পুরোপুরি ‘আইসোলেশনে’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
jugantor
পুরোপুরি ‘আইসোলেশনে’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

  ঢাবি প্রতিনিধি  

২৪ মার্চ ২০২০, ১৯:২৬:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় করোনাভাইরাসের বিস্তাররোধে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। 

মঙ্গলবার থেকে পুরোপুরি 'আইসোলেসন' নিশ্চিত করেতে জিরো টলারেন্স নীতি নেয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. গোলাম রব্বানী। 

সরেজমিন দেখা গেছে, করোনাভাইরাস সতর্কতায় উদয়ন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে দিয়ে ফুলার রোড হয়ে নীলক্ষেত মোড়ে যাওয়ার রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) কর্তৃপক্ষ। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন প্রবেশদ্বারে বসানো হয়েছে ব্যারিকেড। যদিও গুরুত্ব বিশেষে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে ভেতরে। বহিরাগত গাড়ি, লোকজনকেও ক্যাম্পাস এলাকা ব্যবহার না করার নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে।

এর আগে সোমবার রাতে ‘মুক্তি ও গণতন্ত্র তোরণ’ প্রবেশগেটে বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে তারা রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়। এখন শুধু শাহবাগ মোড় ও কার্জন হল এলাকা দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ ও বের হওয়া যাচ্ছে। তবে নীলক্ষেতের লোকজন পলাশী মোড় দিয়ে শহীদ মিনার হয়ে কার্জন হল অথবা শাহবাগ দিয়ে যাওয়া-আসা করতে পারবেন। এ ছাড়াও করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে বন্ধ রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব একাডেমিক কার্যক্রম ও আবাসিক হলগুলো।

এ বিষয়ে ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. গোলাম রব্বানী যুগান্তরকে বলেন, আমাদের যে সামাজিক আইসোলেসন নীতি রয়েছে তা বাস্তবায়নের জন্য আমরা সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

বিশ্ববিদ্যালয় লকডাউনের বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা লকডাউন করিনি। আইসোলেসন নিশ্চিত করার জন্য যাতায়াত সীমিত করেছি। আর কেউ যদি বিদেশ থেকে আসে তাহলে তাদের কোয়ারেন্টিনে নিশ্চিত করা হচ্ছে। এ বিষয়ে আমরা জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করছি।

এ দিকে মঙ্গলবার শিক্ষা মন্ত্রণালয় দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি ৩১ মার্চ থেকে বাড়িয়ে ৯ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়েছে।

ফলে ঢাবি বন্ধের সময়সীমা বাড়ানো হবে কি না- জানতে চাইলে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান বলেন, করোনাভাইরাসের বিষয়টা এখন একটি বৈশ্বিক বিষয়ে পরিণত হয়েছে। তাই এই ক্ষেত্রে আমাদের একক সিদ্ধান্ত নেয়ার কোনো সুযোগ নেই বরং বিষয়গুলো আমাদের সামগ্রিকভাবেই নিতে হবে।

পুরোপুরি ‘আইসোলেশনে’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

 ঢাবি প্রতিনিধি 
২৪ মার্চ ২০২০, ০৭:২৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় করোনাভাইরাসের বিস্তাররোধে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার থেকে পুরোপুরি 'আইসোলেসন' নিশ্চিত করেতে জিরো টলারেন্স নীতি নেয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. গোলাম রব্বানী।

সরেজমিন দেখা গেছে, করোনাভাইরাস সতর্কতায় উদয়ন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে দিয়ে ফুলার রোড হয়ে নীলক্ষেত মোড়ে যাওয়ার রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন প্রবেশদ্বারে বসানো হয়েছে ব্যারিকেড। যদিও গুরুত্ব বিশেষে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে ভেতরে। বহিরাগত গাড়ি, লোকজনকেও ক্যাম্পাস এলাকা ব্যবহার না করার নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে।

এর আগে সোমবার রাতে ‘মুক্তি ও গণতন্ত্র তোরণ’ প্রবেশগেটে বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে তারা রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়। এখন শুধু শাহবাগ মোড় ও কার্জন হল এলাকা দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ ও বের হওয়া যাচ্ছে। তবে নীলক্ষেতের লোকজন পলাশী মোড় দিয়ে শহীদ মিনার হয়ে কার্জন হল অথবা শাহবাগ দিয়ে যাওয়া-আসা করতে পারবেন। এ ছাড়াও করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে বন্ধ রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব একাডেমিক কার্যক্রম ও আবাসিক হলগুলো।

এ বিষয়ে ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. গোলাম রব্বানী যুগান্তরকে বলেন, আমাদের যে সামাজিক আইসোলেসন নীতি রয়েছে তা বাস্তবায়নের জন্য আমরা সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

বিশ্ববিদ্যালয় লকডাউনের বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা লকডাউন করিনি। আইসোলেসন নিশ্চিত করার জন্য যাতায়াত সীমিত করেছি। আর কেউ যদি বিদেশ থেকে আসে তাহলে তাদের কোয়ারেন্টিনে নিশ্চিত করা হচ্ছে। এ বিষয়ে আমরা জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করছি।

এ দিকে মঙ্গলবার শিক্ষা মন্ত্রণালয় দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি ৩১ মার্চ থেকে বাড়িয়ে ৯ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়েছে।

ফলে ঢাবি বন্ধের সময়সীমা বাড়ানো হবে কি না- জানতে চাইলে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান বলেন, করোনাভাইরাসের বিষয়টা এখন একটি বৈশ্বিক বিষয়ে পরিণত হয়েছে। তাই এই ক্ষেত্রে আমাদের একক সিদ্ধান্ত নেয়ার কোনো সুযোগ নেই বরং বিষয়গুলো আমাদের সামগ্রিকভাবেই নিতে হবে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস