শহীদ শেখ ফজলুল হক মনির কাছে খোলা চিঠি
jugantor
শহীদ শেখ ফজলুল হক মনির কাছে খোলা চিঠি

  গাজী সারোয়ার হোসেন বাবু  

০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:২৪:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

শ্রদ্ধেয় যুববীর,
আমার শুভেচ্ছা, শ্রদ্ধা ও সালাম গ্রহণ করবেন। আপনি আমাদের কাছে এক শক্তিমান যুবকের নাম, রণাঙ্গনের বীর সৈনিক, বিশ্বস্ত ও আদর্শের মূর্তপ্রতীক। আপনি বাংলার যুব সমাজের প্রাণের স্পন্দন। আপনি দিশেহারা যুবকের আলোর দিশারী।

হে মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক

আপনি সংগঠক হিসেবে ছিলেন এক অতুলনীয় বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীনের সংগ্রামে আপনার সাংগঠনিক দু:সাহসী ভূমিকায় আপনি হয়ে উঠেছেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। সেই ছাত্রজীবন থেকে আপনার রাজনীতির শুরু। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। কখনো কোন অন্যায়ের সাথে আপোষ করেননি। সাহসিকতার সাথে সকল প্রতিকূলতার মোকাবেলা করেছেন এবং মুক্তিযুদ্ধে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে একজন সফল সংগঠকের ভূমিকা পালন করেছেন।

হে মুজিব বাহিনীর অধিনায়ক

আপনার নেতৃত্বে মুজিব বাহিনী দখলদার পাকবাহিনী দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিম রণাঙ্গন এবং ঢাকার আশেপাশে বেশ কিছু দু: সাহসিক অভিযান পরিচালনা করেছে। আপনার এই ভূমিকা স্বাধীনতার সংগ্রামে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিলো।

হে যুব সমাজের পথিকৃৎ

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে সবেমাত্র স্বাধীন হওয়া একটি যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশ যা পুনর্গঠন করতে দায়িত্ব নিতে হবে যুবকদের। ঠিক তখনি বঙ্গবন্ধু আপনাকে দায়িত্ব দিলেন যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশ পুনর্গঠনে যুবকদের নিয়ে কাজ করার জন্য। আপনি প্রতিষ্ঠা করলেন যুব সমাজের প্রিয় প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। জাতীয় চার মূলনীতিকে সামনে রেখে শুরু করলেন যুবকদের নিয়ে যুবলীগের পথচলা। সকল প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে হয়েছেন যুব সমাজের আস্থার প্রতীক।

আপনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে বিশ্বস্ত ও আদরের মানুষ। বঙ্গবন্ধুর ছায়া হয়ে আপনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত নিজের বিশ্বস্ততার প্রমাণ রেখে গিয়েছেন। আপনি জেনে খুশি হবেন আপনার নিজ হাতে প্রতিষ্ঠিত সংগঠন যুবলীগের দায়িত্ব আজ আপনার সুযোগ্য উত্তরসূরি জ্যেষ্ঠ সন্তান আমাদের সকলের অত্যন্ত পছন্দের মানুষ শেখ ফজলে শামস পরশ এর হাতে। ভদ্র, নম্র, মেধা, দক্ষতা ও উচ্চশিক্ষায় আপনার সন্তান আজ যুব সমাজের কাছে এক জনপ্রিয় নাম।

আপনি জেনে ব্যথিত হবেন আপনার এই পবিত্র যুব প্রতিষ্ঠান কিছু অসাধু লোকের কারণে ইমেজ সংকটে পড়েছিল, তবে আনন্দের বিষয় রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা আপনার সন্তানকে দায়িত্ব দেওয়ার পর ইতোমধ্যে যুবলীগ সকল সংকটকে অতিক্রম করে নিজের মানবিক গুণাবলীর মাধ্যমে অত্যন্ত সফলতার সাথে সংগঠন পরিচালনা করে চলেছেন। আপনার সন্তানের নেতৃত্বে যুবলীগ আজ শুধুমাত্র যুব সমাজের কাছেই নয় সমগ্র বাঙালীর কাছে মানবিক যুবলীগে রূপান্তরিত হয়েছে।

শিশুবেলায় পিতামাতা হারা সেই শিশু পরশ আজ সমগ্র বাঙালীর কাছে হয়ে উঠেছে মানবিক যুবলীগের প্রবক্তা।শুধু তাই নয় তিনি একজন সফল রাজনীতিবিদের পাশাপাশি পেশায় একজন শিক্ষকও। এই অর্জনে পিতা হিসেবে আপনি যেমন গর্বিত তেমনি যুবলীগ কর্মী হিসেবে আমরা অনেক আনন্দিত।

হে নন্দিত যুবনেতা

আপনাকে দেখার সৌভাগ্য আমার হয়নি ঠিকই কিন্তু আপনার সুযোগ্য সন্তানের কর্মী হিসেবে কাজ করার সৌভাগ্য ইতোমধ্যেই অর্জন করেছি। আমরা আপনার সন্তানের মধ্যে আপনার প্রতিচ্ছবি খুঁজে পাই। তার নেতৃত্বের গুণাবলী আমাদের মনে করিয়ে দেয় আপনার কথা।
বঙ্গবন্ধুর যেকোন প্রয়োজনে শেখ মনি যেমন বিশ্বস্ততার নাম ছিলে ঠিক তেমনি আপনার বোন রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার কাছে ইতোমধ্যে এক অপরিহার্য বিশ্বস্ত নাম আপনার রক্তের সুযোগ্য উত্তরসূরি শেখ পরশ।

আপনার কনিষ্ঠ সন্তান শেখ ফজলে নুর তাপস আইন অঙ্গনের এক পরিচিত মুখ এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের নগর পিতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

১৯৩৯ সালের ৪ ডিসেম্বর টুঙ্গিপাড়ার ঐতিহাসিক শেখ পরিবারে বাবা-মায়ের কোল আলোকিত করে আপনি এই দুনিয়ায় এসেছিলেন। জন্মদিনে আপনার প্রতি রইলো বিনম্র শ্রদ্ধা। এক গভীর ষড়যন্ত্রে আপনি আমাদের কাছ থেকে আকাশের তারা হয়ে চলে গিয়েছেন অনেক দূরে। জানি আর কখনো ফিরে আসবেন না। তবে জেনে রাখবেন আপনি উজ্জ্বল নক্ষত্র হয়ে বেঁচে আছেন বাংলার প্রতিটি যুবকের হৃদয়ে এবং অন্তরের মনি হয়ে বেঁচে থাকবেন সারাজীবন।
যেখানেই থাকুন, আপনি শান্তিতে থাকুন।

ইতি
আপনার আদর্শিক কর্মী
গাজী সারোয়ার হোসেন বাবু
সাংগঠনিক সম্পাদক
ঢাকা মহানগর যুবলীগ (দক্ষিণ)

শহীদ শেখ ফজলুল হক মনির কাছে খোলা চিঠি

 গাজী সারোয়ার হোসেন বাবু 
০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:২৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শ্রদ্ধেয় যুববীর,
আমার শুভেচ্ছা, শ্রদ্ধা ও সালাম গ্রহণ করবেন। আপনি আমাদের কাছে এক শক্তিমান যুবকের নাম, রণাঙ্গনের বীর সৈনিক, বিশ্বস্ত ও আদর্শের মূর্তপ্রতীক। আপনি বাংলার যুব সমাজের প্রাণের স্পন্দন। আপনি দিশেহারা যুবকের আলোর দিশারী।

হে মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক

আপনি সংগঠক হিসেবে ছিলেন এক অতুলনীয় বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীনের সংগ্রামে আপনার সাংগঠনিক দু:সাহসী ভূমিকায় আপনি হয়ে উঠেছেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। সেই ছাত্রজীবন থেকে আপনার রাজনীতির শুরু। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। কখনো কোন অন্যায়ের সাথে আপোষ করেননি। সাহসিকতার সাথে সকল প্রতিকূলতার মোকাবেলা করেছেন এবং মুক্তিযুদ্ধে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে একজন সফল সংগঠকের ভূমিকা পালন করেছেন।

হে মুজিব বাহিনীর অধিনায়ক

আপনার নেতৃত্বে মুজিব বাহিনী দখলদার পাকবাহিনী দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিম রণাঙ্গন এবং ঢাকার আশেপাশে বেশ কিছু দু: সাহসিক অভিযান পরিচালনা করেছে। আপনার এই ভূমিকা স্বাধীনতার সংগ্রামে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিলো।

হে যুব সমাজের পথিকৃৎ

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে সবেমাত্র স্বাধীন হওয়া একটি যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশ যা পুনর্গঠন করতে দায়িত্ব নিতে হবে যুবকদের। ঠিক তখনি বঙ্গবন্ধু আপনাকে দায়িত্ব দিলেন যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশ পুনর্গঠনে যুবকদের নিয়ে কাজ করার জন্য। আপনি প্রতিষ্ঠা করলেন যুব সমাজের প্রিয় প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। জাতীয় চার মূলনীতিকে সামনে রেখে শুরু করলেন যুবকদের নিয়ে যুবলীগের পথচলা। সকল প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে হয়েছেন যুব সমাজের আস্থার প্রতীক।

আপনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে বিশ্বস্ত ও আদরের মানুষ। বঙ্গবন্ধুর ছায়া হয়ে আপনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত নিজের বিশ্বস্ততার প্রমাণ রেখে গিয়েছেন। আপনি জেনে খুশি হবেন আপনার নিজ হাতে প্রতিষ্ঠিত সংগঠন যুবলীগের দায়িত্ব আজ আপনার সুযোগ্য উত্তরসূরি জ্যেষ্ঠ সন্তান আমাদের সকলের অত্যন্ত পছন্দের মানুষ শেখ ফজলে শামস পরশ এর হাতে। ভদ্র, নম্র, মেধা, দক্ষতা ও উচ্চশিক্ষায় আপনার সন্তান আজ যুব সমাজের কাছে এক জনপ্রিয় নাম।

আপনি জেনে ব্যথিত হবেন আপনার এই পবিত্র যুব প্রতিষ্ঠান কিছু অসাধু লোকের কারণে ইমেজ সংকটে পড়েছিল, তবে আনন্দের বিষয় রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা আপনার সন্তানকে দায়িত্ব দেওয়ার পর ইতোমধ্যে যুবলীগ সকল সংকটকে অতিক্রম করে নিজের মানবিক গুণাবলীর মাধ্যমে অত্যন্ত সফলতার সাথে সংগঠন পরিচালনা করে চলেছেন। আপনার সন্তানের নেতৃত্বে যুবলীগ আজ শুধুমাত্র যুব সমাজের কাছেই নয় সমগ্র বাঙালীর কাছে মানবিক যুবলীগে রূপান্তরিত হয়েছে।

শিশুবেলায় পিতামাতা হারা সেই শিশু পরশ আজ সমগ্র বাঙালীর কাছে হয়ে উঠেছে মানবিক যুবলীগের প্রবক্তা।শুধু তাই নয় তিনি একজন সফল রাজনীতিবিদের পাশাপাশি পেশায় একজন শিক্ষকও। এই অর্জনে পিতা হিসেবে আপনি যেমন গর্বিত তেমনি যুবলীগ কর্মী হিসেবে আমরা অনেক আনন্দিত।

হে নন্দিত যুবনেতা 

আপনাকে দেখার সৌভাগ্য আমার হয়নি ঠিকই কিন্তু আপনার সুযোগ্য সন্তানের কর্মী হিসেবে কাজ করার সৌভাগ্য ইতোমধ্যেই অর্জন করেছি। আমরা আপনার সন্তানের মধ্যে আপনার প্রতিচ্ছবি খুঁজে পাই। তার নেতৃত্বের গুণাবলী আমাদের মনে করিয়ে দেয় আপনার কথা।
বঙ্গবন্ধুর যেকোন প্রয়োজনে শেখ মনি যেমন বিশ্বস্ততার নাম ছিলে ঠিক তেমনি আপনার বোন রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার কাছে ইতোমধ্যে এক অপরিহার্য বিশ্বস্ত নাম আপনার রক্তের সুযোগ্য উত্তরসূরি শেখ পরশ।

আপনার কনিষ্ঠ সন্তান শেখ ফজলে নুর তাপস আইন অঙ্গনের এক পরিচিত মুখ এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের নগর পিতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

১৯৩৯ সালের ৪ ডিসেম্বর টুঙ্গিপাড়ার ঐতিহাসিক শেখ পরিবারে বাবা-মায়ের কোল আলোকিত করে আপনি এই দুনিয়ায় এসেছিলেন। জন্মদিনে আপনার প্রতি রইলো বিনম্র শ্রদ্ধা। এক গভীর ষড়যন্ত্রে আপনি আমাদের কাছ থেকে আকাশের তারা হয়ে চলে গিয়েছেন অনেক দূরে। জানি আর কখনো ফিরে আসবেন না। তবে জেনে রাখবেন আপনি উজ্জ্বল নক্ষত্র হয়ে বেঁচে আছেন বাংলার প্রতিটি যুবকের হৃদয়ে এবং অন্তরের মনি হয়ে বেঁচে থাকবেন সারাজীবন।
যেখানেই থাকুন, আপনি শান্তিতে থাকুন।

ইতি
আপনার আদর্শিক কর্মী
গাজী সারোয়ার হোসেন বাবু
সাংগঠনিক সম্পাদক 
ঢাকা মহানগর যুবলীগ (দক্ষিণ)

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন