চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের যুগে চতুর্থ স্তম্ভ

  বিধান সাহা ০৬ নভেম্বর ২০১৯, ১৯:৩৬ | অনলাইন সংস্করণ

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের যুগে চতুর্থ স্তম্ভ

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের যুগে প্রবেশ করেছে বিশ্ব। ইন্টারনেট অব থিংস, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, রোবোটিকস, থ্রিডি প্রিন্টার, মাইক্রো প্রযুক্তির মতো অভাবনীয় সব উদ্ভাবন যেন বদলে দিচ্ছে বিশ্ব; বদলে যাচ্ছে আমাদের জীবনযাপনের ধরণ। সেইসঙ্গে বদলে যাচ্ছে রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ তথা গণমাধ্যমের আদল, বদলে যাচ্ছে গণমাধ্যমের সাথে গণমানুষের সম্পর্ক ও যোগাযোগের অবয়ব।

প্রথম শিল্প বিপ্লব ছিল ১৭৬০ থেকে ১৮৪০ সাল পর্যন্ত। অর্থাৎ প্রায় ৮০ বছরব্যাপী। রেল, বাষ্পীয় ইঞ্জিন আবিষ্কার ও উৎপাদনে যন্ত্রের ব্যবহার এ বিপ্লবের বৈশিষ্ট্য। দ্বিতীয় শিল্প বিপ্লব উনিশ শতকের শেষার্ধে শুরু হয়ে বিশ শতকের প্রথমার্ধ পর্যন্ত চলেছিল। তড়িৎ ও অ্যাসেম্বলি লাইনের মাধ্যমে ব্যাপক (মাস) উৎপাদন এ বিপ্লবের অবদান।

তৃতীয় শিল্প বিপ্লব শুরু হয় ১৯৬০ সালে। এটাকে কম্পিউটার বা ডিজিটাল বিপ্লবও বলা হয়। সেমিকন্ডাক্টর, মেইন ফ্রেম কম্পিউটার (১৯৬০), পিসি বা পার্সোনাল কম্পিউটার (১৯৭০-১৯৮০) ও ইন্টারনেট এ বিপ্লবের ধারক। অন্যদিকে ক্ষুদ্র ও শক্তিশালী কিন্তু সস্তা সেন্সর, মোবাইল ইন্টারনেট, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ও মেশিন লার্নিং হচ্ছে চতুর্থ বিপ্লবের ভরশক্তি।

প্রতিটি বিপ্লবের সাথেই এসেছে নতুন নতুন প্রযুক্তি; আর প্রযুক্তির সাথে গণমাধ্যমের সম্পর্ক ওতোপ্রোতেভাবে জড়িত। কারণ একমাত্র প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়েই গণমানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে পারে গণমাধ্যম। ছাপাখানার হাত ধরে সংবাদের গণমানুষের কাছে পৌঁছানো শুরু।

এরপর শিল্পবিপ্লবের প্রভাবে গণমাধ্যমের কার্যক্রমে একে একে যোগ হয়েছে টেলিফোন, ফ্যাক্স, টেলিপ্রিন্টার, রেডিও, টেলিভিশন, কম্পিউটার, ইন্টারনেট এবং উপজাত হিসেবে আজকের সোশ্যাল মিডিয়া। এই প্রতিটি ধাপেই সংবাদ, গণমাধ্যম এবং পাঠক, দর্শক বা শ্রোতার ভূমিকা ও অংশগ্রহণের ধরণে এসেছে আমুল পরিবর্তন।

তাই প্রযুক্তির উৎকর্ষতার সাথে সাথে পাঠক/দর্শকের গণমাধ্যম ব্যবহারের ধরণ বিশ্লেষণ এবং তাদের মানস জগতের পরিবর্তিত অবস্থার সাথে সামঞ্জস্য রেখে কর্মপদ্ধতি ঠিক করতে হবে আজকের গণমাধ্যমকে। তা না হলে ভবিষ্যতে গণমাধ্যমের বার্তা সঠিকভাবে সঠিক পাঠক/দর্শকের কাছে পৌঁছানো সম্ভব হবেনা।

মার্শাল ম্যাকলুহানের গ্লোবাল ভিলেজ আজ সত্য এবং গণমাধ্যমে ডিজিটাল বিপ্লবের প্রভাবও স্পষ্ট। অন্যদিকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের ফলে পার্থক্য কমে আসছে ভৌত, ডিজিটাল ও জৈবিক জগতের মধ্যে; যে কারণে এই শিল্প বিপ্লবকে বিশেষায়িত করা হচ্ছে ফিউশন অব টেকনোলজি হিসেবে। এ পেক্ষাপটে আমাদের মাথায় রাখতে হবে মার্শাল ম্যাকলুহানের সেই উক্তি ‘মিডিয়াম ইজ দ্য মেসেজ’- তথ্যের চেয়ে তথ্যটি কীভাবে পাঠানো ও গ্রহণ করা হচ্ছে তা বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

ইতোমধ্যে প্রযুক্তির কল্যাণে আজ তথ্য থেকে ব্যক্তির বোধগম্যতা আর ব্যক্তিতে সীমাবদ্ধ নেই। সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যাণে তা ছড়িয়ে পড়ছে নির্দিষ্ট দল, গোষ্ঠী এমনকি গণমানুষের মধ্যে। তাই গণমাধ্যমের বার্তাটিও আজ বিশেষায়িত হচ্ছে ভিন্ন আঙ্গিকে। কোন ব্যক্তি কোন সংবাদ পড়ার বা দেখার বা শোনার পর ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপ বা ভাইবারের মাধ্যমে তা সহজেই ছড়িয়ে দিতে পারছেন।

এতে তৈরি হচ্ছে মতামত, মতদ্বৈধতা, বিতর্ক বা নতুন মত। মূল ধারার গণমাধ্যমও তাই পাঠকের মতামত গ্রহণের ওপর জোর দিয়েছে। পাশাপাশি তৈরি হচ্ছে বিকল্প গণমাধ্যম। তাই গণমাধ্যমকে মূল ধারার মাধ্যম হিসেবে টিকে থাকতে গ্রহণ করতে হচ্ছে নতুন নতুন কর্মপদ্ধতি এবং সংবাদের ধরণ ও প্রচারের গড়নে আনতে হচ্ছে পরিবর্তন।

এই পরিবর্তনের গতি আরও বেগবান হবে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের পরিপূর্ণ বাস্তবায়নের যুগে। ইতিমধ্যে এ বিপ্লবের ফসল হিসেবে এসে গেছে দেহে স্থাপিত প্রযুক্তি, চশমায় মনিটর, থ্রিডি প্রিন্টিং, পরিধেয় ইন্টারনেট, আইওটি, বিগ ডাটা, ড্রাইভারবিহীন গাড়ি, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, ব্লক চেইন ও বিট কয়েন।

আর চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে পরিবর্তন আসছে জ্যামিতিক হারে; তাই শিগগিরই আমরা মুখোমুখি হব আরও অভাবনীয় সব প্রযুক্তির। সেই সাথে বদলে যাবে ‘ম্যাসেজের মিডিয়াম’। সেই অনুযায়ী প্রস্তুত হতে হবে গণমাধ্যমকেও। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে দর্শক, শ্রোতা বা পাঠকের মানস জগত অনুযায়ী বার্তা ও মাধ্যম ঠিক করতে পারলেই গণমাধ্যম গণমানুষের গ্রহণযোগ্যতা পাবে, সেই লক্ষ্য অর্জনই এখন গণমাধ্যমের চ্যালেঞ্জ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×