শ্রীমঙ্গলের মানবপাচার মামলায় নারী গ্রেফতার
jugantor
শ্রীমঙ্গলের মানবপাচার মামলায় নারী গ্রেফতার

  শ্রীমঙ্গল (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি  

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৩:১০:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

শ্রীমঙ্গলের মানবপাচার মামলায় আছমা (৪৫) নামে এক নারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এলাকায় তিনি পতিতা সম্রাজ্ঞী হিসেবে পরিচিত।

বুধবার রাত পৌনে ১০টার দিকে গোপন সংবাদ পেয়ে শ্রীমঙ্গল থানার ওসি (তদন্ত) হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে এসআই ইউসুফ আলীসহ একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে শহরের গুহ রোড এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

ওসি (তদন্ত) হুমায়ুন কবির জানান, গত ১৫ ফেব্রুয়ারি রাতে পতিতাবৃত্তির অভিযোগে পুলিশ শহরের হাউজিং এস্টেট এলাকায় অবস্থিত আছমার বাসায় অভিযান চালায়। এ সময় সেখান থেকে পতিতাবৃত্তির অভিযোগে ২ নারী ও ২ পুরুষ খদ্দেরকে আটক করে তারা।

অভিযানের খবর পেয়ে আগেই সেখান থেকে কৌশলে শটকে পড়েন আছমা। এ ঘটনায় থানায় একটি মানবপাচার আইনে মামলা রুজু হয় এবং ওই মামলার সূত্র ধরে বুধবার রাতে আছমা পুলিশের জালে ধরা পড়ে বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে শহরের পূর্বাশা আবাসিক এলাকায় বাসিন্দা সোলায়মান আহমেদ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আছমা দীর্ঘদিন ধরে শ্রীমঙ্গলে পতিতাবৃত্তি করে আসছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে নারীদের নিয়ে এসে জোর করে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করানো হয়। এর আগেও কয়েকবার পুলিশের হাতে আটক হলেও ছাড়া পেয়ে আবারও পুরনো কাজে ফিরে আসেন ওই নারী।

হাউজিং এস্টেট এলাকার বাসিন্দা রুহেল আহমেদ বলেন, আছমার তার বসতবাড়ি যৌনপল্লী বানিয়ে ফেলার পাশাপাশি বিভিন্ন আবাসিক হোটেল ও রিসোর্টে নারী সরবরাহ করে আসছেন।

এলাকার অনেকের অভিযোগ, দিনের পর দিন আছমার এসব অসামাজিক কর্মকাণ্ডের পেছনে একশ্রেণির প্রভাবশালীর হাত রয়েছে। যারা নিয়মিত মাসোহারা নিয়ে আছমাকে এসব অনৈতিক কাজের প্রশয় দিয়ে আসছেন। আছমাকে ধরতে গত কয়েক দিন ধরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সংবাদকর্মীসহ নেটিজেনরা দাবি জানিয়ে আসছিলেন।

শ্রীমঙ্গলের মানবপাচার মামলায় নারী গ্রেফতার

 শ্রীমঙ্গল (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি 
১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০১:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শ্রীমঙ্গলের মানবপাচার মামলায় আছমা (৪৫) নামে এক নারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এলাকায় তিনি পতিতা সম্রাজ্ঞী হিসেবে পরিচিত।

বুধবার রাত পৌনে ১০টার দিকে গোপন সংবাদ পেয়ে শ্রীমঙ্গল থানার ওসি (তদন্ত) হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে এসআই ইউসুফ আলীসহ একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে শহরের গুহ রোড এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

ওসি (তদন্ত) হুমায়ুন কবির জানান, গত ১৫ ফেব্রুয়ারি রাতে পতিতাবৃত্তির অভিযোগে পুলিশ শহরের হাউজিং এস্টেট এলাকায় অবস্থিত আছমার বাসায় অভিযান চালায়। এ সময় সেখান থেকে পতিতাবৃত্তির অভিযোগে ২ নারী ও ২ পুরুষ খদ্দেরকে আটক করে তারা।

অভিযানের খবর পেয়ে আগেই সেখান থেকে কৌশলে শটকে পড়েন আছমা। এ ঘটনায় থানায় একটি মানবপাচার আইনে মামলা রুজু হয় এবং ওই মামলার সূত্র ধরে বুধবার রাতে আছমা পুলিশের জালে ধরা পড়ে বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে শহরের পূর্বাশা আবাসিক এলাকায় বাসিন্দা সোলায়মান আহমেদ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আছমা দীর্ঘদিন ধরে শ্রীমঙ্গলে পতিতাবৃত্তি করে আসছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে নারীদের নিয়ে এসে জোর করে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করানো হয়। এর আগেও কয়েকবার পুলিশের হাতে আটক হলেও ছাড়া পেয়ে আবারও পুরনো কাজে ফিরে আসেন ওই নারী।

হাউজিং এস্টেট এলাকার বাসিন্দা রুহেল আহমেদ বলেন, আছমার তার বসতবাড়ি যৌনপল্লী বানিয়ে ফেলার পাশাপাশি বিভিন্ন আবাসিক হোটেল ও রিসোর্টে নারী সরবরাহ করে আসছেন।

এলাকার অনেকের অভিযোগ, দিনের পর দিন আছমার এসব অসামাজিক কর্মকাণ্ডের পেছনে একশ্রেণির প্রভাবশালীর হাত রয়েছে। যারা নিয়মিত মাসোহারা নিয়ে আছমাকে এসব অনৈতিক কাজের প্রশয় দিয়ে আসছেন। আছমাকে ধরতে গত কয়েক দিন ধরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সংবাদকর্মীসহ নেটিজেনরা দাবি জানিয়ে আসছিলেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন