পল্লবীতে ছেলের সামনে বাবাকে কুপিয়ে হত্যা 
jugantor
পল্লবীতে ছেলের সামনে বাবাকে কুপিয়ে হত্যা 

  মিরপুর প্রতিনিধি  

১৬ মে ২০২১, ২০:৫২:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

পল্লবীতে হত্যার ঘটনায় স্বজনদের আহাজারি।

নগরীর পল্লবীতে ছেলের সামনে বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। রোববার বিকাল সাড়ে চার টায় পল্লবীর ১২ নম্বর ডি ব্লক ৩১ নম্বর রোডের ৩৬ নম্বর বাড়ির সামনে ঘটনাটি ঘটে। নিহত ওই ব্যক্তির নাম শাহিন উদ্দিন (৩৪)। তিনি পল্লবীর ১২ নম্বর সিরামিক রোডের বাসিন্দা।

নিহত শাহিনউদ্দিনের মাশরাফি নামে ৭ বছরের একটি ছেলে রয়েছে। ঘটনার সময় সে তার বাবার সঙ্গে ছিল। মাশরাফি জানায়, বিকালে সে তার বাবার সঙ্গে মোটরসাইকেলে ঘুরছিল। এমন সময় সুমন নামে এক যুবক তার বাবাকে ফোন করে ৩১ নম্বর রোডে দেখা করার কথা বলে। সেখানে পৌঁছালে তাকে (মাশরাফি) মটরসাইকেল থেকে নামিয়ে তার বাবার সঙ্গে বাদানুবাদে জড়ায় সুমন নামে ওই ব্যক্তি। এরপর তার চোখের সামনেই তার বাবাকে লাথি মেরে মোটরসাইকেল থেকে ফেলে দেয় সুমন সহ অঞ্জাত আরও ৬-৭ জন। এরপর তারা তাকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। বাঁচার জন্য নিহত ওই ব্যক্তি পাশের একটি বাড়ির গ্যারেজে আশ্রয় নিলেও সন্ত্রাসীরা সেখানে ঢুকে তাকে কুপিয়ে হত্যা করে।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরেই সুমন বাহিনী এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। কিছুদিন আগেও সুমন বাহিনী নিহত ওই ব্যক্তিকে কুপিয়ে আহত করে। এ ঘটনায় ওই সময় পল্লবী থানায় মামলাও হয়।

এ দিকে স্থানীয়রা জানান সুমন স্থানীয় যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। ব্যাটারি চালিত রিকশার টোকেন বাণিজ্য, মাদক ও জুয়া খেলাসহ নানা অপকর্মে জড়িত সুমন বাহিনী। গত এক মাসের ব্যবধানে সুমন বাহিনীর বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় চারটি মামলা হয়েছে। পল্লবীর বহুল আলোচিত যুবলীগ নেতা আড্ডুর ছত্রছায়ায় দিনে দিনে বেপরোয়া গতিতে চলছে সুমন বাহিনী।

পল্লবী থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী বলেন, এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করা হয়েছে।

পল্লবীতে ছেলের সামনে বাবাকে কুপিয়ে হত্যা 

 মিরপুর প্রতিনিধি 
১৬ মে ২০২১, ০৮:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
পল্লবীতে হত্যার ঘটনায় স্বজনদের আহাজারি।
পল্লবীতে হত্যার ঘটনায় স্বজনদের আহাজারি। ছবি: যুগান্তর

নগরীর পল্লবীতে ছেলের সামনে বাবাকে কুপিয়ে  হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। রোববার বিকাল সাড়ে চার টায় পল্লবীর ১২ নম্বর ডি ব্লক ৩১ নম্বর রোডের ৩৬ নম্বর বাড়ির সামনে ঘটনাটি ঘটে। নিহত ওই ব্যক্তির নাম শাহিন উদ্দিন (৩৪)। তিনি পল্লবীর ১২ নম্বর সিরামিক রোডের বাসিন্দা। 

নিহত শাহিনউদ্দিনের মাশরাফি নামে ৭ বছরের একটি ছেলে রয়েছে। ঘটনার সময় সে তার বাবার সঙ্গে ছিল।  মাশরাফি জানায়,  বিকালে সে তার বাবার সঙ্গে মোটরসাইকেলে ঘুরছিল।  এমন সময়  সুমন নামে এক যুবক তার বাবাকে ফোন করে  ৩১ নম্বর রোডে দেখা করার কথা বলে। সেখানে পৌঁছালে তাকে (মাশরাফি) মটরসাইকেল থেকে নামিয়ে তার বাবার সঙ্গে বাদানুবাদে জড়ায় সুমন নামে ওই ব্যক্তি।  এরপর তার চোখের সামনেই তার বাবাকে লাথি মেরে মোটরসাইকেল থেকে ফেলে দেয় সুমন সহ অঞ্জাত  আরও ৬-৭ জন। এরপর তারা তাকে এলোপাতাড়ি  কোপাতে থাকে।  বাঁচার জন্য নিহত ওই ব্যক্তি পাশের একটি বাড়ির গ্যারেজে আশ্রয় নিলেও সন্ত্রাসীরা সেখানে ঢুকে  তাকে কুপিয়ে হত্যা করে। 

নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরেই সুমন বাহিনী এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। কিছুদিন আগেও সুমন বাহিনী নিহত ওই ব্যক্তিকে কুপিয়ে আহত করে। এ ঘটনায় ওই সময় পল্লবী থানায় মামলাও হয়।  
 
এ দিকে স্থানীয়রা জানান সুমন স্থানীয় যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। ব্যাটারি চালিত রিকশার টোকেন বাণিজ্য, মাদক ও জুয়া খেলাসহ নানা অপকর্মে জড়িত সুমন বাহিনী।  গত এক মাসের ব্যবধানে সুমন বাহিনীর বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় চারটি মামলা হয়েছে। পল্লবীর বহুল আলোচিত যুবলীগ নেতা আড্ডুর ছত্রছায়ায় দিনে দিনে বেপরোয়া গতিতে চলছে সুমন বাহিনী। 

পল্লবী থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী বলেন, এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করা হয়েছে। 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন