ইউনাইটেড হাসপাতালে বিরল সার্জারি
jugantor
ইউনাইটেড হাসপাতালে বিরল সার্জারি

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:০২:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে বিরল ইনগুইনাল ব্লাডার হার্নিয়া সার্জারি সম্পন্ন করা হয়েছে। 

সম্প্রতি হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট অধ্যাপক ডা. আনিসুর রহমান একজন অশিতিপর পুরুষ রোগীর ইনগুইনাল ব্লাডার হার্নিয়ার সার্জারি সম্পন্ন করেন। এ ধরনের সার্জারি দেশে বিরল।
 
বিশেষজ্ঞরা জানান, মানব শরীরের পেটের বাম-ডান দুদিকেই সামনে কুঁচকির কাছে অবস্থিত ইনগুইনাল ক্যানেলে অন্ত্রের নাড়ী ঢুকে গেলে তাকে ইনগুইনাল হার্নিয়া বলে। এই হার্নিয়ার মাত্র ১ থেকে ৫ শতাংশের ক্ষেত্রে অতি বিরল প্রকৃতির হয়ে থাকে।  

এই ইনগুইনাল ব্লাডার হার্নিয়া দেখা যায়, যা সাধারণত পুরুষ রোগীর ক্ষেত্রে। শরীরের ডান দিকে ও বিশেষ করে মূত্র তন্ত্রের ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীর মধ্যেই বেশি পরিলক্ষিত হয়। এই রোগীটিরও প্রোস্টেট ক্যান্সারের জন্য পূর্বেই প্রোস্টেট অপসারণ সার্জারি করা হয়েছে।

বিরল ইনগুইনাল ব্লাডার হার্নিয়ার অপারেশন সম্পর্কে অধ্যাপক আনিসুর রহমান বলেন, এই ধরণের হার্নিয়ার প্রকৃতি অধিকাংশ ক্ষেত্রে অপারেশন চলাকালীন সময়ে নির্ণিত হয়। কাজেই সার্জন যথেষ্ট সতর্ক ও সচেতন না থাকলে, হার্নিয়ার কারণে সৃষ্ট পেটের দুর্বল অংশ মেরামত করার সময় হার্নিয়া থলিতে অন্ত্রের নাড়ীর সাঙ্গে ঢুকে যাওয়া মূত্রাশয় বা ইউরিনারী ব্লাডারের ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি থাকে। কেবলমাত্র একজন অভিজ্ঞ ও দক্ষ সার্জনই রোগীর উপসর্গ ও রোগের পূর্ব ইতিহাস যাচাই করে কদাচিৎ পরিলক্ষিত এমন হার্নিয়ার ঝুঁকি বিবেচনায় রাখে। 

তিনি বলেন, এই রোগীর ক্ষেত্রে হার্নিয়ার থলিতে ঢুকে যাওয়া অন্ত্রের নাড়ী সতেজ ছিলো এবং সেটির সঙ্গে সঙ্গে মূত্রাশয়টি ও ক্ষতস্থানে নিরাপদে পুনঃস্থাপিত করা হয়েছে।

ইউনাইটেড হাসপাতালে বিরল সার্জারি

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:০২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে বিরল ইনগুইনাল ব্লাডার হার্নিয়া সার্জারি সম্পন্ন করা হয়েছে।

সম্প্রতি হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট অধ্যাপক ডা. আনিসুর রহমান একজন অশিতিপর পুরুষ রোগীর ইনগুইনাল ব্লাডার হার্নিয়ার সার্জারি সম্পন্ন করেন। এ ধরনের সার্জারি দেশে বিরল।

বিশেষজ্ঞরা জানান, মানব শরীরের পেটের বাম-ডান দুদিকেই সামনে কুঁচকির কাছে অবস্থিত ইনগুইনাল ক্যানেলে অন্ত্রের নাড়ী ঢুকে গেলে তাকে ইনগুইনাল হার্নিয়া বলে। এই হার্নিয়ার মাত্র ১ থেকে ৫ শতাংশের ক্ষেত্রে অতি বিরল প্রকৃতির হয়ে থাকে।

এই ইনগুইনাল ব্লাডার হার্নিয়া দেখা যায়, যা সাধারণত পুরুষ রোগীর ক্ষেত্রে। শরীরের ডান দিকে ও বিশেষ করে মূত্র তন্ত্রের ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীর মধ্যেই বেশি পরিলক্ষিত হয়। এই রোগীটিরও প্রোস্টেট ক্যান্সারের জন্য পূর্বেই প্রোস্টেট অপসারণ সার্জারি করা হয়েছে।

বিরল ইনগুইনাল ব্লাডার হার্নিয়ার অপারেশন সম্পর্কে অধ্যাপক আনিসুর রহমান বলেন, এই ধরণের হার্নিয়ার প্রকৃতি অধিকাংশ ক্ষেত্রে অপারেশন চলাকালীন সময়ে নির্ণিত হয়। কাজেই সার্জন যথেষ্ট সতর্ক ও সচেতন না থাকলে, হার্নিয়ার কারণে সৃষ্ট পেটের দুর্বল অংশ মেরামত করার সময় হার্নিয়া থলিতে অন্ত্রের নাড়ীর সাঙ্গে ঢুকে যাওয়া মূত্রাশয় বা ইউরিনারী ব্লাডারের ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি থাকে। কেবলমাত্র একজন অভিজ্ঞ ও দক্ষ সার্জনই রোগীর উপসর্গ ও রোগের পূর্ব ইতিহাস যাচাই করে কদাচিৎ পরিলক্ষিত এমন হার্নিয়ার ঝুঁকি বিবেচনায় রাখে।

তিনি বলেন, এই রোগীর ক্ষেত্রে হার্নিয়ার থলিতে ঢুকে যাওয়া অন্ত্রের নাড়ী সতেজ ছিলো এবং সেটির সঙ্গে সঙ্গে মূত্রাশয়টি ও ক্ষতস্থানে নিরাপদে পুনঃস্থাপিত করা হয়েছে।