মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে অপ্রীতিকর মন্তব্য, হল ছাড়া জাবি শিক্ষার্থী

  জাবি প্রতিনিধি ২১ মে ২০১৯, ১৮:১৫ | অনলাইন সংস্করণ

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের গেট

মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী জাতির শ্রেষ্ট সন্তানদের নিয়ে অপ্রীতিকর মন্তব্য করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে হল থেকে বিতাড়িত হয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) এক শিক্ষার্থী।

ইতিহাস বিভাগের চতুর্থ বর্ষের (৪৪ ব্যাচ) মো. তারেকুল ইসলাম শাকিল রোববার রাতে তার নিজের ফেসবুক ওয়ালে একটি নিউজ শেয়ার দিয়ে তার ক্যাপশনে আপত্তিকর মন্তব্য করেন। স্ট্যাটাসে নেতিবাচক সমালোচনা শুরু হলে কিছুক্ষণ পর সেটি তুলে নেন শাকিল।

শাকিল তার ফেসবুকে ‘মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা ৩৫ হাজার করার দাবি’ শিরোনামে একটি অনলাইনের নিউজ শেয়ার করে ক্যাপশনে লেখেন, ‘কেন যে ১৯৭১ সালে জন্ম নেই নাই। কৃষকের ফসলের দাম নিয়ে এদের কোনো ভাবনা নেই। শ্রমিকের মুজুরি নিয়ে নেই। দুর্নীতি নিয়ে কোনো কথা নেই। জনগণের অধিকার চিন্তা নিয়ে নেই। তারা আছে তাদের বিনিয়োগ উসুলের চিন্তায়। এরা কি করে মুক্তিযোদ্ধা হয়? দেশে কি আদৌ কোনো মুক্তিযোদ্ধা আছে?? এই চোর বাটপার ও তাদের উত্তরসূরীদের একদিন জনগণ দেশ ছাড়া করবে। এরাই আসল চেতনা ব্যবসায়ী, এরাই আসল রাজাকার।’

তার ওই স্ট্যাটাসের স্ক্রিনশট নিয়ে সোমবার দুপুরে প্রক্টর বরাবর অভিযোগ দেয় ‘মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড’ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতারা। এর পরিপ্রেক্ষিতে শাকিলকে শোকজ করে প্রক্টর অফিস। বিকালেই শাকিলকে প্রক্টর অফিসে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

জানা গেছে, শাকিল শহীদ সালাম-বরকত হলে গেলে বিকাল থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ছাত্রলীগ নেতারকর্মীরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। ছাত্রলীগের জিজ্ঞাসাবাদের পরে রাত ১২টার দিকে শাকিল হল থেকে বের হয়ে যায়।

এদিকে মঙ্গলবার সকালে শাহীদ সালাম বরকত হলের ছাত্রলীগ শাকিলকে হল থেকে বিতাড়ণের দাবি জানিয়ে প্রাধ্যক্ষ বরাবর চিঠি দিয়েছে।

যোগাযোগ করা হলে শাকিল যুগান্তরকে বলেন, ‘আমি না জেনে-বুঝে ওই মন্তব্য করেছিলাম। কিছুক্ষণ পর সেটি মুছেও ফেলেছি। প্রক্টরের কাছে আমি ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছি।’

তবে হলে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তার সঙ্গে কি আচরণ করেছে কিংবা কেন সে হল থেকে বের হয়ে গেছে সে বিষয়ে কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।

শহীদ সালাম বরকত হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক আলী আযম তালুকদার বলেন, ‘শাকিল হলে থাকতে পারবে কি পারবে না সে বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি।’ তবে শাকিলকে যে হল থেকে বের করে দেয়া হয়েছে সে বিষয়ে অধ্যাপক আযমের কাছে কোনো তথ্য নেই।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ফিরোজ-উল-হাসান বলেন, ‘আমরা শাকিলকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। শৃঙ্খলা কমিটিতে এ বিষয়ে প্রতিবেদন দেয়া হবে। শৃঙ্খলা কমিটি পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে।’

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর
-

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×