শিক্ষা নিয়ে বিতর্ক স্বাভাবিক

  কাজী ফারুক আহমেদ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

অধ্যক্ষ কাজী ফারুক আহমেদ
অধ্যক্ষ কাজী ফারুক আহমেদ। ছবি: সংগৃহীত

চলমান ছাত্র রাজনীতি, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি এবং বৈশ্বিক র‌্যাংকিংয়ে দেশের শীর্ষ উচ্চশিক্ষা বিদ্যাপীঠের অবস্থান এবং শিক্ষা প্রশাসনে দায়িত্ব পালনরত ও শ্রেণিকক্ষে পাঠদানকারী শিক্ষকদের একটা উল্লেখযোগ্য অংশের বক্তব্য, অবস্থান নিয়ে নানা বিতর্কের প্রেক্ষাপটে আজ শিক্ষা দিবস পালিত হচ্ছে।

বর্তমানে ছাত্র রাজনীতি কেন আস্থা হারাচ্ছে- এ নিয়ে দিন কয়েক আগে বিবিসি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষার্থী ও নৃবিজ্ঞানের এক শিক্ষকের বক্তব্যসহ একটি প্রতিবেদন তুলে ধরে। একজন শিক্ষার্থী বলেন, হলে থাকার জন্য জোর করে রাজনীতি করানো হয়। মিছিলে যেতে বাধ্য করা হয়।

কেন একজন শিক্ষার্থীকে পড়ালেখা বাদ দিয়ে জোর করে রাজনীতি করাতে হবে? আরেক শিক্ষার্থী বলেন, ছাত্র রাজনীতি হওয়ার কথা ছাত্রদের নিয়ে। বর্তমানে ছাত্র রাজনীতি ছাত্রদের কেন্দ্র করে হয় না, হয় দলকে কেন্দ্র করে, তাদের উদ্দেশ্য ক্ষমতা অর্জন করা।

দেশে প্রচলিত শিক্ষক আন্দোলনে সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও এ কথা স্বীকার করতে হবে যে, মূলধারার শিক্ষক সংগঠনগুলো শিক্ষার কাম্য মানোন্নয়নে প্রাধান্য না দিলেও শিক্ষকদের পেশাগত প্রত্যাশাগুলো যথাযথভাবেই তুলে ধরে থাকে।

বেসরকারি স্কুল-কলেজ, অনার্স, মাস্টার্স কলেজ, কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষকদের এমপিও, পদোন্নতি, সরকারি শিক্ষকদের অনুরূপ পূর্ণাঙ্গ উৎসবভাতা এবং এককালীন পূর্ণ পেনশনের দাবি এর অন্যতম।

শিক্ষার মান নিয়ে সমালোচনা আছে। লন্ডনভিত্তিক শিক্ষাবিষয়ক সাময়িকী টাইমস হায়ার এডুকেশন বিশ্বের সেরা এক হাজার বিশ্ববিদ্যালয়ের যে তালিকা তৈরি করেছে, তাতে বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নেই। শিক্ষকদের অনেক প্রত্যাশা পূরণ হয়নি।

এসব মেনে নিয়েও আজ শিক্ষা দিবসে স্বীকার করতে হবে, শিক্ষা ক্ষেত্রে অনেক চ্যালেঞ্জ থাকলেও গত এক দশকে অর্জনও কম নয়।

শিক্ষা ক্ষেত্রে বিভিন্ন অর্জনের মধ্যে রয়েছে- প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক পর্যায়ে বিনা মূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ, ১৭ বছর আগে প্রণীত কারিকুলাম সংস্কার, শিক্ষাবর্ষের প্রথম দিনে ক্লাস শুরু, পরীক্ষার ফল প্রকাশে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার, প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা চালু, মাদ্রাসা শিক্ষার আধুনিকায়ন, কারিগরি শিক্ষা সংস্কার, অটিস্টিক ও প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের শিক্ষার অনুকূল সিদ্ধান্ত গ্রহণ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নয়ন, শিক্ষায় পশ্চাৎপদ অঞ্চলগুলোর জন্য বিশেষ ব্যবস্থা ইত্যাদি।

শিক্ষা নিয়ে বিতর্ক নতুন কিছু নয় এবং তা স্বাভাবিক। বিতর্ক ও ভাবনা নতুন সৃষ্টিতে, উন্নয়নে সহায়ক হলে তা হবে শিক্ষা দিবসের মূল চেতনার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ।

অধ্যক্ষ কাজী ফারুক আহমেদ : ’৬২-র শিক্ষা আন্দোলনের অন্যতম সংগঠক; জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ প্রণয়ন কমিটির সদস্য

[email protected]

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×