জুমার নামাজের খুতবা নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ১৫
jugantor
জুমার নামাজের খুতবা নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ১৫

  যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া  

১১ জুন ২০২১, ২১:৪২:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহতদের একজন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলায় মসজিদে জুমার নামাজের খুতবা নিয়ে দুইপক্ষের সংঘর্ষে কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছেন। শুক্রবার দুপুরে উপজেলার সুহিলপুর ইউনিয়নের গোপীনাথপুর গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় সাতজনকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা হলেন- মোশারফ হোসেন (৪০), খায়ের মিয়া (৩৫), সিরাজ মিয়া (৬০), রহিজ মিয়া (৬৫), বাহার মিয়া (৫৫), জাবের হোসেন (৩৫) ও জামের মিয়া (৫০)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুপুরে গোপীনাথপুর গ্রামের বাবে জান্নাত মসজিদে জুমার নামাজ শুরুর আগে খুতবায় খতিব মাদক ও সন্ত্রাসবিরোধী বয়ান করেন। এ নিয়ে নামাজের পর মসজিদ থেকে বের হয়ে ভূঁইয়া গোষ্ঠীর চুনু মিয়ার ছেলে শিপন মিয়া ও হাজী গোষ্ঠীর রশিদ মিয়ার ছেলে খায়ের মিয়া বাকবিতণ্ডায় জড়ায়।

এর জেরে উভয়পক্ষের লোকজন রামদা, বল্লম, চাইনিজ কুড়ালসহ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এতে উভয়পক্ষের কমপক্ষে ১৫ জন আহত হন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ এমরানুল ইসলাম জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। আহতদের হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনোপক্ষই সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেনি।

জুমার নামাজের খুতবা নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ১৫

 যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া 
১১ জুন ২০২১, ০৯:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহতদের একজন
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহতদের একজন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলায় মসজিদে জুমার নামাজের খুতবা নিয়ে দুইপক্ষের সংঘর্ষে কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছেন। শুক্রবার দুপুরে উপজেলার সুহিলপুর ইউনিয়নের গোপীনাথপুর গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় সাতজনকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা হলেন- মোশারফ হোসেন (৪০), খায়ের মিয়া (৩৫), সিরাজ মিয়া (৬০), রহিজ মিয়া (৬৫), বাহার মিয়া (৫৫), জাবের হোসেন (৩৫) ও জামের মিয়া (৫০)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুপুরে গোপীনাথপুর গ্রামের বাবে জান্নাত মসজিদে জুমার নামাজ শুরুর আগে খুতবায় খতিব মাদক ও সন্ত্রাসবিরোধী বয়ান করেন। এ নিয়ে নামাজের পর মসজিদ থেকে বের হয়ে ভূঁইয়া গোষ্ঠীর চুনু মিয়ার ছেলে শিপন মিয়া ও হাজী গোষ্ঠীর রশিদ মিয়ার ছেলে খায়ের মিয়া বাকবিতণ্ডায় জড়ায়।

এর জেরে উভয়পক্ষের লোকজন রামদা, বল্লম, চাইনিজ কুড়ালসহ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এতে উভয়পক্ষের কমপক্ষে ১৫ জন আহত হন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ এমরানুল ইসলাম জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। আহতদের হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনোপক্ষই সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন