¦
আখের অভাবে জয়পুরহাট সুগার মিলে মাড়াই বন্ধ : গুনতে হবে লোকসান

শাহজাহান সিরাজ মিঠু ,জয়পুরহাট থেকে | প্রকাশ : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

আখ থেকে চিনি আহরণের হার গত ১৫ বছরের রেকর্ড ভাঙলেও মাড়াইয়ের জন্য প্রয়োজনীয় আখের অভাবে চলতি মৌসুমে দেশের বৃহত্তম চিনিকল জয়পুরহাট সুগার মিলস্ লিমিটেডের চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হয়নি। মাত্র ৬০ দিন অর্থাৎ ২ মাসের মাথায় বন্ধ করে দিতে হয়েছে এ মিলের আখ মাড়াই কার্যক্রম। ফলে অন্যান্য মৌসুমের মতো এবারও বড় অংকের লোকসান গুনতে হবে মিলটিকে। তবে এ মুহূর্তে লোকসানের পরিমাণ ঠিক কত তা জানাতে পারেনি সুগার মিল কর্তৃপক্ষ। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ২০১৩-১৪ মৌসুমের প্রায় ৩০ কোটি টাকার লোকসানের বোঝা মাথায় নিয়ে গত বছরের ১২ ডিসেম্বর জয়পুরহাট সুগার মিলস্ লিমিটেডের ২০১৪-২০১৫ মৌসুমের ৫২তম আখ মাড়াই শুরু হয়েছিল। প্রচলিত প্রথার বাইরে চিনিকল নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকার একজন প্রবীণ আখচাষী ও এ চিনিকলের একজন প্রবীণ মেকানিক যৌথভাবে ক্যান কেরিয়ারে (আখের ডোঙায়) আখ নিক্ষেপ করে এ চিনিকলে আখ মাড়াই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছিলেন। ২০১৪-২০১৫ আখ মাড়াই মৌসুমে এ মিলে ৯০ হাজার মেট্রিক টন আখ মাড়াই করে ৬৫ কর্মদিবসে মোট ৬ হাজার ৫২৫ মেট্রিক টন চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হয়েছিল। আখ থেকে চিনি আহরণের হার ধরা হয়েছিল ৭ দশমিক ২৫ শতাংশ। সে অনুযায়ী এবার লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে চিনি আহরণ দশমিক ৩ শতাংশ বেশি হলেও আখ স্বল্পতার কারণে ধার্যকৃত ৬৫ কর্মদিবসের স্থলে ৬০ কর্মদিবসেই মিলটি বন্ধ হয়ে যায়। এবার মোট ৮১ হাজার ৬০৬ মেট্রিক টন আখ মাড়াই করে গত ১০ ফেরুয়ারি (মঙ্গলবার) রাতে মিলটিতে চলতি মৌসুমের আখ মাড়াই কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। ফ্যাক্টরিতে প্রসেসিং শেষে বৃহস্পতিবার এ মিলে সর্বমোট চিনি পাওয়া গেছে (উৎপাদন হয়েছে) ৫ হাজার ৮৪০ মেট্রিক টন হয়। যা চলতি মৌসুমে (ধার্যকৃত) লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৬৮৫ মেট্রিক টন এবং গত মৌসুমের চেয়ে প্রায় ৩ হাজার মেট্রিক টন কম হয়েছে। অথচ আখ মাড়াইয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯০ হাজার মেট্রিক টন। ওই পরিমাণ আখ মাড়াই করতে পারলে চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হতো বলে দাবি সুগার মিল কর্তৃপক্ষের। জয়পুরহাট সুগার মিলস্ লিমিটেডের জিএম (কৃষি) শাহ্নুর রেজা জানান, আখের মূল্য কম হওয়ায় চাষীরা আখ চাষ থেকে বিরত থাকছেন। সেই সঙ্গে কিছু চাষী মিলে আখ সরবরাহ না করে গুড় তৈরিতে ব্যবহার করছেন। তাই চাহিদার চেয়ে আখের সরবরাহ কম হওয়ার কারণে চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি। চলতি মৌসুমে চিনিকল নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় আখের চাষ হয়েছিল ৯ হাজার ৫৩০ একর জমিতে। এ ব্যাপারে জয়পুরহাট সুগার মিলস্ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আবদুস সালাম জানান, আখ স্বল্পতার কারণে এবার নির্ধারিত সময়ের আগে এ মিলের আখ মাড়াই বন্ধ করে দিতে হয়েছে। আখ স্বল্পতার কারণ বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি আরও বলেন, গত বছর সময়মতো আখ চাষীদের পাওনা পরিশোধ করতে না পারায় চিনিকল নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকার সংশ্লিষ্ট চাষীরা তাদের প্রায় ১ হাজার একর জমিতে আখের পরিবর্তে অন্য ফসলের চাষ করেছিল। এতে প্রায় ১৫ হাজার মেট্রিক টন আখ কম উৎপাদন হয়েছিল। তাই মাড়াইয়ের জন্য মিলে চাহিদা মাফিক আখ পাওয়া যায়নি। তবে আগামী ২০১৫-১৬ মৌসুমে মাড়াইয়ের জন্য আখের সমস্যা হবে না। কারণ ওই মৌসুমে মাড়াইয়ের লক্ষ্যে অনেক বেশি আখের চাষ হয়েছে। আখ চাষের প্রতি চাষী আরও বেশি উৎসাহিত করতে আখের মূল্য বাড়ান হচ্ছে।
বাংলার মুখ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close