শিপ্রার মালপত্রের তালিকায় গরমিল, রামু থানার ওসির নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা
jugantor
শিপ্রার মালপত্রের তালিকায় গরমিল, রামু থানার ওসির নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা

  কক্সবাজার প্রতিনিধি  

২৭ আগস্ট ২০২০, ১৯:৪৩:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খানকে হত্যার সময় তার সঙ্গে থাকা শিপ্রার মালপত্রের দুটি তালিকায় গরমিল হওয়ার ঘটনায় নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন কক্সবাজারের রামু খানার ওসি মো. আবুল খায়ের।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় রামুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন তিনি।

শিপ্রার আইনজীবী মাহবুবুল আলম টিপু জানান, বৃহস্পতিবার রামুর আমলি আদালতে হাজির হয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চান তিনি। এ আদালতের বিচারক ছিলেন দেলোয়ার হোসেন।

আইনজীবী বলেন, সিনহা নিহত হওয়ার পর পুলিশ সিফাত ও শিপ্রার বিরুদ্ধে মামলা করে। এছাড়া পুলিশ একটি সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করে।

মামলার পর আবার জিডি করার প্রশ্নই আসে না। আবার পুলিশ ওই মামলায় শিপ্রার মালপত্রের একটি তালিকা করার পাশাপাশি জিডিমূলে আরও একটি তালিকা করে। দুটি তালিকায় আবার গরমিল দেখা যায়।

রামু থানার ওসিকে এর কারণ জানাতে আদেশ দিয়েছিলেন আদালত। রামু থানার বর্তমান ওসি মো. আবুল খায়ের আদালতে হাজির হয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ৩১ জুলাই কক্সবাজারের শামলাপুর এলাকায় পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান। ওই ঘটনায় টেকনাফ থানায় একটি ও রামু থানায় পুলিশ বাদী হয়ে পৃথক দুটি মামলা করেছিল। রামু থানার মামলায় আসামি করা হয়েছিল স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী শিপ্রা দেবনাথকে।

শিপ্রার মালপত্রের তালিকায় গরমিল, রামু থানার ওসির নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা

 কক্সবাজার প্রতিনিধি 
২৭ আগস্ট ২০২০, ০৭:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খানকে হত্যার সময় তার সঙ্গে থাকা শিপ্রার মালপত্রের দুটি তালিকায় গরমিল হওয়ার ঘটনায় নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন কক্সবাজারের রামু খানার ওসি মো. আবুল খায়ের।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় রামুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন তিনি।

শিপ্রার আইনজীবী মাহবুবুল আলম টিপু জানান, বৃহস্পতিবার রামুর আমলি আদালতে হাজির হয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চান তিনি। এ আদালতের বিচারক ছিলেন দেলোয়ার হোসেন।

আইনজীবী বলেন, সিনহা নিহত হওয়ার পর পুলিশ সিফাত ও শিপ্রার বিরুদ্ধে মামলা করে। এছাড়া পুলিশ একটি সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করে।

মামলার পর আবার জিডি করার প্রশ্নই আসে না। আবার পুলিশ ওই মামলায় শিপ্রার মালপত্রের একটি তালিকা করার পাশাপাশি জিডিমূলে আরও একটি তালিকা করে। দুটি তালিকায় আবার গরমিল দেখা যায়।

রামু থানার ওসিকে এর কারণ জানাতে আদেশ দিয়েছিলেন আদালত। রামু থানার বর্তমান ওসি মো. আবুল খায়ের আদালতে হাজির হয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ৩১ জুলাই কক্সবাজারের শামলাপুর এলাকায় পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান। ওই ঘটনায় টেকনাফ থানায় একটি ও রামু থানায় পুলিশ বাদী হয়ে পৃথক দুটি মামলা করেছিল। রামু থানার মামলায় আসামি করা হয়েছিল স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী শিপ্রা দেবনাথকে।
 

 

ঘটনাপ্রবাহ : মেজর সিনহার মৃত্যু

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন