পাঁচ বছরের মামাকে বাঁচাতে গিয়ে মারা গেল ৪ বছরের ভাগ্নিও
jugantor
পাঁচ বছরের মামাকে বাঁচাতে গিয়ে মারা গেল ৪ বছরের ভাগ্নিও

  মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২২:৫২:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার মুরাদনগরে বাড়ির পাশের পুকুরে ডুবে যায় মামা তাজিম মিয়া (৫)। তাকে বাঁচাতে গেলে ভাগ্নি আয়েশা আক্তারও (৪) পুকুরে ডুবে মারা গেছে। বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানাধীন হায়দ্রাবাদ গ্রামের এ ঘটনা ঘটে।

নিহত তাজিম মিয়া পার্শ্ববর্তী নবীনগর উপজেলার ইব্রাহীমপুর গ্রামের সজিব হোসেনের ছেলে। সে তার মায়ের সঙ্গে নানা বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল। আয়েশা আক্তার হায়দ্রাবাদ গ্রামের আক্কাস মিয়ার মেয়ে। নিহতরা সম্পর্কে মামা-ভাগ্নি ছিল।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে পরিবারের অগোচরে তাদের বাড়ির পাশের একটি পুকুরে গোসল করতে যায় তাজিম ও আয়েশা।ধারনা করা হচ্ছে তাদের মধ্যে তাজিম মিয়া সাতার না জানায় সে পানিতে ডুবে যায়। ভাগ্নি আয়েশা এ দৃশ্য দেখে তাকে বাঁচাতে গেলে সেও পানিতে ডুবে যায়। পরে স্থানীয় এক ব্যক্তি আয়েশার লাশ পানিতে ভাসতে দেখলে পরিবারের লোকজনকে খবর দেয়। পরিবারের লোকজন তাদেরকে দ্রুত উদ্ধার করে হায়দ্রাবাদ সামসুল হক মেডিকেলে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে মৃত ঘোষণা করেন।

আন্দিুকুট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক সরকার বলেন, ঘটনাটি আমি লোকজনের কাছে শুনেছি। বিষয়টি খুবই মর্মাহত। তবে পরিবারের পক্ষ থেকে আমাকে কিছু জানায়নি।

পাঁচ বছরের মামাকে বাঁচাতে গিয়ে মারা গেল ৪ বছরের ভাগ্নিও

 মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার মুরাদনগরে বাড়ির পাশের পুকুরে ডুবে যায় মামা তাজিম মিয়া (৫)। তাকে বাঁচাতে গেলে ভাগ্নি আয়েশা আক্তারও (৪) পুকুরে ডুবে মারা গেছে। বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানাধীন হায়দ্রাবাদ গ্রামের এ ঘটনা ঘটে।

নিহত তাজিম মিয়া পার্শ্ববর্তী নবীনগর উপজেলার ইব্রাহীমপুর গ্রামের সজিব হোসেনের ছেলে। সে তার মায়ের সঙ্গে নানা বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল। আয়েশা আক্তার হায়দ্রাবাদ গ্রামের আক্কাস মিয়ার মেয়ে। নিহতরা সম্পর্কে মামা-ভাগ্নি ছিল।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে পরিবারের অগোচরে তাদের বাড়ির পাশের একটি পুকুরে গোসল করতে যায় তাজিম ও আয়েশা।ধারনা করা হচ্ছে তাদের মধ্যে তাজিম মিয়া সাতার না জানায় সে পানিতে ডুবে যায়। ভাগ্নি আয়েশা এ দৃশ্য দেখে তাকে বাঁচাতে গেলে সেও পানিতে ডুবে যায়। পরে স্থানীয় এক ব্যক্তি আয়েশার লাশ পানিতে ভাসতে দেখলে পরিবারের লোকজনকে খবর দেয়। পরিবারের লোকজন তাদেরকে দ্রুত উদ্ধার করে হায়দ্রাবাদ সামসুল হক মেডিকেলে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে মৃত ঘোষণা করেন।

আন্দিুকুট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক সরকার বলেন, ঘটনাটি আমি লোকজনের কাছে শুনেছি। বিষয়টি খুবই মর্মাহত। তবে পরিবারের পক্ষ থেকে আমাকে কিছু জানায়নি।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন