বিশ্বের আশ্চর্য ৫ রোবট

  সালমান রিয়াজ ২০ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৫:০০ | অনলাইন সংস্করণ

রোবট
বিশ্বের আশ্চর্য ৫ রোবট। ছবি: সংগৃহীত।

সম্প্রতি সোফিয়ার বাংলাদেশ ঘুরে যাওয়ার সুবাদে রোবট সম্পর্কে অনেক কিছুই জেনেছি আমরা। যান্ত্রিক হলেও বিভিন্ন কাজে এখন রোবট ব্যবহারের কথা ভাবা হচ্ছে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিকাশ ঘটিয়ে বিজ্ঞানীরা তৈরি করছেন রোবট। রোগীর সেবা, গৃহস্থালির কাজ থেকে শুরু করে নগরের নিরাপত্তায় পুলিশের ভূমিকাতেও দেখা মিলছে রোবটের।

ফুটবলার গুরু আগামীতে বিশ্বে রোবটরাও ফুটবল খেলায় অংশ নেবে বলে বিজ্ঞানীরা যে ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন এই রোবটকে দেখলে তা একেবারে মিলে যায়। গবেষকদের ধারণা, ২০৫০ সালের বিশ্বকাপ ফুটবলে মানুষকে রোবটরা হারিয়ে দেবে। সেই রোবট দলের নেতৃত্বে থাকবে গুরু নামের এক রোবট। দ্বিপদী এই রোবটটি এখন নিয়মিত বিভিন্ন ফুটবল খেলায় অংশ নিচ্ছে। ফুটবলের প্রায় সব কৌশলই এরই মধ্যে রপ্ত করে ফেলেছে গুরু। স্বনিয়ন্ত্রিত এ রোবটটি অস্ট্রেলিয়ার প্রকৌশলীরা তৈরি করেছেন।

যোদ্ধা অ্যাটলাস সিনেমার নিনজারা যেভাবে দ্রুতবেগে ছুটে যুদ্ধ করতে পারে, রোবট অ্যাটলাস সেরকমই। যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টন ডায়নামিকস ৬ ফুট উচ্চতার মানবাকৃতির রোবটটি তৈরি করেছে। পেছন দিকে নিখুঁতভাবে ডিগবাজি দিতে পারে এটি। নানা শারীরিক কসরতের পাশাপাশি ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে ডিগবাজি দিয়ে পায়ের ওপর নিরাপদে দাঁড়াতে পারে অ্যাটলাস। রোবটটি বনজঙ্গলের মধ্য দিয়ে দৌড়াদৌড়িতেও ভীষণ পারদর্শী।

ব্যাংকার নাউ ভবিষ্যৎ প্রবক্তারা বলছেন, আগামীতে মানুষের কর্মসংস্থান দখলে নেবে রোবট। এমন আভাস দিচ্ছে ব্যাংকার রোবট নাউ। ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট খুলতে, টাকা-পয়সার হিসাব রাখতে পারে স্বয়ংক্রিয় এ রোবট। এটি এখন চাকরি করছে জাপানের সবচেয়ে বড় ব্যাংক টোকিও-মিৎসুবিশি ইউএফজে ব্যাংকে। দুই পায়ে চলতে সক্ষম এ রোবটটি জাপানি, ইংরেজি আর চীনা ভাষায় কথা বলতে পারদর্শী।

নার্স রোবিয়ার বৃদ্ধাশ্রম বা হাসপাতালে রোগীদের কাপড় পরাতে ও খুলে দিতে পারে জাপানিজ রোবট রোবিয়ার। ভবিষ্যতে রোবটটি নার্সের দায়িত্ব পালন করবে। ভালুকের মতো দেখতে এই রোবটটি তৈরি করেছেন জাপানি বিজ্ঞানী তোশিহারু মুকাই। রোবটটি অসুস্থ রোগী থেকে শুরু করে বয়স্কদের পরিবহন করতে পারে।

পুলিশ অ্যানবট গোয়েন্দা নিরাপত্তার কাজে প্রথম রোবট পুলিশ চালু করে চীন। দাঙ্গা নিয়ন্ত্রণে এই যন্ত্রে যুক্ত রয়েছে বৈদ্যুতিক চার্জে চালিত সরঞ্জাম। ঘণ্টায় ১৮ কিলোমিটার গতিতে চলাফেরা করতে পারে অ্যানবট নামের এই স্বয়ংক্রিয় যন্ত্র। অ্যানবট সেন্সরের সাহায্যে মানবমস্তিষ্ক, চোখ ও কানের মতো কাজ করতে পারে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×