ইনডোর প্লান্টের যত্ন
jugantor
ইনডোর প্লান্টের যত্ন

  রবিউল কমল  

১৮ জুলাই ২০২১, ০৪:২১:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ইট-পাথরের নাগরিক জীবনে আমরা এক টুকরো সবুজের ছোঁয়া পেতে চাই। এ কারণে অনেকেই ব্যালকনিতে কিংবা ঘরের ড্রয়িং রুমের কোণায় টবে বিভিন্ন গাছের চারা লাগান; যা বর্তমানে অনেকের শখ কিংবা রুচিশীলতার পরিচয় হয়ে উঠেছে। কিন্তু শুধু চারা লাগালেই হবে- সেগুলোর প্রয়োজন যথাযথভাবে যত্ন নেওয়া।

এখানে ড্রয়িং রুমে কিংবা ব্যালকনিতে শখের ইনডোর প্লান্ট সতেজ রাখার কিছু উপায় তুলে ধরা হলো।

# অনেক পাতার আগার অংশ খয়েরি বা নিচের অংশ হলুদ হয়ে পড়ে। এমন হলে বুঝতে হবে গাছে অতিরিক্ত পরিমাণে পানি দেওয়া হয়েছে। এই অবস্থায় প্রথমে টবের সম্পূর্ণ মাটি শুকিয়ে নিতে হবে। তারপর গাছের সব জায়গায় পানি ছিটিয়ে দিতে হবে। তবে গাছের গোড়ায় ঘন ঘন পানি দেওয়া যাবে না।
#অতিরিক্ত পানি দিলে যেমন গাছের ক্ষতি হয়, একইভাবে কম পানি দিলে গাছের সজীবতা নষ্ট হয়ে যায়। এমন হলে গাছের পাতার সামনের দিকটা হলুদ হয়ে যায় এবং পরে পাতা শুকিয়ে ঝরে যায়। তখন গাছের টবের অংশ একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত পানিতে ডুবিয়ে রাখুন এবং কিছু সময় পরে সেটা তুলে ফেলুন। এ সময়ে কয়েক দিন গাছে ঘন ঘন পানি দিন।

# গাছের ফুল বা পাতার রং হালকা হয়ে গেলে গাছটি ঠাণ্ডা বা আলো কম পৌঁছায় এমন জায়গায় রাখুন। কারণ অতিরিক্ত আলো ও তাপের সংস্পর্শে এসে গাছের পাতা ও ফুলের রং হালকা হয়ে যায়। তবে গাছের নতুন চারা ঠিকমতো না বাড়লে তখন টব বারান্দায় রাখুন। আলো-বাতাস পেলে গাছ ঠিকমতো বড় হবে এবং ফাংগাস জন্মাবে না।

# ইনডোর প্লান্টে গাছের চারা অনেক সময় ঠিকমতো বাড়লেও কাণ্ড হলুদ হয়ে যায়। সাধারণ গাছের গোড়ায় অতিরিক্ত সার দেওয়ার কারণে এমনটা হয়ে থাকে। তাই এমন কিছু হলে বেশ সময় নিয়ে গাছের গোড়ায় বেশি করে পানি দিন। পানিতে সার ধুয়ে গেলে এ সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

# পাতার আগার অংশ অনেক সময় কুকড়ে শুকিয়ে যায়। রুমের তাপমাত্রা বেড়ে গেলে এ সমস্যা হয়। তাই এমন হলে সঙ্গে সঙ্গে গাছ সরিয়ে ঠাণ্ডা স্থানে রাখুন।

# সারারাত গাছের গোড়ায় পানি জমে থাকতে দেবেন না। তাহলে গাছের গোড়া পচে যেতে পারে। প্রতিদিন পানি না দিলেও চলবে। খেয়াল রাখতে হবে টবের মানি যেন একেবারে শুকিয়ে না যায়। গাছে পানি দেওয়ার আগে টবের মাটি হাতে দিয়ে চেপে চেপে দেখুন। ভেজা ভাব থাকলে পানি দেওয়ার প্রয়োজন নেই। গরমকালে বেশি পানি দেবেন, শীতকালে কম পানি দেবেন। ধীরে ধীরে পানি দিতে হবে। একবার পানি দেওয়ার পর মাটি শুকিয়ে গেলে তবেই পরেরবার পানি দিতে হবে।

# পোকামাকড়ের হাত থেকে গাছ রক্ষা করতে মাঝে মাঝে জীবাণুনাশক স্প্রে করতে হবে।

# বেশি রোদে গাছ রেখে দেবেন না। গাছের পাতায় পানি ছিটকে রোদের তাপে পাতায় স্পট তৈরি হতে পারে। এমন হলে গাছটি কিছু সময় ঠাণ্ডা স্থানে রাখুন, স্পট মিলিয়ে যাবে। গাছ ভালো থাকবে।

টুকিটাকি:

১. গাছের পাতায় ধুলা বা ঝুল জমলে শুকনো নরম সুতি কাপড় বা হালকা স্পঞ্জ দিয়ে গাছের পাতা মুছতে পারেন। দুধ ও সমপরিমাণ পানির মিশ্রণ দিয়ে গাছের পাতা পরিষ্কার পারেন। তুলি দিয়েও পরিষ্কার করতে পারেন।
২. মাটি ভেজা থাকলে লিকুইড প্লান্ট ফুড দিন। প্রয়োজনের অতিরিক্ত প্লান্ট ফুড দেবেন না। গাছের জন্য তা ক্ষতিকারক। নাইট্রোজেন, ফসফেট ও পটাশ আছে এমন লিকুইড প্লান্ট ফুডই ইনডোর প্লান্টের জন্য আদর্শ।

৩. একসঙ্গে অনেক গাছ পরিষ্কার করতে চাইলে শাওয়ারের নিচে গাছগুলো রাখুন। তবে হালকা পানি ব্যবহার করবেন। গাছের গোড়ার অংশ ও তার চারদিক প্লাস্টিক বা পলিথিন দিয়ে র্যাপ করে দেবেন। এতে গাছের সব মাটি ধুয়ে নষ্ট হয়ে যাবে না।

৪. ঝরেপড়া ফুল বা শুকনো পাতা টবের ভেতর থেকে ফেলে দেবেন। তাহলে গাছ ভালো থাকবে। গাছে কুঁড়ি দেখা দিলে গাছ ঘরের এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় নিয়ে রাখবেন না। এ সময় টব বারবার এদিক-ওদিক সরালে গাছের কুঁড়ি ঝরে পড়তে পারে।
সূত্র: রিডার্স ডাইজেস্ট

ইনডোর প্লান্টের যত্ন

 রবিউল কমল 
১৮ জুলাই ২০২১, ০৪:২১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইট-পাথরের নাগরিক জীবনে আমরা এক টুকরো সবুজের ছোঁয়া পেতে চাই। এ কারণে অনেকেই ব্যালকনিতে কিংবা ঘরের ড্রয়িং রুমের কোণায় টবে বিভিন্ন গাছের চারা লাগান; যা বর্তমানে অনেকের শখ কিংবা রুচিশীলতার পরিচয় হয়ে উঠেছে। কিন্তু শুধু চারা লাগালেই হবে- সেগুলোর প্রয়োজন যথাযথভাবে যত্ন নেওয়া। 

এখানে ড্রয়িং রুমে কিংবা ব্যালকনিতে শখের ইনডোর প্লান্ট সতেজ রাখার কিছু উপায় তুলে ধরা হলো।
 
# অনেক পাতার আগার অংশ খয়েরি বা নিচের অংশ হলুদ হয়ে পড়ে। এমন হলে বুঝতে হবে গাছে অতিরিক্ত পরিমাণে পানি দেওয়া হয়েছে। এই অবস্থায় প্রথমে টবের সম্পূর্ণ মাটি শুকিয়ে নিতে হবে। তারপর গাছের সব জায়গায় পানি ছিটিয়ে দিতে হবে। তবে গাছের গোড়ায় ঘন ঘন পানি দেওয়া যাবে না।
#অতিরিক্ত পানি দিলে যেমন গাছের ক্ষতি হয়, একইভাবে কম পানি দিলে গাছের সজীবতা নষ্ট হয়ে যায়। এমন হলে গাছের পাতার সামনের দিকটা হলুদ হয়ে যায় এবং পরে পাতা শুকিয়ে ঝরে যায়। তখন গাছের টবের অংশ একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত পানিতে ডুবিয়ে রাখুন এবং কিছু সময় পরে সেটা তুলে ফেলুন। এ সময়ে কয়েক দিন গাছে ঘন ঘন পানি দিন।

# গাছের ফুল বা পাতার রং হালকা হয়ে গেলে গাছটি ঠাণ্ডা বা আলো কম পৌঁছায় এমন জায়গায় রাখুন। কারণ অতিরিক্ত আলো ও তাপের সংস্পর্শে এসে গাছের পাতা ও ফুলের রং হালকা হয়ে যায়। তবে গাছের নতুন চারা ঠিকমতো না বাড়লে তখন টব বারান্দায় রাখুন। আলো-বাতাস পেলে গাছ ঠিকমতো বড় হবে এবং ফাংগাস জন্মাবে না।

# ইনডোর প্লান্টে গাছের চারা অনেক সময় ঠিকমতো বাড়লেও কাণ্ড হলুদ হয়ে যায়। সাধারণ গাছের গোড়ায় অতিরিক্ত সার দেওয়ার কারণে এমনটা হয়ে থাকে। তাই এমন কিছু হলে বেশ সময় নিয়ে গাছের গোড়ায় বেশি করে পানি দিন। পানিতে সার ধুয়ে গেলে এ সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।
 
# পাতার আগার অংশ অনেক সময় কুকড়ে শুকিয়ে যায়। রুমের তাপমাত্রা বেড়ে গেলে এ সমস্যা হয়। তাই এমন হলে সঙ্গে সঙ্গে গাছ সরিয়ে ঠাণ্ডা স্থানে রাখুন।

# সারারাত গাছের গোড়ায় পানি জমে থাকতে দেবেন না। তাহলে গাছের গোড়া পচে যেতে পারে। প্রতিদিন পানি না দিলেও চলবে। খেয়াল রাখতে হবে টবের মানি যেন একেবারে শুকিয়ে না যায়। গাছে পানি দেওয়ার আগে টবের মাটি হাতে দিয়ে চেপে চেপে দেখুন। ভেজা ভাব থাকলে পানি দেওয়ার প্রয়োজন নেই। গরমকালে বেশি পানি দেবেন, শীতকালে কম পানি দেবেন। ধীরে ধীরে পানি দিতে হবে। একবার পানি দেওয়ার পর মাটি শুকিয়ে গেলে তবেই পরেরবার পানি দিতে হবে।

# পোকামাকড়ের হাত থেকে গাছ রক্ষা করতে মাঝে মাঝে জীবাণুনাশক স্প্রে করতে হবে। 

# বেশি রোদে গাছ রেখে দেবেন না। গাছের পাতায় পানি ছিটকে রোদের তাপে পাতায় স্পট তৈরি হতে পারে। এমন হলে গাছটি কিছু সময় ঠাণ্ডা স্থানে রাখুন, স্পট মিলিয়ে যাবে। গাছ ভালো থাকবে।

টুকিটাকি:

১. গাছের পাতায় ধুলা বা ঝুল জমলে শুকনো নরম সুতি কাপড় বা হালকা স্পঞ্জ দিয়ে গাছের পাতা মুছতে পারেন। দুধ ও সমপরিমাণ পানির মিশ্রণ দিয়ে গাছের পাতা পরিষ্কার পারেন। তুলি দিয়েও পরিষ্কার করতে পারেন।
২. মাটি ভেজা থাকলে লিকুইড প্লান্ট ফুড দিন। প্রয়োজনের অতিরিক্ত প্লান্ট ফুড দেবেন না। গাছের জন্য তা ক্ষতিকারক। নাইট্রোজেন, ফসফেট ও পটাশ আছে এমন লিকুইড প্লান্ট ফুডই ইনডোর প্লান্টের জন্য আদর্শ।

৩. একসঙ্গে অনেক গাছ পরিষ্কার করতে চাইলে শাওয়ারের নিচে গাছগুলো রাখুন। তবে হালকা পানি ব্যবহার করবেন। গাছের গোড়ার অংশ ও তার চারদিক প্লাস্টিক বা পলিথিন দিয়ে র্যাপ করে দেবেন। এতে গাছের সব মাটি ধুয়ে নষ্ট হয়ে যাবে না। 

৪. ঝরেপড়া ফুল বা শুকনো পাতা টবের ভেতর থেকে ফেলে দেবেন। তাহলে গাছ ভালো থাকবে। গাছে কুঁড়ি দেখা দিলে গাছ ঘরের এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় নিয়ে রাখবেন না। এ সময় টব বারবার এদিক-ওদিক সরালে গাছের কুঁড়ি ঝরে পড়তে পারে।
সূত্র: রিডার্স ডাইজেস্ট
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন