কোরবানির পশুর হাটে চালাতে জাল টাকা তৈরি, গ্রেফতার ৩
jugantor
কোরবানির পশুর হাটে চালাতে জাল টাকা তৈরি, গ্রেফতার ৩

  টাঙ্গাইল প্রতিনিধি  

২৩ জুলাই ২০২০, ২২:০৯:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলে ২ লাখ ৭৭ হাজার ৫০০ টাকার জাল নোট এবং জাল টাকা তৈরির সরঞ্জামসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। এ সব জালনোট কোরবানির পশুর হাটে চালানোর জন্য তৈরি করা হচ্ছিল বলে গ্রেফতারকৃতরা জানিয়েছে।

বৃহস্পতিবার তাদের আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাতদিনের রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে বাসাইল উপজেলার কাশিল বটতলা গ্রামের রবি মিয়ার ছেলে আকাশ মাহমুদ হারেজ (৩০), কাশিল পশ্চিমপাড়া গ্রামের মৃত আজমত  খাঁর ছেলে আয়নাল খান (৩৫) ও নাকাছিম গ্রামের বানিজ মিয়ার ছেলে রায়হান মিয়া (২০)।

টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বৃহস্পতিবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে জানান, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (উত্তর) ওসি সাজ্জাদ হোসেনের নেতৃত্বে একটি দল মঙ্গলবার রাতে সদর উপজেলার করটিয়া পূর্বপাড়ায় অভিযান চালায়। সেখানে জনৈক সোনা মিয়ার বাসার দ্বিতীয় তলা থেকে ভাড়াটিয়া তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ২ লাখ ৭৭ হাজার ৫০০ জাল টাকা (সবগুলোই পাঁচশত টাকার নোট), জাল টাকা তৈরির কাজে ব্যবহৃত একটি কম্পিউটার, প্রিন্টার, ইস্ত্রি, পেপার কাটারসহ জাল টাকা তৈরির বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করে।

জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা জানিয়েছে, কোরবানির পশুর হাটে চালানোর জন্য তারা জাল টাকার নোট তৈরি করছিল।

বুধবার রাতে গোয়েন্দা পুলিশের এসআই  মো. নুরুজ্জামান বাদী হয়ে টাঙ্গাইল সদর থানায় ওই তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন।

গোয়েন্দা পুলিশের ওসি সাজ্জাদ হোসেন জানান, গ্রেফতারকৃত তিনজনকে বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইল জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে সাতদিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে।

কোরবানির পশুর হাটে চালাতে জাল টাকা তৈরি, গ্রেফতার ৩

 টাঙ্গাইল প্রতিনিধি 
২৩ জুলাই ২০২০, ১০:০৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলে ২ লাখ ৭৭ হাজার ৫০০ টাকার জাল নোট এবং জাল টাকা তৈরির সরঞ্জামসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। এ সব জালনোট কোরবানির পশুর হাটে চালানোর জন্য তৈরি করা হচ্ছিল বলে গ্রেফতারকৃতরা জানিয়েছে।

বৃহস্পতিবার তাদের আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাতদিনের রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে বাসাইল উপজেলার কাশিল বটতলা গ্রামের রবি মিয়ার ছেলে আকাশ মাহমুদ হারেজ (৩০), কাশিল পশ্চিমপাড়া গ্রামের মৃত আজমত খাঁর ছেলে আয়নাল খান (৩৫) ও নাকাছিম গ্রামের বানিজ মিয়ার ছেলে রায়হান মিয়া (২০)।

টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বৃহস্পতিবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে জানান, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (উত্তর) ওসি সাজ্জাদ হোসেনের নেতৃত্বে একটি দল মঙ্গলবার রাতে সদর উপজেলার করটিয়া পূর্বপাড়ায় অভিযান চালায়। সেখানে জনৈক সোনা মিয়ার বাসার দ্বিতীয় তলা থেকে ভাড়াটিয়া তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ২ লাখ ৭৭ হাজার ৫০০ জাল টাকা (সবগুলোই পাঁচশত টাকার নোট), জাল টাকা তৈরির কাজে ব্যবহৃত একটি কম্পিউটার, প্রিন্টার, ইস্ত্রি, পেপার কাটারসহ জাল টাকা তৈরির বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করে।

জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা জানিয়েছে, কোরবানির পশুর হাটে চালানোর জন্য তারা জাল টাকার নোট তৈরি করছিল।

বুধবার রাতে গোয়েন্দা পুলিশের এসআই মো. নুরুজ্জামান বাদী হয়ে টাঙ্গাইল সদর থানায় ওই তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন।

গোয়েন্দা পুলিশের ওসি সাজ্জাদ হোসেন জানান, গ্রেফতারকৃত তিনজনকে বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইল জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে সাতদিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে।