ফরহাদ হোসেন প্রতিমন্ত্রী হওয়ায় মেহেরপুরে আনন্দের বন্যা
jugantor
ফরহাদ হোসেন প্রতিমন্ত্রী হওয়ায় মেহেরপুরে আনন্দের বন্যা

  মেহেরপুর প্রতিনিধি  

০৬ জানুয়ারি ২০১৯, ২০:৪৮:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের প্রথম রাজধানী মুজিবনগর মেহেরপুর আসনে দ্বিতীয়বারের মতো নির্বাচিত এমপি ফরহাদ হোসেন দোদুল জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হওয়ায় মেহেরপুর উৎসবের শহরে পরিণত হয়েছে।

বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী মুজিবনগরের মেহেরপুরে এই প্রথম মন্ত্রী হলেন। এই খবরে তার বাড়ির সামনে হাজারো মানুষ ভিড় করে। শুরু হয় মিষ্টি বিতরণ।

ফরহাদ হোসেন এমপি থাকাকালে ব্যাপক উন্নয়ন ছাড়াও মেহেরপুরকে সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত জেলা গড়তে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

এমপি ফরহাদ হোসেন দোদুলের পিতা প্রয়াত মোহাম্মদ সহিউদ্দিন মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। তিনি ১৯৭০ সালে মেহেরপুর থেকে তৎকালীন পাকিস্থান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। স্বাধীনতা যুদ্ধের অন্যতম সংগঠক প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।

১৯৭৩ সালে মোহাম্মদ সহিউদ্দিন বাংলাদেশের প্রথম জাতীয় সংসদ সদস্য হিসেবে মেহেরপুর আসন থেকে নির্বাচিত হন এবং ৭৫ সালে মেহেরপুর জেলার গর্ভনর নিযুক্ত হন। তিনি ৮৬ সালেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

এই অঞ্চলের অবিসংবাদিত নেতা ৬৭ বছর বয়সে ১৯৯০ সালে মৃত্যু বরণ করেন। তিনি ছিলেন মেহেরপুরর অজাতশত্রু।

প্রয়াত সহিউদ্দীনের তৃতীয় পুত্র ফরহাদ হোসেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২য় বারের মতো এমপি নির্বাচিত হন। তিনি ঢাকা সিটি কলেজের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন।

ফরহাদ প্রতিমন্ত্রী হওয়ায় অভিনন্দন জানিয়েছেন মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেক, যুগ্ম সম্পাদক ইব্রাহিম শাহীন, মেহেরপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম রসুল, সাধারণ সম্পাদক বোরহান উদ্দীন চুন্নু, মুজিবনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সম্পাদক যথাক্রমে জিয়াউদীন বিশ্বাস ও আমাম হোসেন মিলু, জেলা যুবলীগের আহবায়ক মাহফুজুর রহমান রিটন, সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এর সাধারণ সম্পাদক শামীম জাহাঙ্গীর সেন্টু প্রমুখ।

ফরহাদ হোসেন প্রতিমন্ত্রী হওয়ায় মেহেরপুরে আনন্দের বন্যা

 মেহেরপুর প্রতিনিধি 
০৬ জানুয়ারি ২০১৯, ০৮:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের প্রথম রাজধানী মুজিবনগর মেহেরপুর আসনে দ্বিতীয়বারের মতো নির্বাচিত এমপি ফরহাদ হোসেন দোদুল জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হওয়ায় মেহেরপুর উৎসবের শহরে পরিণত হয়েছে।

বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী মুজিবনগরের মেহেরপুরে এই প্রথম মন্ত্রী হলেন। এই খবরে তার বাড়ির সামনে হাজারো মানুষ ভিড় করে। শুরু হয় মিষ্টি বিতরণ।

ফরহাদ হোসেন এমপি থাকাকালে ব্যাপক উন্নয়ন ছাড়াও মেহেরপুরকে সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত জেলা গড়তে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

এমপি ফরহাদ হোসেন দোদুলের পিতা প্রয়াত মোহাম্মদ সহিউদ্দিন মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। তিনি ১৯৭০ সালে মেহেরপুর থেকে তৎকালীন পাকিস্থান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। স্বাধীনতা যুদ্ধের অন্যতম সংগঠক প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।

১৯৭৩ সালে মোহাম্মদ সহিউদ্দিন বাংলাদেশের প্রথম জাতীয় সংসদ সদস্য হিসেবে মেহেরপুর আসন থেকে নির্বাচিত হন এবং ৭৫ সালে মেহেরপুর জেলার গর্ভনর নিযুক্ত হন। তিনি ৮৬ সালেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

এই অঞ্চলের অবিসংবাদিত নেতা ৬৭ বছর বয়সে ১৯৯০ সালে মৃত্যু বরণ করেন। তিনি ছিলেন মেহেরপুরর অজাতশত্রু।

প্রয়াত সহিউদ্দীনের তৃতীয় পুত্র ফরহাদ হোসেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২য় বারের মতো এমপি নির্বাচিত হন। তিনি ঢাকা সিটি কলেজের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন।

ফরহাদ প্রতিমন্ত্রী হওয়ায় অভিনন্দন জানিয়েছেন মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেক, যুগ্ম সম্পাদক ইব্রাহিম শাহীন, মেহেরপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম রসুল, সাধারণ সম্পাদক বোরহান উদ্দীন চুন্নু, মুজিবনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সম্পাদক যথাক্রমে জিয়াউদীন বিশ্বাস ও আমাম হোসেন মিলু, জেলা যুবলীগের আহবায়ক মাহফুজুর রহমান রিটন, সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এর সাধারণ সম্পাদক শামীম জাহাঙ্গীর সেন্টু প্রমুখ।