হোমনায় গৃহবধূর আত্মহত্যায় প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে প্ররোচনার মামলা
jugantor
হোমনায় গৃহবধূর আত্মহত্যায় প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে প্ররোচনার মামলা

  হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

২৭ জুলাই ২০২০, ২০:০০:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লা

কুমিল্লার হোমনায় এক গৃহবধূর আত্মহত্যার ঘটনায় তার প্রতিবেশী ৫ জনের নামে আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা হয়েছে।
গত শুক্রবার (২৪ জুলাই) কেড়ির বড়ি খেয়ে উপজেলার মির্জানগর গ্রামের তাইজুল ইসলামের স্ত্রী সুমি বেগম (৩০) আত্মহত্যা করেছেন। এ ঘটনায় নিহত সুমি বেগমের ভাই আলামিন বাদী হয়ে হোমনা থানায় আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-৫।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, ১৬ বছর পূর্বে তিতাস উপজেলার সুমি বেগমের (৩০ সাথে হোমনা উপজেলার মির্জানগর গ্রামের তাইজুল ইসলামের বিবাহ হয়। তাদের সংসারে দুটি সন্তান রয়েছে। ফেরিওয়ালা তাইজুল ইসলামের ১.৭৫ শতক জায়গা ছাড়া আর কোনো সম্পত্তি নেই। কিন্তু মামলার আসামি প্রতিবেশী বিল্লাল হোসেন (২৮), আলাল মিয়া (২২), ফাতেমা বেগম (৪৫), কোহিনুর বেগম (২৪), পারুল আক্তার (৩৭) তাইজুল ইসলামের বসতবাড়ির জায়গাটুকু তাদের কাছে বিক্রয় করার জন্য প্রস্তাব দেয়। তাইজুল ইসলাম এতে রাজি না হওয়ায় তার স্ত্রী সুমি বেগমকে তুচ্ছ বিষয় নিয়া ঝগড়া-বিবাদ করে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করে। একপর্যায়ে তাদের চলাচলের রাস্তায় বাঁশের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেয়। এ বিষয়টি এলাকার মেম্বারসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানালেও কোনো সমাধান পাওয়া যায়নি।
গত ২৪ জুলাই বাঁশের বেড়া টপকে বাহিরে যাওয়া কেন্দ্র করে সুমি বেগমকে মারপিটসহ অপমান-অপদস্থ করে আসামিরা। এ অপমান সহ্য করতে না পেরে ক্ষোভে সুমি বেগম আত্মহত্যর ঘোষণা দিয়ে কেরির বড়ি (বিষ) খায়। পরে তাকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথেই মৃত্যুবরণ করেন। মৃতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতালে প্রেরণ করে পুলিশ।
এ বিষয়ে ওসি (তদন্ত) আমিনুর রসুল বলেন, বিষ খেয়ে আত্মহত্যায় ঘটনায় নিহতের ভাই বাদী হয়ে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন। তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

হোমনায় গৃহবধূর আত্মহত্যায় প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে প্ররোচনার মামলা

 হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
২৭ জুলাই ২০২০, ০৮:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
কুমিল্লা
কুমিল্লা

কুমিল্লার হোমনায় এক গৃহবধূর আত্মহত্যার ঘটনায় তার প্রতিবেশী ৫ জনের নামে আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা হয়েছে।
গত শুক্রবার (২৪ জুলাই) কেড়ির বড়ি খেয়ে উপজেলার মির্জানগর গ্রামের তাইজুল ইসলামের স্ত্রী সুমি বেগম (৩০) আত্মহত্যা করেছেন। এ ঘটনায় নিহত সুমি বেগমের ভাই আলামিন বাদী হয়ে হোমনা থানায় আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-৫। 
মামলা সূত্রে জানা গেছে, ১৬ বছর পূর্বে তিতাস উপজেলার সুমি বেগমের (৩০ সাথে হোমনা উপজেলার মির্জানগর গ্রামের তাইজুল ইসলামের বিবাহ হয়। তাদের সংসারে দুটি সন্তান রয়েছে। ফেরিওয়ালা তাইজুল ইসলামের ১.৭৫ শতক জায়গা ছাড়া আর কোনো সম্পত্তি নেই। কিন্তু মামলার আসামি প্রতিবেশী বিল্লাল হোসেন (২৮), আলাল মিয়া (২২), ফাতেমা বেগম (৪৫), কোহিনুর বেগম (২৪), পারুল আক্তার (৩৭) তাইজুল ইসলামের বসতবাড়ির জায়গাটুকু তাদের কাছে বিক্রয় করার জন্য প্রস্তাব দেয়। তাইজুল ইসলাম এতে রাজি না হওয়ায় তার স্ত্রী সুমি বেগমকে তুচ্ছ বিষয় নিয়া ঝগড়া-বিবাদ করে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করে। একপর্যায়ে তাদের চলাচলের রাস্তায় বাঁশের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেয়। এ বিষয়টি এলাকার মেম্বারসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানালেও কোনো সমাধান পাওয়া যায়নি।
গত ২৪ জুলাই বাঁশের বেড়া টপকে বাহিরে যাওয়া কেন্দ্র করে সুমি বেগমকে মারপিটসহ অপমান-অপদস্থ করে আসামিরা। এ অপমান সহ্য করতে না পেরে ক্ষোভে সুমি বেগম আত্মহত্যর ঘোষণা দিয়ে কেরির বড়ি (বিষ) খায়। পরে তাকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথেই মৃত্যুবরণ করেন। মৃতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতালে প্রেরণ করে পুলিশ।
এ বিষয়ে ওসি (তদন্ত) আমিনুর রসুল বলেন, বিষ খেয়ে আত্মহত্যায় ঘটনায় নিহতের ভাই বাদী হয়ে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন। তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন