মুরগি চুরিকে কেন্দ্র করে গৃহকর্তাকে পিটিয়ে হত্যা
jugantor
মুরগি চুরিকে কেন্দ্র করে গৃহকর্তাকে পিটিয়ে হত্যা

  নোয়াখালী প্রতিনিধি  

২৩ আগস্ট ২০২০, ২১:১৯:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ থানার কাদিরপুর ইউনিয়নের গয়েছপুর গ্রামে মুরগি চুরিকে কেন্দ্র করে গৃহস্থকে পিটিয়ে হত্যা করেছে চোর ও চোরের শ্বশুরবাড়ির লোকজন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত শেষে আত্মীয়দের বুঝিয়ে দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে ৩ জনের নাম দিয়ে বেগমগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। আসামিরা পলাতক রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছেন।

বেগমগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রুহুল আমিন জানান, শুক্রবার গভীর রাতে গয়েছপুর গ্রামের ইস্কান্দর মিয়া একই বাড়ির আবদুল কুদ্দুসের খোঁয়াড় থেকে মুরগি চুরি করে। তা কুদ্দুসের স্ত্রী দেখে ফেলে চিৎকার করে বাড়ির লোকজনকে জানান। এ ব্যাপারে শনিবার দুপুর ১২টার দিকে ইস্কান্দারের শ্বশুরবাড়ি থেকে লোকজন এসে মুরগির মালিককে উল্টো হুমকি-ধমকি দেয়ার সময় আবদুল কুদ্দুসের ভাই দেলোয়ার হোসেন ঘর থেকে বেরিয়ে বাধা দেন। এ সময় ইস্কান্দার ও তার শ্বশুরপক্ষের লোকজন এলোপাতাড়ি পিটিয়ে দেলোয়ার হোসেনকে (৪৫)হত্যা করে।

খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। রোববার ময়নাতদন্তের পর নোয়াখালী পুলিশ লাশ দাফনের জন্য দেলোয়ারের আত্মীয়স্বজনদের বুঝিয়ে দিয়েছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বেগমগঞ্জ থানার এসআই হাবিবুর রহমান জানান, আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

মুরগি চুরিকে কেন্দ্র করে গৃহকর্তাকে পিটিয়ে হত্যা

 নোয়াখালী প্রতিনিধি 
২৩ আগস্ট ২০২০, ০৯:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ থানার কাদিরপুর ইউনিয়নের গয়েছপুর গ্রামে মুরগি চুরিকে কেন্দ্র করে গৃহস্থকে পিটিয়ে হত্যা করেছে চোর ও চোরের শ্বশুরবাড়ির লোকজন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত শেষে আত্মীয়দের বুঝিয়ে দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে ৩ জনের নাম দিয়ে বেগমগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। আসামিরা পলাতক রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছেন।

বেগমগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রুহুল আমিন জানান, শুক্রবার গভীর রাতে গয়েছপুর গ্রামের ইস্কান্দর মিয়া একই বাড়ির আবদুল কুদ্দুসের খোঁয়াড় থেকে মুরগি চুরি করে। তা কুদ্দুসের স্ত্রী দেখে ফেলে চিৎকার করে বাড়ির লোকজনকে জানান। এ ব্যাপারে শনিবার দুপুর ১২টার দিকে ইস্কান্দারের শ্বশুরবাড়ি থেকে লোকজন এসে মুরগির মালিককে উল্টো হুমকি-ধমকি দেয়ার সময় আবদুল কুদ্দুসের ভাই দেলোয়ার হোসেন ঘর থেকে বেরিয়ে বাধা দেন। এ সময় ইস্কান্দার ও তার শ্বশুরপক্ষের লোকজন এলোপাতাড়ি পিটিয়ে দেলোয়ার হোসেনকে (৪৫)হত্যা করে।

খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। রোববার ময়নাতদন্তের পর নোয়াখালী পুলিশ লাশ দাফনের জন্য দেলোয়ারের আত্মীয়স্বজনদের বুঝিয়ে দিয়েছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বেগমগঞ্জ থানার এসআই হাবিবুর রহমান জানান, আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন