এদেশের বুকে আঠারো আসুক নেমে

প্রকাশ : ০৮ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  দীপঙ্কর সরকার

ছবি: সংগৃহীত

এ যেন অন্য বাংলাদেশ দেখলাম। আমরা প্রকৃত যে বাংলাদেশ দেখতে চেয়েছিলাম, তার যেন একটি প্রতিচ্ছবি আমাদের চোখে ধরা দিল। নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা আমাদের যা দেখিয়ে দিল, তা দেখার জন্য যেন অনেক বছর তৃষ্ণার্ত ছিলাম।

এ অন্দোলনের মধ্য দিয়ে দেখতে পেলাম আলোকোজ্জ্বল বাংলাদেশকে। গাড়ির লাইসেন্স পরীক্ষা করার মাধ্যমে একটি নতুন ইতিহাসের জন্ম দিয়েছে আমাদের ছাত্রবন্ধুরা। যে কাজটি আমাদের প্রশাসন করতে ব্যর্থ হয়েছে, সেটিই করে দেখিয়ে দিল আমাদের প্রজন্ম।

মন্ত্রীর গাড়ি ঘুরিয়ে দিয়েছে ছাত্রবন্ধুরা। আইন যে সবার জন্য সমান, তা আরও একবারের জন্য প্রতিষ্ঠিত করেছে এ প্রজন্ম। সাম্যের মূলমন্ত্র নিয়ে এগিয়ে যাওয়া এই প্রজন্মের মাঝে আমি সম্ভাবনাময় বাংলাদেশকে দেখতে পাচ্ছি। আমাদের ছাত্রবন্ধুদের মানবিকতা দেখে আনন্দ হয়। অ্যাম্বুলেন্স ও বয়স্কদের রিকশা গমনে ছাত্ররা পথ উন্মুক্ত করে দিয়েছে। আন্দোলনের জন্য যেন অকারণে কেউ কষ্ট না পান, সে বিষয়ে তারা ছিল সজাগ।

শৃঙ্খলার প্রতীক যেন আমাদের ছাত্র সমাজ। বড়দের ট্রাফিক নিয়ম শেখানোর কথা তাদের, সেখানে উল্টো তারাই ট্রাফিক নিয়ম শেখাচ্ছে। সময়ের শ্রেষ্ঠ দৃশ্য হল- ছাত্রদের নির্দেশে রিকশার সারিবদ্ধভাবে চলাচল। এ দৃশ্য পরম তৃপ্তির। রাস্তায় গাড়ির ভাঙা কাচের টুকরো ছাত্ররা নিজেই পরিষ্কার করেছে। এ যেন আরেকটি সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিয়েছে। আমাদের দেশ আমাদেরই দেখভাল করতে হবে, এ মহামন্ত্রে উজ্জীবিত আমাদের ছাত্রবন্ধুরা। যারা কথায় কথায় এই প্রজন্ম উচ্ছন্নে গেছে বলে গলা ফাটান, তাদের মনে করিয়ে দিতে চাই- নতুন প্রজন্মের এ ছাত্রবন্ধুরাই পারবে দেশের জঞ্জাল পরিষ্কার করতে। দেশকে বদলে দিতে।

শিক্ষার্থী, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়