বিদ্যুৎস্পৃষ্ট স্বামীকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ গেল স্ত্রীরও

  ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি ০৭ আগস্ট ২০১৯, ১৮:৪১ | অনলাইন সংস্করণ

নিহতদের সন্তান ও স্বজনদের আহাজারি
নিহতদের সন্তান ও স্বজনদের আহাজারি

নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার উত্তর গয়াবাড়ি ধনীপাড়া গ্রামে সিলিং ফ্যানের সুইচে বিদ্যুতায়িত হয়ে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার দুপুরে এই ঘটনায় প্রাণে রক্ষা পায় নিহত দম্পত্তির তৃতীয় শ্রেণি পড়ুয়া মেয়ে রুবিনা। এ ঘটনায় এলাকায় মানুষজনের মাঝে আহাজারি ও শোকের ছায়া নেমে আসে।

নিহতরা হলেন ওই গ্রামের মনির উদ্দিনের ছেলে দিলীপ ইসলাম (৪৫) ও তার স্ত্রী আছিয়া বেগম (৪০)।

স্থানীয়রা জানান, ওই দম্পতির দুই মেয়ে ও এক ছেলে। বড় মেয়ের বিয়ে দিয়েছে সম্প্রতি। ছোট ছেলে ও মেয়ে ঘটনার সময় স্কুলে ছিল। বিদ্যুতায়িত হয়ে স্বামী-স্ত্রী ঘরের ভেতর কখন মরে পড়ে ছিল তা কেউ বলতে পারেনি।

তবে দুপুর ২টার দিকে দম্পতির ছোট মেয়ে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী রুবিনা স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে আসে। সে ঘরে ঢুকে বাবা ও মাকে মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখে তাদের হাত ধরতে গেলে সেও বিদ্যুতের ধাক্কা খেয়ে ছিটকে পড়ে।

এ সময় রুবিনার আর্তচিৎকারে গ্রামবাসী ছুটে এসে ওই বাড়ির বিদ্যুতের মেইন সুইচ অফ করে ওই দম্পত্তির লাশ উদ্ধার করে।

পুলিশ জানায়, দিলীপ ইসলাম তার ঘরে ফ্যানের সুইচ ঠিক করছিলেন। এ সময় তিনি বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে পড়েন। তাকে বাঁচাতে গিয়ে তার স্ত্রী আছিয়া বেগমও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা যান।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ডিমলা থানার ওসি মফিজ উদ্দিন শেখ জানান, ওই বাড়ির ঘরের সিলিং ফ্যানের সুইচসহ দিলীপ ইসলাম ঘরের মেঝেতে পড়ে ছিলেন। আর ঘরের মেঝে সে সময় তার স্ত্রী পানি নিয়ে পরিষ্কার করছিলেন। ফলে স্বামীকে বাঁচাতে গিয়ে স্ত্রীও বিদ্যুতায়িত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×