সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধে ছাত্র অধিকার পরিষদের নিন্দা 
jugantor
সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধে ছাত্র অধিকার পরিষদের নিন্দা 

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৫:২২:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

অনুমতি ছাড়া রাজধানীতে মিছিল-সভা-সমাবেশ করা যাবে না বলে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) নির্দেশনার প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ।

বুধবার মধ্যরাতে গণমাধ্যমে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে ডিএমপির ওই নির্দেশনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায় বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ। বিজ্ঞপ্তিতে স্বাক্ষর করেছেন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মুহাম্মদ রাশেদ খান।
ছাত্র অধিকার পরিষদ মনে করে, বিজয়ের মাসে ডিএমপির এ ধরনের নিষেধাজ্ঞা অগণতান্ত্রিক, জনবিরোধী ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পরিপন্থী। পরিষদ এ সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে৷ একই সঙ্গে সভা, সমাবেশ করার সাংবিধানিক অধিকার হরণ করে সংবিধান পরিপন্থী কাজ থেকে ডিএমপি কর্তৃপক্ষকে বিরত থাকার আহ্বান জানায়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দ্রব্যমুল্যের ঊর্ধ্বগতি, করোনা মহামারিতে সরকারি দলের নেতা-কর্মীদের দুর্নীতি, লুটপাটসহ সাম্প্রতিক সময়ের নানা অপকর্মের কারণে সরকারের প্রতি যে জনরোষ তৈরি হয়েছে সেটি রুখতেই সরকার ও প্রশাসন এমন মানবতাবিরোধী ও মৌলিক অধিকার পরিপন্থী সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷

সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধে ছাত্র অধিকার পরিষদের নিন্দা 

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৩:২২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

অনুমতি ছাড়া রাজধানীতে মিছিল-সভা-সমাবেশ করা যাবে না বলে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) নির্দেশনার প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ।

বুধবার মধ্যরাতে গণমাধ্যমে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে ডিএমপির ওই নির্দেশনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায় বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ। বিজ্ঞপ্তিতে স্বাক্ষর করেছেন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মুহাম্মদ রাশেদ খান।  
ছাত্র অধিকার পরিষদ মনে করে, বিজয়ের মাসে ডিএমপির এ ধরনের নিষেধাজ্ঞা অগণতান্ত্রিক, জনবিরোধী ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পরিপন্থী। পরিষদ এ সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে৷ একই সঙ্গে সভা, সমাবেশ করার সাংবিধানিক অধিকার হরণ করে সংবিধান পরিপন্থী কাজ থেকে ডিএমপি কর্তৃপক্ষকে বিরত থাকার আহ্বান জানায়।
 
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দ্রব্যমুল্যের ঊর্ধ্বগতি, করোনা মহামারিতে সরকারি দলের নেতা-কর্মীদের দুর্নীতি, লুটপাটসহ সাম্প্রতিক সময়ের নানা অপকর্মের কারণে সরকারের প্রতি যে জনরোষ তৈরি হয়েছে সেটি রুখতেই সরকার ও প্রশাসন এমন মানবতাবিরোধী ও মৌলিক অধিকার পরিপন্থী সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷