একসঙ্গে তিন কন্যাসন্তান জন্ম দিলেন গৃহবধূ রহিমা
jugantor
একসঙ্গে তিন কন্যাসন্তান জন্ম দিলেন গৃহবধূ রহিমা

  মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২১ আগস্ট ২০২০, ০১:৪৭:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

মাধবপুরে পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে এক গৃহবধূ একসঙ্গে তিনটি কন্যা সন্তান জন্ম দিয়েছেন।

রহিমা বেগম নামে ওই নারী উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে ওই তিন সন্তানের জন্ম দেন।

মা ও নবজাতকরা সুস্থ আছে।তিনি উপজেলার শিয়ালড়ি গ্রামের আব্দুল সালামের স্ত্রী।

রহিমা বেগমের প্রসব ব্যথা শুরু হলে বুধবার তাকে ধর্মঘর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়।মা মনি সীমান্ত প্রকল্পের স্বাস্থ্য কর্মী নাইস খাতুনের তত্ত্বাবধানে নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে একে একে তিন সন্তান প্রসব করেন রহিমা।

নাইস খাতুন জানান, প্রসূতি রহিমা বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় প্রথম কন্যা সন্তান প্রসব করেন। এরপর ৮টা ৫০ মিনিটে দ্বিতীয় এবং সকাল ৯টায় তৃতীয় সন্তান ভূমিষ্ট হয়।মা ও নবজাতকরা সুস্থ থাকায় তারা বাড়ি চলে গেছেন।

একসঙ্গে তিন সন্তান পেয়ে খুশি আব্দুস সালাম দম্পত্তি। তবে, হতদরিদ্র পরিবারে তাদের লালন পালন নিয়ে কিছুটা চিন্তিত তারা। এই দম্পত্তির আগের ৪ বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এ এইচ এম ইশতাক মামুন জানান, রহিমা খাতুন গর্ভবতী হওয়ার পর থেকেই মাঠ পর্যায়ের স্বাস্থ্য কর্মীদের সেবা নিয়েছেন।তাকে নিয়মিত ফলোআপ করা হয়েছে।

একসঙ্গে তিন কন্যাসন্তান জন্ম দিলেন গৃহবধূ রহিমা

 মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২১ আগস্ট ২০২০, ০১:৪৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মাধবপুরে পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে এক গৃহবধূ একসঙ্গে তিনটি কন্যা সন্তান জন্ম দিয়েছেন।

রহিমা বেগম নামে ওই নারী উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে ওই তিন সন্তানের জন্ম দেন।

মা ও নবজাতকরা সুস্থ আছে।তিনি উপজেলার শিয়ালড়ি গ্রামের আব্দুল সালামের স্ত্রী।

রহিমা বেগমের প্রসব ব্যথা শুরু হলে বুধবার তাকে ধর্মঘর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়।মা মনি সীমান্ত প্রকল্পের স্বাস্থ্য কর্মী নাইস খাতুনের তত্ত্বাবধানে নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে একে একে তিন সন্তান প্রসব করেন রহিমা।

নাইস খাতুন জানান, প্রসূতি রহিমা বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় প্রথম কন্যা সন্তান প্রসব করেন। এরপর ৮টা ৫০ মিনিটে দ্বিতীয় এবং সকাল ৯টায় তৃতীয় সন্তান ভূমিষ্ট হয়।মা ও নবজাতকরা সুস্থ থাকায় তারা বাড়ি চলে গেছেন।
 
একসঙ্গে তিন সন্তান পেয়ে খুশি আব্দুস সালাম দম্পত্তি। তবে, হতদরিদ্র পরিবারে তাদের লালন পালন নিয়ে কিছুটা চিন্তিত তারা। এই দম্পত্তির আগের ৪ বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এ এইচ এম ইশতাক মামুন জানান,  রহিমা খাতুন গর্ভবতী হওয়ার পর থেকেই মাঠ পর্যায়ের স্বাস্থ্য কর্মীদের সেবা নিয়েছেন।তাকে নিয়মিত ফলোআপ করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন