মায়েরগর্ভে থাকা ভ্রুণের অস্ত্রোপচার!
jugantor
মায়েরগর্ভে থাকা ভ্রুণের অস্ত্রোপচার!

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৩:৪৩:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

এবার মায়ের গর্ভে থাকা ৬ মাসের একটি ভ্রূণ বের করে অস্ত্রেপচার করে সারা দুনিয়াকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন একদল ব্রিটিশ চিকিৎসক।

সফল অস্ত্রোপচারের পর আবারও তা রাখা হয়েছে মায়ের গর্ভে। আগামী এপ্রিলেই সন্তানটি জন্মগ্রহণ করতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা এ ঘটনাকে চিকিৎসাবিজ্ঞানের নতুন মাইলফলক হিসেবে দেখছেন। খবর দ্যা ইন্ডিপেন্ডেন্টের।

ব্রিটিশ নারী বিথান সিম্পসনের গর্ভে থাকা ভ্রূণের বয়স যখন ৫ মাস, তখন পরীক্ষায় ধরা পড়ে তার মস্তিষ্কের গঠন ঠিকমতো হচ্ছে না।

বিথানকে পাঠানো হয় এসেক্সের ব্রুমফিল্ড হাসপাতালে। সেখানকার চিকিৎসকেরা জানিয়ে দেন, গর্ভস্থ ভ্রূণটি জটিল স্নায়ুরোগের শিকার, যার নাম 'স্পাইনা বিফিডা'।

ভ্রূণের স্নায়ুনালি থেকে ভবিষ্যতে মেরুদন্ড এবং মস্তিষ্ক তৈরি হয়। 'স্পাইনা বিফিডা' থাকলে স্নায়ুনালির গঠন ঠিকমতো হয় না। তাই মস্তিষ্কের বৃদ্ধিও যথাযথ হয় না। এর ফলে জন্মানোর পর সারা জীবনের জন্য পঙ্গুও হয়ে থাকতে পারে ওই শিশুটি।

তিনি বলেন, আমি শুনেছি লন্ডনে যে সব গর্ভস্থ শিশুর এই রোগ হয়, তাদের শতকরা ৮০ ভাগই অ্যাবোরশন করানো হয়। কিন্তু যখন জানলাম, ওকে বাঁচিয়ে রাখার উপায় রয়েছে, আমরা অস্ত্রোপচারেই রাজি হয়ে গেলাম।'

মায়েরগর্ভে থাকা ভ্রুণের অস্ত্রোপচার!

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০১:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

এবার মায়ের গর্ভে থাকা ৬ মাসের একটি ভ্রূণ বের করে অস্ত্রেপচার করে সারা দুনিয়াকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন একদল ব্রিটিশ চিকিৎসক।

সফল অস্ত্রোপচারের পর আবারও তা রাখা হয়েছে মায়ের গর্ভে। আগামী এপ্রিলেই সন্তানটি জন্মগ্রহণ করতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা এ ঘটনাকে চিকিৎসাবিজ্ঞানের নতুন মাইলফলক হিসেবে দেখছেন। খবর দ্যা ইন্ডিপেন্ডেন্টের।

ব্রিটিশ নারী বিথান সিম্পসনের গর্ভে থাকা ভ্রূণের বয়স যখন ৫ মাস, তখন পরীক্ষায় ধরা পড়ে তার মস্তিষ্কের গঠন ঠিকমতো হচ্ছে না।

বিথানকে পাঠানো হয় এসেক্সের ব্রুমফিল্ড হাসপাতালে। সেখানকার চিকিৎসকেরা জানিয়ে দেন, গর্ভস্থ ভ্রূণটি জটিল স্নায়ুরোগের শিকার, যার নাম 'স্পাইনা বিফিডা'।

ভ্রূণের স্নায়ুনালি থেকে ভবিষ্যতে মেরুদন্ড এবং মস্তিষ্ক তৈরি হয়। 'স্পাইনা বিফিডা' থাকলে স্নায়ুনালির গঠন ঠিকমতো হয় না। তাই মস্তিষ্কের বৃদ্ধিও যথাযথ হয় না। এর ফলে জন্মানোর পর সারা জীবনের জন্য পঙ্গুও হয়ে থাকতে পারে  ওই শিশুটি।  

তিনি বলেন, আমি শুনেছি লন্ডনে যে সব গর্ভস্থ শিশুর এই রোগ হয়, তাদের শতকরা ৮০ ভাগই অ্যাবোরশন করানো হয়। কিন্তু যখন জানলাম, ওকে বাঁচিয়ে রাখার উপায় রয়েছে, আমরা অস্ত্রোপচারেই রাজি হয়ে গেলাম।'