহাসড়ক হলো ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক। সাম্প্রতিককালে আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে চলেছে এ মহাসড়কে দুর্ঘটনা এবং সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ঘটছে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলা থেকে বাগেরহাটের মোল্লারহাট উপজেলা পর্যন্ত ৮০ কিমি. এলাকায়। স্থানীয় লোকজন ও গাড়িচালকের অসচেতনতা এবং আইনের সঠিক প্রয়োগের অভাবে প্রতিনিয়ত মহাসড়কটিতে দুর্ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

স্থানীয়রা অনেক সময় ধান মাড়াই থেকে শুরু করে ধান শুকানো, খড় শুকানো ও গাঁদা দেওয়ার কাজও করে থাকেন। অর্থাৎ কৃষির সঙ্গে সম্পর্কিত যে কাজগুলো খোলা মাঠে বা বাড়ির উঠানে করতে হয়, সে কাজগুলো স্থানীয়রা রাস্তা দখল করে সম্পন্ন করে থাকেন। এতে বিভিন্ন স্থানে সড়কের জায়গা বন্ধ হওয়ার কারণে ব্যাপক হারে দুর্ঘটনা ঘটছে। এ ছাড়া সড়ক দুর্ঘটনার জন্য গাড়িচালকরাও সমান দায়ী। তাদের বেপরোয়া গাড়ি চালানো এবং যানবাহনের ফিটনেস না থাকায় দুর্ঘটনার শিকার হয়ে সাধারণ মানুষের প্রাণহানি ঘটছে।

ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে দুর্ঘটনা রোধ করার জন্য আইনের সঠিক প্রয়োগ করতে হবে। একই সঙ্গে প্রয়োজন জনসচেতনতা তৈরি করা। সড়কে শৃঙ্খলা আনতে সরকার, স্থানীয় অধিবাসী, গাড়িচালক; সর্বোপরি যাত্রীদের আরও সতর্ক হতে হবে।

শিক্ষার্থী, ঢাকা কলেজ

ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক যেন এক আতঙ্কের নাম

 শেখ আব্দুল্লাহ 
০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পদ্মা সেতু হওয়ায় সরাসরি ঢাকা থেকে দক্ষিণবঙ্গে গাড়ি যাতায়াতের সুব্যবস্থা হয়েছে এবং একইসঙ্গে মহাসড়কগুলোতে বেড়েছে গাড়ির চাপ। দক্ষিণবঙ্গের অন্যতম ব্যস্ত মহাসড়ক হলো ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক। সাম্প্রতিককালে আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে চলেছে এ মহাসড়কে দুর্ঘটনা এবং সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ঘটছে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলা থেকে বাগেরহাটের মোল্লারহাট উপজেলা পর্যন্ত ৮০ কিমি. এলাকায়। স্থানীয় লোকজন ও গাড়িচালকের অসচেতনতা এবং আইনের সঠিক প্রয়োগের অভাবে প্রতিনিয়ত মহাসড়কটিতে দুর্ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

স্থানীয়রা অনেক সময় ধান মাড়াই থেকে শুরু করে ধান শুকানো, খড় শুকানো ও গাঁদা দেওয়ার কাজও করে থাকেন। অর্থাৎ কৃষির সঙ্গে সম্পর্কিত যে কাজগুলো খোলা মাঠে বা বাড়ির উঠানে করতে হয়, সে কাজগুলো স্থানীয়রা রাস্তা দখল করে সম্পন্ন করে থাকেন। এতে বিভিন্ন স্থানে সড়কের জায়গা বন্ধ হওয়ার কারণে ব্যাপক হারে দুর্ঘটনা ঘটছে। এ ছাড়া সড়ক দুর্ঘটনার জন্য গাড়িচালকরাও সমান দায়ী। তাদের বেপরোয়া গাড়ি চালানো এবং যানবাহনের ফিটনেস না থাকায় দুর্ঘটনার শিকার হয়ে সাধারণ মানুষের প্রাণহানি ঘটছে।

ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে দুর্ঘটনা রোধ করার জন্য আইনের সঠিক প্রয়োগ করতে হবে। একই সঙ্গে প্রয়োজন জনসচেতনতা তৈরি করা। সড়কে শৃঙ্খলা আনতে সরকার, স্থানীয় অধিবাসী, গাড়িচালক; সর্বোপরি যাত্রীদের আরও সতর্ক হতে হবে।

শিক্ষার্থী, ঢাকা কলেজ

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন