করোনাভাইরাসের প্রভাবে হাঁসের ডিম ২০ টাকা হালি!
jugantor
করোনাভাইরাসের প্রভাবে হাঁসের ডিম ২০ টাকা হালি!

  সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি  

২৬ মার্চ ২০২০, ২২:১৫:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

হাঁসের ডিম

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে নাটোরের সিংড়াসহ চলনবিল এলাকা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। আর গণপরিবহন চলাচল না করায় নিমিষেই ৪০ টাকা হালি হাঁসের ডিম কুড়ি টাকায় নেমে এসেছে।

এতে চলনবিল এলাকার প্রায় শতাধিক হাঁসের খামার মালিকদের লোকসান গুনতে হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার সিংড়ার চলনবিল গেট এলাকায় ডিমের আড়ত ঘুরে দেখা যায় খামারিরা ডিম নিয়ে বসে রয়েছেন। কিন্তু সেখানে ক্রেতাশূন্য।

খামার মালিক মো. হযরত আলী বলেন, সপ্তাহে সোম ও বৃহস্পতিবার এই দুদিন এই এলাকার হাটবার। প্রতি হাটেই এই আড়তে ৪০ থেকে ৫০ টাকা হালি ডিম বিক্রয় হয়। কিন্তু লকডাউনের কারণে আড়তে ক্রেতাশূন্যতা দেখা দিয়েছে। ডিম বিক্রয় করতে পারছে না।

ডিম ক্রেতা মো. তাইফুর রহমান বলেন, পাইকার আসে নাই তাই বাড়ির জন্য অর্ধেক দামে ডিম কিনতে পেরে খুব ভালো লাগছে। তবে মনে করোনাভাইরাস আতঙ্কও বিরাজ করছে।

চলনবিল ডিমের আড়তের মালিক মো. আবদুল ওহাব বলেন, গণপরিবহন চলাচল না করায় পাইকাররা আসেনি। ফলে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এতে খামার মালিকদের অর্ধেক দামে ডিম বিক্রয় করতে হচ্ছে। আর যারা ডিম কিনছে তারা তো সাধারণ জনগণ। এতো ডিম একসঙ্গে সাধারণ জনগণ কিনতে চায় না।

করোনাভাইরাসের প্রভাবে হাঁসের ডিম ২০ টাকা হালি!

 সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি 
২৬ মার্চ ২০২০, ১০:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হাঁসের ডিম
হাঁসের ডিম

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে নাটোরের সিংড়াসহ চলনবিল এলাকা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। আর গণপরিবহন চলাচল না করায় নিমিষেই ৪০ টাকা হালি হাঁসের ডিম কুড়ি টাকায় নেমে এসেছে।

এতে চলনবিল এলাকার প্রায় শতাধিক হাঁসের খামার মালিকদের লোকসান গুনতে হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার সিংড়ার চলনবিল গেট এলাকায় ডিমের আড়ত ঘুরে দেখা যায় খামারিরা ডিম নিয়ে বসে রয়েছেন। কিন্তু সেখানে ক্রেতাশূন্য।

খামার মালিক মো. হযরত আলী বলেন, সপ্তাহে সোম ও বৃহস্পতিবার এই দুদিন এই এলাকার হাটবার। প্রতি হাটেই এই আড়তে ৪০ থেকে ৫০ টাকা হালি ডিম বিক্রয় হয়। কিন্তু লকডাউনের কারণে আড়তে ক্রেতাশূন্যতা দেখা দিয়েছে। ডিম বিক্রয় করতে পারছে না।

ডিম ক্রেতা মো. তাইফুর রহমান বলেন, পাইকার আসে নাই তাই বাড়ির জন্য অর্ধেক দামে ডিম কিনতে পেরে খুব ভালো লাগছে। তবে মনে করোনাভাইরাস আতঙ্কও বিরাজ করছে।

চলনবিল ডিমের আড়তের মালিক মো. আবদুল ওহাব বলেন, গণপরিবহন চলাচল না করায় পাইকাররা আসেনি। ফলে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এতে খামার মালিকদের অর্ধেক দামে ডিম বিক্রয় করতে হচ্ছে। আর যারা ডিম কিনছে তারা তো সাধারণ জনগণ। এতো ডিম একসঙ্গে সাধারণ জনগণ কিনতে চায় না।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস