করোনায় লাইফ সাপোর্টে ইবি ছাত্র উপদেষ্টা প্রফেসর সাইদুর
jugantor
করোনায় লাইফ সাপোর্টে ইবি ছাত্র উপদেষ্টা প্রফেসর সাইদুর

  ইবি প্রতিনিধি  

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ২২:০৬:৪৮  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনায় শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ছাত্র উপদেষ্টা ও বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. সাইদুর রহমান। ফুসফুস জটিলতার কারণে শারীরিক অবস্থা অবনতি হওয়ায় বুধবার ভোরে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে তিনি ইবনে সিনা হাসপাতালের কল্যাণপুর শাখায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. রশিদুজ্জামান।

পারিবারিক ও বিভাগীয় সূত্রে জানা যায়, কিছুটা সুস্থ হওয়ার পর ফের বেশ কয়েক দিন ধরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। স্পেশালাইজড হাসপাতালে গত তিন দিন আগে বিদ্যুৎ বিভ্রাট হওয়ায় তাকে ইবনে সিনা হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

বুধবার মাঝরাতে সাইদুর রহমানের অক্সিজেন সেচুরেশন খুবই কমে যায়। রক্তচাপও মারাত্মকভাবে কমে যায়। পরে কার্বন ডাই-অক্সাইড বেড়ে যাওয়ায় ভোরের দিকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। অক্সিজেন ও ফুসফুস একেবারেই কাজ করছিল না। ডাক্তার বিষয়টিকে ক্রিটিক্যাল বলে মনে করছেন। বর্তমানে তাকে ঘুমের ইনজেকশন দিয়ে রাখা হয়েছে।

এর আগে গত ২৭ জানুয়ারি অধ্যাপক ড. সাইদুর রহমানের সস্ত্রীক করোনা পজিটিভ আসে। পরবর্তীতে ফুসফুসের জটিলতা বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ২ ফেব্রুয়ারি থেকে তিনি ঢাকার বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। সেখানে গত ১১ ফেব্রুয়ারি তার অবস্থার উন্নতি হয়। সেদিন তাকে দুপুরের দিকে হাইডেপেন্সি ইউনিট (এইচডিইউ) থেকে কেবিনে নেওয়া হয়।

করোনায় লাইফ সাপোর্টে ইবি ছাত্র উপদেষ্টা প্রফেসর সাইদুর

 ইবি প্রতিনিধি 
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১০:০৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনায় শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ছাত্র উপদেষ্টা ও বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. সাইদুর রহমান। ফুসফুস জটিলতার কারণে শারীরিক অবস্থা অবনতি হওয়ায় বুধবার ভোরে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে তিনি ইবনে সিনা হাসপাতালের কল্যাণপুর শাখায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. রশিদুজ্জামান।

পারিবারিক ও বিভাগীয় সূত্রে জানা যায়, কিছুটা সুস্থ হওয়ার পর ফের বেশ কয়েক দিন ধরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। স্পেশালাইজড হাসপাতালে গত তিন দিন আগে বিদ্যুৎ বিভ্রাট হওয়ায় তাকে ইবনে সিনা হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

বুধবার মাঝরাতে সাইদুর রহমানের অক্সিজেন সেচুরেশন খুবই কমে যায়। রক্তচাপও মারাত্মকভাবে কমে যায়। পরে কার্বন ডাই-অক্সাইড বেড়ে যাওয়ায় ভোরের দিকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। অক্সিজেন ও ফুসফুস একেবারেই কাজ করছিল না। ডাক্তার বিষয়টিকে ক্রিটিক্যাল বলে মনে করছেন। বর্তমানে তাকে ঘুমের ইনজেকশন দিয়ে রাখা হয়েছে।

এর আগে গত ২৭ জানুয়ারি অধ্যাপক ড. সাইদুর রহমানের সস্ত্রীক করোনা পজিটিভ আসে। পরবর্তীতে ফুসফুসের জটিলতা বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ২ ফেব্রুয়ারি থেকে তিনি ঢাকার বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। সেখানে গত ১১ ফেব্রুয়ারি তার অবস্থার উন্নতি হয়। সেদিন তাকে দুপুরের দিকে হাইডেপেন্সি ইউনিট (এইচডিইউ) থেকে কেবিনে নেওয়া হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস