পুরুষ হিসেবে নিজের প্রতি নিজেরই ঘৃণা জন্মেছে

  কাওসার এইচ তানজিল ০৯ জুলাই ২০১৯, ২০:২৯ | অনলাইন সংস্করণ

ধর্ষক হারুন ও নিহত সায়মা
ধর্ষক হারুন ও নিহত সায়মা

নিহত শিশু সায়মার বাবার কান্নাজড়িত কণ্ঠে কথাটি শোনার পর পুরুষ হিসেবে নিজের প্রতি নিজেরই ঘৃণা জন্মেছে। এ কেমন পরিবেশ তৈরি করেছি আমরা? যেখানে একটি অবুঝ শিশুও নিরাপদ নয়।

লালসার শিকার থেকে বাঁচতে পারছে না নয় মাসের নিষ্পাপ শিশুটিও। ধর্ষক আজ মাদ্রাসার শিক্ষক, স্কুলের শিক্ষক, বাস ড্রাইভার, দারোয়ান, মসজিদের ইমাম এমনকি নিকট আত্মীয়রাও।

অথচ যে মাদ্রাসার শিক্ষকরা ধর্ষণের বিরুদ্ধে কথা বলবেন, জাহান্নামের ভয়ে নিজে ভীত হবেন, অপরকেও সতর্ক করবেন, তারাই আজ ধর্ষণে লিপ্ত!

আদর্শ শিখাবেন যে শিক্ষক তিনিই আজ ছাত্রীদের আপত্তিকর ভিডিও ফুটেজ ডিভাইসে ধারণ করেন এবং ছাত্রীদের বারবার আপত্তিকর কর্মে বাধ্য করেন।

বোঝাই যাচ্ছে অবস্থা কতটা বেগতিক। এহেন পরিস্থিতিতে কোন নীতিকথাই কাজে দিবে না বরং প্রশাসনকে হতে হবে কঠোর।

বিচারের দীর্ঘসূত্রিতাই অপরাধীকে বারবার তার অপরাধ কর্মে উৎসাহিত করছে। এসব ধর্ষকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে, তবেই যদি অপরাধ কিছুটা কমে।

পরিবারে একটি কন্যাসন্তান কতটা প্রয়োজনীয় এবং অপরিহার্য সেটা শুধু তারাই বুঝবেন যাদের একটি কন্যাসন্তান আছে। আজ আমি আমার ছোটবোনটির নিরাপত্তা নিয়ে প্রচুর শঙ্কিত এবং যারপরনাই আতঙ্কিত।

ওদেরকে বোঝাতে হবে ওরা এখন আর নিরাপদ নন। আপনার মেয়ে কিংবা ছোট বোনটিকে চোখে চোখে রাখুন। প্রয়োজনে ওদেরকে বন্ধু করে নিন।

ওদের যৌক্তিক আবদারগুলোকে গুরুত্ব দিন। অতি শাসন কিংবা অতি আদর দুটোই পরিত্যাগ করুন। মনে রাখবেন, আপনার মেয়েটি বা ছোট বোনটি অবশ্যই ভুল করবে।

তাকে সংশোধন করানো এবং নিরাপদ রাখার দায়িত্ব আপনার ওপরই বর্তায়। হায়েনারা আজ বেপরোয়া; সুতরাং আপনি কেন অতিরিক্ত সচেতনতা গ্রহণ করবেন না?

সমাজে যখন অবক্ষয় তৈরি হয় তখন বুঝবেন আমি আপনি নিজেই সমাজ সচেতন নই বরং অনেকক্ষেত্রে দায়ী।

সায়মারা বারবারই ছাদ দেখতে চাইবে দয়া করে এসব ফাঁদগুলোকে চিহ্নিত করে দ্রুত ব্যবস্থা নিন। আপনার আমার একটু সচেতনতাই পারে একটি জীবন বাঁচাতে। আসুন সতর্ক হই।

Justice Delayed is Justice Denied- ম্যাক্সিমটির সত্যতা এখন চাক্ষুষ প্রতীয়মান।

আপুদেরকে বলছি, কেন শুধু শুধু নিজেদেরকে শিয়ালের খাবার বানাবে বরং দুষ্টু শিয়ালটিকে দ্রুত খোয়াড়বন্দী করো। এতে তুমি নিজে যেমন বাঁচবে পাশাপাশি আরও দশজনকে বাঁচাবে।

মনে রাখবে, দিনশেষে তোমার পরিবারটিই তোমার সবচেয়ে কাছের। যাকে তাকে বন্ধু বানিয়ো না। কেননা বন্ধুত্ব এতটা সস্তা না।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×