যুবক হত্যায় নোয়াখালীর কিশোর গ্যাংয়ের ৫ সদস্য কারাগারে
jugantor
যুবক হত্যায় নোয়াখালীর কিশোর গ্যাংয়ের ৫ সদস্য কারাগারে

  নোয়াখালী প্রতিনিধি  

০৯ আগস্ট ২০২০, ২২:৩০:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে পুকুরে গোসল করার দ্বন্দ্বের জেরে কিশোর গ্যাং সদস্যরা মো. হৃদয় (২৩) নামে এক যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে। পুলিশ ওই গ্যাংয়ের ৪ সদস্যসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের মিয়ার পোলের দক্ষিণে আসলাম হাজী বাড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটে বলে চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মিজান পাঠান জানান।

নিহত মো. হৃদয় চৌমুহনী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের আসলাম হাজী বাড়ির আবদুর রহীমের ছেলে। সে ঢাকায় একটি কসমেটিক দোকানে চাকরি করতেন।

নিহতের চাচা মাসুদ জানান, পুকুরে গোসল নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে নিয়াজ উদ্দিন ব্যাপারী বাড়ির সামনে মৃত ছেরাজল হকের ছেলে সোহাগসহ ৭-৮ জন হৃদয়ের পেটে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে গুরুতর আহত করে। এলাকাবাসী তাদের ভয়ে কেউ কথা বলতে সাহস করেনি। তারা চলে যাওয়ার পর আত্মীয়স্বজন তাকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রেফার করলে পথিমধ্যে তিনি মারা যান।

বেগমগঞ্জ থানার ওসি হারুন অর রশীদ চৌধুরী জানান, পার্শ্ববর্তী একটি বাড়ির পুকুরে জুমার নামাজের আগে হৃদয় গোসল করতে গেলে একই এলাকার বখাটে সোহাগ তাকে বাধা দেয়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। পরে দুপুর ২টার দিকে সোহাগ ৭-৮ জন বখাটে কিশোর নিয়ে হৃদয়কে ছুরিকাঘাত করে।

পুলিশ লাশ উদ্ধার করে শনিবার ময়নাতদন্তের পর লাশ আত্মীয়দের বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। শনিবার বিকালে তার পারিবারিক কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়েছে। এ ঘটনায় বেগমগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়েরের পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। পরে আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

যুবক হত্যায় নোয়াখালীর কিশোর গ্যাংয়ের ৫ সদস্য কারাগারে

 নোয়াখালী প্রতিনিধি 
০৯ আগস্ট ২০২০, ১০:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে পুকুরে গোসল করার দ্বন্দ্বের জেরে কিশোর গ্যাং সদস্যরা মো. হৃদয় (২৩) নামে এক যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে। পুলিশ ওই গ্যাংয়ের ৪ সদস্যসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের মিয়ার পোলের দক্ষিণে আসলাম হাজী বাড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটে বলে চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মিজান পাঠান জানান।

নিহত মো. হৃদয় চৌমুহনী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের আসলাম হাজী বাড়ির আবদুর রহীমের ছেলে। সে ঢাকায় একটি কসমেটিক দোকানে চাকরি করতেন।

নিহতের চাচা মাসুদ জানান, পুকুরে গোসল নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে নিয়াজ উদ্দিন ব্যাপারী বাড়ির সামনে মৃত ছেরাজল হকের ছেলে সোহাগসহ ৭-৮ জন হৃদয়ের পেটে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে গুরুতর আহত করে। এলাকাবাসী তাদের ভয়ে কেউ কথা বলতে সাহস করেনি। তারা চলে যাওয়ার পর আত্মীয়স্বজন তাকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রেফার করলে পথিমধ্যে তিনি মারা যান।

বেগমগঞ্জ থানার ওসি হারুন অর রশীদ চৌধুরী জানান, পার্শ্ববর্তী একটি বাড়ির পুকুরে জুমার নামাজের আগে হৃদয় গোসল করতে গেলে একই এলাকার বখাটে সোহাগ তাকে বাধা দেয়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। পরে দুপুর ২টার দিকে সোহাগ ৭-৮ জন বখাটে কিশোর নিয়ে হৃদয়কে ছুরিকাঘাত করে।

পুলিশ লাশ উদ্ধার করে শনিবার ময়নাতদন্তের পর লাশ আত্মীয়দের বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। শনিবার বিকালে তার পারিবারিক কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়েছে। এ ঘটনায় বেগমগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়েরের পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। পরে আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন