পানি খেতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার শিশু 
jugantor
পানি খেতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার শিশু 

  রাজশাহী ব্যুরো  

১৩ মে ২০২১, ১৩:৫০:১৪  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহীর বাগমারায় নলকূপের পানি খেতে গিয়ে ৯ বছরের এক শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে।

বুধবার দুপুরে বাগমারার যুগীপাড়া ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর এলাকাবাসী অভিযুক্ত আব্দুর রাজ্জাককে (৩০) গণপিটুনি দিয়ে থানা পুলিশে হস্তান্তর করেছে। শিশুর বাবা বাদী হয়ে বুধবার রাতে একটি মামলা করেছেন থানায়। আসামি রাজ্জাক গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, বুধবার দুপুরের ৯ বছরের শিশু গ্রামের আবু তাহেরের বাড়ির পেছনের নলকূপে পানি খেতে যায়। এ সময় তাহেরের ছেলে রাজ্জাক তাকে ফুসলিয়ে বাড়ির ভেতরে নিয়ে যায়। এক পর্যায়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করে রাজ্জাক। শিশুটির চিৎকার শুনে এলাকাবাসী ছুটে আসেন।

রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করে প্রথমে বাগমারা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ও আরও পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করেন।

অন্যদিকে আব্দুর রাজ্জাককে ধরে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন। বুধবার রাতে শিশুটির বাবা বাদী হয়ে রাজ্জাককে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা করেন। এ মামলাতে গ্রেফতার দেখিয়ে পুলিশ বৃহস্পতিবার রাজ্জাককে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করেন।

বাগমারার যুগীপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল বলেন, আবদুর রাজ্জাক স্থানীয়ভাবে বখাটে হিসেবে পরিচিত। সে বিয়ে করেনি। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে নারীদের উত্ত্যক্ত করাসহ বখাটেপনার অভিযোগ রয়েছে।

বাগমারা থানার পরিদর্শক ওসি মোস্তাক আহম্মেদ জানান, ঘটনা জানার পরই পুলিশ দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে। ধর্ষণের শিকার শিশুটিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়েছে। রাজ্জাককে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

পানি খেতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার শিশু 

 রাজশাহী ব্যুরো 
১৩ মে ২০২১, ০১:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহীর বাগমারায় নলকূপের পানি খেতে গিয়ে ৯ বছরের এক শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে। 

বুধবার দুপুরে বাগমারার যুগীপাড়া ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর এলাকাবাসী অভিযুক্ত আব্দুর রাজ্জাককে (৩০) গণপিটুনি দিয়ে থানা পুলিশে হস্তান্তর করেছে। শিশুর বাবা বাদী হয়ে বুধবার রাতে একটি মামলা করেছেন থানায়। আসামি রাজ্জাক গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে। 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, বুধবার দুপুরের ৯ বছরের শিশু গ্রামের আবু তাহেরের বাড়ির পেছনের নলকূপে পানি খেতে যায়। এ সময় তাহেরের ছেলে রাজ্জাক তাকে ফুসলিয়ে বাড়ির ভেতরে নিয়ে যায়। এক পর্যায়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করে রাজ্জাক। শিশুটির চিৎকার শুনে এলাকাবাসী ছুটে আসেন। 

রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করে প্রথমে বাগমারা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ও আরও পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করেন।

অন্যদিকে আব্দুর রাজ্জাককে ধরে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন। বুধবার রাতে শিশুটির বাবা বাদী হয়ে রাজ্জাককে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা করেন। এ মামলাতে গ্রেফতার দেখিয়ে পুলিশ বৃহস্পতিবার রাজ্জাককে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করেন।    

বাগমারার যুগীপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল বলেন, আবদুর রাজ্জাক স্থানীয়ভাবে বখাটে হিসেবে পরিচিত। সে বিয়ে করেনি। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে নারীদের উত্ত্যক্ত করাসহ বখাটেপনার অভিযোগ রয়েছে।

বাগমারা থানার পরিদর্শক ওসি মোস্তাক আহম্মেদ জানান, ঘটনা জানার পরই পুলিশ দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে। ধর্ষণের শিকার শিশুটিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়েছে। রাজ্জাককে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন