খুলনায় করোনা ও উপসর্গে ৫ জনের মৃত্যু
jugantor
খুলনায় করোনা ও উপসর্গে ৫ জনের মৃত্যু

  খুলনা ব্যুরো  

১৪ জুলাই ২০২০, ২৩:০১:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

খুলনায় করোনায় একজনের ও করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও চারজনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার দিনগত মধ্যরাত থেকে মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত এই মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালের আরএমও করোনা ওয়ার্ডের মুখপাত্র ডা. মিজানুর রহমান জানান, সোমবার দিনগত রাত সোয়া ১২টার দিকে নগরীর মহেশ্বরপাশা এলাকার মোহাম্মদ আলী (৫৮) করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। ওইদিন দুপুর পৌঁনে ১২টার দিকে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হন।

এছাড়া নগরীর খালিশপুর থানার নয়াবাটি এলাকার বাসিন্দা আবদুল হালিম (৩৭) কয়েকদিন ধরে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। সোমবার তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা সাসপেকটেড ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় তার মৃত্যু হয়।

এদিকে সোমবার রাতে খুলনা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় খুরশিদা আক্তার (৫৬) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়। তিনি নগরীর রামচন্দ্র দাস লেনের মোল্লা আলিম হোসেনের স্ত্রী।

অপরদিকে সোমবার রাত ৩টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মতিয়ার (৪৫) নামে একজনের মৃত্যু হয়। তিনি করোনার উপসর্গ নিয়ে সোমবার রাতে করোনা আাইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি হয়েছিলেন। তিনি যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার মহাদেবপুর এলাকার বাসিন্দা।

একই রাতে খুমেক হাসপাতালে করোনা উপসর্গে মৃত্যু হয় যশোর শহরের ষষ্ঠীতলা পাড়ার দিলীপ রায়ের (৬৪)। তিনি জ্বর ও শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে গত ১৩ জুলাই বিকালে খুমেক হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি হয়েছিলেন। করোনা পরীক্ষার জন্য তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

খুলনায় করোনা ও উপসর্গে ৫ জনের মৃত্যু

 খুলনা ব্যুরো 
১৪ জুলাই ২০২০, ১১:০১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

খুলনায় করোনায় একজনের ও করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও চারজনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার দিনগত মধ্যরাত থেকে মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত এই মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালের আরএমও করোনা ওয়ার্ডের মুখপাত্র ডা. মিজানুর রহমান জানান, সোমবার দিনগত রাত সোয়া ১২টার দিকে নগরীর মহেশ্বরপাশা এলাকার মোহাম্মদ আলী (৫৮) করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। ওইদিন দুপুর পৌঁনে ১২টার দিকে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হন।

এছাড়া নগরীর খালিশপুর থানার নয়াবাটি এলাকার বাসিন্দা আবদুল হালিম (৩৭) কয়েকদিন ধরে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। সোমবার তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা সাসপেকটেড ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় তার মৃত্যু হয়।

এদিকে সোমবার রাতে খুলনা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় খুরশিদা আক্তার (৫৬) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়। তিনি নগরীর রামচন্দ্র দাস লেনের মোল্লা আলিম হোসেনের স্ত্রী।

অপরদিকে সোমবার রাত ৩টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মতিয়ার (৪৫) নামে একজনের মৃত্যু হয়। তিনি করোনার উপসর্গ নিয়ে সোমবার রাতে করোনা আাইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি হয়েছিলেন। তিনি যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার মহাদেবপুর এলাকার বাসিন্দা।

একই রাতে খুমেক হাসপাতালে করোনা উপসর্গে মৃত্যু হয় যশোর শহরের ষষ্ঠীতলা পাড়ার দিলীপ রায়ের (৬৪)। তিনি জ্বর ও শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে গত ১৩ জুলাই বিকালে খুমেক হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি হয়েছিলেন। করোনা পরীক্ষার জন্য তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস