রাজশাহীর আশা বাঁচিয়ে রাখল কুমিল্লা

  স্পোর্টস ডেস্ক ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৭:৪৬ | অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহী,

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসকে হারাতে পারলেই প্লে-অফে চলে যেত ঢাকা ডায়নামাইটস। শেষ পর্যন্ত জয় ছিনিয়ে নিতে পারল না সাকিব বাহিনী। টানটান উত্তেজনার ম্যাচে ১ রানে হেরে গেল তারা। ডায়নামাইটসদের হারে সুপার ফোরে খেলার আশা বেঁচে রইল রাজশাহী কিংসের।

১২ ম্যাচে ৬টি করে জয়-পরাজয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের চতুর্থ স্থানে রাজশাহী কিংস। কুমিল্লার বিপক্ষে হারায় ঢাকারও পয়েন্ট দাঁড়ালো ১১ ম্যাচে ১২। এতেই মিরাজ বাহিনীর আশা জিইয়ে থাকল। আশা থাকল রাজধানীর দলটিরও। আরও একটি ম্যাচ হাতে আছে তাদের। এজন্য আসছে ম্যাচে জিততেই হবে সাকিবদের। জয় ভিন্ন কিছু হলে শেষ চারের টিকিট পেয়ে যাবে বরেন্দ্রভূমির দল। আর শনিবারের ম্যাচে জয় পেলে দুই দলের পয়েন্ট সমান হলেও নেট রানরেটে এগিয়ে কোয়ালিফায়ারের ছাড়পত্র পাবে ঢাকা।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ভূমিকাতেই হোঁচট খায় ঢাকা। মেহেদী হাসানের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে ফেরেন উপুল থারাঙ্গা।পর পরই মিজানুর রহমানকে তুলে নিয়ে ধাক্কা দেন মোশাররফ হোসেন। এর জের না কাটতেই রনি তালুকদারকে সরাসরি বোল্ড করে চাপে ফেলেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। এর মধ্যে সাকিব আল হাসানকে বোল্ড করে ফিরিয়ে চাপটা দ্বিগুণ করেন মেহেদি।

পরে কাইরন পোলার্ডকে নিয়ে খেলা ধরেন সুনিল নারাইন।প্রথমে ধীর-লয়ে হাঁটেন তারা। ক্রিজে সেট হলে ছোটাতে শুরু করেন স্ট্রোকের ফুলঝুরি। এতেই ঘটে বিপত্তি। শহীদ আফ্রিদির বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে ওয়াহাব রিয়াজের হাতে ধরা পড়েন তিনি। ফেরার আগে ২৪ বলে ২ চারে সংগ্রামী ২২ রান করেন এ ক্যারিবিয়ান।

নারাইন ফিরলে দলকে এগিয়ে নিয়ে যান কাইরন পোলার্ড। ফলে জয়ের স্বপ্ন দেখতে শুরু করে ঢাকা। কিন্তু মুহূর্তেই সেই স্বপ্নে বিশাল ধাক্কা দেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। পরপর দুই বলে সেট ব্যাটসম্যান পোলার্ড ও নুরুল হাসানকে ফিরিয়ে দেন তিনি। এবার জয়ের সম্ভাবনা দেখা দেয় কুমিল্লার।

তবে ঢাকার ভরসা হয়েছিলেন আন্দ্রে রাসেল। একপ্রান্তে ব্যাটসম্যানরা এলে-গেলেও তার স্টিম রোলার চলেছে। এর মাঝে রিয়াজের বলির পাঁঠা হন শুভাগত হোম। আর রুবেল হোসেন এলবিডব্লিউ করেন সাইফউদ্দিন। শেষদিকে রোবটের মতো চেষ্টা করেও দলকে জেতাতে পারেননি রাসেল। ২৩ বলে ২ চারের বিপরীতে ৩ ছক্কায় ৩০ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন এ ক্যারিবিয়ান। শেষ পর্যন্ত নখ কামড়ানো ম্যাচে ১ রানে জিতে যায় কুমিল্লা। এ জয়ে ১১ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের চূড়ায় উঠল ইমরুল বাহিনী। ৪ ওভারে ১ মেডেনসহকারে ২২ রান খরচায় ৪ উইকেট নিয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন সাইফ।

ঢাকার বিপক্ষে টস হেরে ব্যাট করতে নামে কুমিল্লা। সূচনাটা হয় দুরন্ত। উড়ন্ত সূচনা এনে দেন তামিম ইকবাল ও এভিন লুইস। ৩৮ রানে লুইসকে সরাসরি বোল্ড করে ঢাকাকে প্রথম সাফল্য এনে দেন সুনিল নারাইন। এরপরই পথ হারায় ভিক্টোরিয়ানসরা।

প্রাথমিক ধাক্কা কাটিয়ে ওঠার আগেই ফেরেন আনামুল হক। রুবেল হোসেনের শিকার হওয়ার আগে রানের খাতায় খুলতে পারেননি তিনি। খানিক পরই শুভাগত হোমের বলে রুবেল হোসেনের অসাধারণ ক্যাচে পরিণত হন দারুণ খেলতে থাকা তামিম ইকবাল। সাজঘরে ফেরত আসার আগে ড্যাশিং ওপেনার খেলেন ২০ বলে ৪ চার ও ২ ছক্কায় ৩৮ রানের নান্দনিক ইনিংস।

তামিমের বিদায়ে চাপে পড়ে কুমিল্লা। এর মধ্যে আস্থার প্রতিদান দিতে পারেননি ইনফর্ম শামসুর রহমান। সাকিব আল হাসানের এলবিডব্লিউ হয়ে ফেরেন তিনি। পরে অধিনায়কোচিত কিছু করে দেখাতে পারেননি ইমরুল কায়েসও। দুই অধিনায়কের লড়াইয়ে হার মানেন তিনি। ঢাকা অধিনায়কের বলে আন্দ্রে রাসেলকে লোপ্পা ক্যাচ দিয়ে ফেরেন কুমিল্লা অধিনায়ক।

ফলে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয় দলটি। এতে দাঁড়িয়ে লড়াইয়ের আভাস দেন শহীদ আফ্রিদি। তবে খুব বেশিদূর যেতে পারেননি তিনি। ১৭ বলে ১ চারে ব্যক্তিগত ১৮ রান করে নারাইনের শিকার হন তিনি। তারপর সেই বিপর্যয় থেকে ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি কুমিল্লা। শেষ পর্যন্ত ১২৭ রানে গুঁড়িয়ে যায় তারা।

আফ্রিদির পর রানআউটে কাটা পড়ে যাওয়া-আসার মিছিলে যোগ দেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দীন। সেই রেশ না কাটতেই রুবেল হোসেনের বলে উইকেটের পেছনে নুরুল হাসানের গ্লাভসবন্দি হয়ে ফেরেন থিসারা পেরেরা। অল্পক্ষণ পর তাদের দেখানো পথ অনুসরণ করে রুবেলের বলে উপুল থারাঙ্গাকে ক্যাচ দিয়ে আসেন ওয়াহাব রিয়াজ।

ধারাবাহিক বিরতিতে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন মেহেদী হাসান। তার শিকারীও রুবেল, স্কুপ করতে গিয়ে বোল্ড হয়ে ফেরেন তিনি। ফেরার আগে ১৫ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ২০ রানের ক্যামিও খেলেন মেহেদী। মূলত শেষদিকে তার ২০ ও রিয়াজের ১৬ রানে ১২৭ রানের পুঁজি পায় কুমিল্লা। ঢাকার হয়ে রুবেল একাই নেন ৪ উইকেট। ২টি করে উইকেট ঝুলিতে ভরে তাকে সমর্থন জোগান নারাইন ও সাকিব।

ঘটনাপ্রবাহ : রাজশাহী কিংস: বিপিএল ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
--
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×